,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

দক্ষিণ চট্টগ্রামের উপকূলে জেলেদের জালে ধরা পড়েছে ঝাঁকে ঝাঁকে ইলিশ

fishing hilshaশাহ্ মুহাম্মদ শফিউল্লাহ, বাঁশখালী প্রতিনিধি, বিডিনিউজ রিভিউজ: চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলার আনোয়ারা, বাঁশখালী ও কক্সবাজার জেলার জেলেদের জালে ধরা পড়েছে ঝাকে ঝাকে ইলিশ। জেলেদের মুখে হাসি। স্থানীয় সূত্র জানা যায়, চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলার আনোয়ারা, বাঁশখালী ও কক্সবাজার জেলার  উপকূলে গত এক মাসের ধরা পড়া ইলিশে এলাকায় খুশীর আমেজ বিরাজ করেছে। যেনো পুরো উপকূলজুড়ে চলছে ইলিশ ধরার উৎসব। আর এই কারণে দীর্ঘদিন ধরে উপকূলের ক্ষতিগ্রস্থ বেড়িবাঁধ নিয়ে কষ্ট পাওয়া উপকূলবাসীর কিছুটা হলেও কষ্ট ছাপিয়ে মন খুলে হাসছেন।   বাঁশখালী উপজেলার প্রেমাশিয়া, কদমরসুল, ছনুয়া, বাংলা বাজার শেখেলখীল ও আনোয়ারা উপজেলার দোভাষী বাজার, দক্ষিণ সরেঙ্গা, বার আউলিয়া, ধলঘাট, ফকির হাট, বাইন্যার দিঘী ও ছিপাতলী ঘাট এলাকা ঘুরে দেখা গেছে জেলেরা মাছ ধরে বাজারের জন্য প্যাকেট করছেন। কেউ কেউ বরফ দিয়ে বক্স করে রাখছেন। এসব মাছ চট্টগ্রাম শহর ও রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে নিয়ে যাওয়া হবে।

বাঁশখালীর বাংলা বাজার এলাকার জাগের বাঝি,গন্ডামারা ইউনিয়নের বরঘোনা গ্রোমের কাদের মাঝি, জানান, গত একমাস ধরে বাঁশখালী উপকূলে ব্যাপক ইলিশ ধরা পড়েছে। ইলিশ মাছ বাঁশখালী, আনোয়ারাসহ চট্টগ্রাম শহরের বিভিন্ন বাজারের ব্যাবসায়ীদের কাছে বিক্রি করে দেওয়া হয়েছে। গতকাল বাঁশখালীর শেখেরখীল ফাড়ির মুখ, বাংলা বাজার, গন্ডামারা বড়ঘোনা ও আনোয়ারা উপকূলীয় এলাকায় গুরে দেখা যায়, জেলেদের ঘরে-ঘরে খুশির জোয়র বইছে, হাট-বাজার ছাড়াও ঘরে-ঘরে ইলিশ ভ্যন গাড়ীতে করে বিক্রিয় করছে ব্যপারীরা।

ইলিশ মাছের মূল্য ধরে প্রতিটি বড় বড় ইলিশ কেজি ২৫০-৩০০ টাকা, ছোট ১৫০-২৫০ টাকা ধরে বিক্রি করা হয়েছে। এতে ব্যাপক লাভ হয়েছে। শেখেরখীল ইউনিয়নের বোডের মালিক আব্দু শুক্কুর কোং জানান, এলাকার প্রায় সবগুলো নৌকা গড়ে ১০ থেকে ১২ হাজার মাছ ধরেছে। আর এসব মাছ চট্টগ্রাম শহরের বিভিন্ন স্থানে আর কেউ নদী থেকে ইলিশ তুলে ঘাটে বিক্রি করে দিচ্ছেন। তবে মাছের দাম বেশি ও মাছ বেশি ধরা পড়ায় আমরা খুব খুশি। আনোয়ারা উপজেলার সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা আনিল কুমার শাহা জানান, এলাকায় জেলেদের জালে ইলিশ ধরা পড়েছে প্রচুর, দাম ও ভাল পাচ্ছেন জেলেরা। এভাবে আরও কয়েকদিন মাছ ধরা পড়লে জেলেদের ভালো আয় হবে।

 

মতামত...