,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

দেশের প্রথম দলীয় সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন নারায়ণগঞ্জে ২২ ডিসেম্বর

নারায়ণগঞ্জ সংবাদদাতা, বিডিনিউজ রিভিউজঃ নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন (নাসিক) নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়েছে। দলীয় ভিত্তিতে দেশে প্রথমবারের মতো এই ভোট অনুষ্ঠিত হবে আগামী ২২ ডিসেম্বর। প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী রকিবউদ্দীন আহমদ গতকাল সোমবার এই তফসিল ঘোষণা করেছেন। ঘোষিত তফসিল অনুসারে মেয়র ও কাউন্সিলর পদে রিটার্নিং অফিসারের কাছে মনোনয়নপত্র জমা দেওয়া যাবে ২৪ নভেম্বর পর্যন্ত। বাছাই ২৬ ও ২৭ নভেম্বর। মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ সময় ৪ ডিসেম্বর।

ইসির সম্মেলন কেন্দ্রে বিকেলে সিইসির তফসিল ঘোষণার সময় নির্বাচন কমিশনার আবু হাফিজ, জাবেদ আলী ও মো. শাহনেওয়াজ এবং ইসি সচিব মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ উপস্থিত ছিলেন।

কমিশনের উপসচিব মো. নুরুজ্জামান তালুকদারকে এই নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসার নিয়োগ করা হয়েছে। সহকারী রিটার্নিং অফিসার হিসেবে থাকছেন নির্বাচন কর্মকর্তা মো. তারিফুজ্জামান, সহিদ আব্দুস সালাম, মোহাম্মদ নুরুল আলম, মোহাম্মদ শফিকুর রহমান, মুহাম্মদ নাজিম উদ্দীন, মো. রশিদ মিয়া, সাইয়েদ মো. আনোয়ার খালেদ, মো. ওমর ফারুক ও মো. সুমন মিয়া।

২০১১ সালের ৫ মে সিটি করপোরেশন হিসেবে নারায়ণগঞ্জ প্রতিষ্ঠার পর এটি দ্বিতীয় নির্বাচন। তবে দলীয় ভিত্তিতে দেশে প্রথমবারের মতো এই সিটি করপোরেশনে নির্বাচন হতে যাচ্ছে। নারায়ণগঞ্জ পৌরসভা, কদমরসুল পৌরসভা ও সিদ্ধিরগঞ্জ পৌরসভাকে বিলুপ্ত করে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন গঠন করা হয়। এই সিটিতে ২৭টি সাধারণ ও ৯টি সংরক্ষিত ওয়ার্ড রয়েছে। মোট ভোটার চার লাখ ৭৯ হাজার ৩৯২ জন। এটা পাঁচ বছর আগের চেয়ে পৌনে এক লাখ বেশি। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার দুই লাখ ৪১ হাজার ৫১৪ জন এবং নারী ভোটার দুই লাখ ৩৭ হাজার ৮৭৮ জন।

সম্ভাব্য ভোটকেন্দ্র ১৬৩টি ও ভোটকক্ষ এক হাজার ২১৭টি। এর বিপরীতে ১৬৩ প্রিসাইডিং অফিসার, এক হাজার ২১৭ জন সহকারী প্রিসাইডিং অফিসার ও দুই হাজার ৪৩৪ জন পোলিং অফিসার ভোটগ্রহণের দায়িত্বে থাকবেন।

দেশে সিটি করপোরেশন গঠনের পর এসব স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানের নির্বাচন আইনত নির্দলীয়ভাবে অনুষ্ঠিত হয়ে আসছিল। বর্তমান সরকার স্থানীয় সরকারে মেয়র ও চেয়ারম্যান পদে সব নির্বাচন দলীয় ভিত্তিতে অনুষ্ঠানের সিদ্ধান্ত নেয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদের পর গত বছরের ২২ নভেম্বর স্থানীয় সরকার (সিটি করপোরেশন) (সংশোধন) আইন, ২০১৫ জারি করা হয়। সংশোধিত ওই আইনের আলোকেই সিটি করপোরেশন নির্বাচন বিধিমালা ও নির্বাচনী আচরণ বিধিমালা প্রস্তুত করেছে কমিশন।

স্বতন্ত্র প্রার্থীদের জন্য বিধান : নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে মনোনয়নপত্র দাখিলে স্বতন্ত্র প্রার্থীদের ৩০০ ভোটারের স্বাক্ষরযুক্ত তালিকা দিতে হবে। স্থানীয় সরকার (সিটি করপোরেশন) নির্বাচন বিধিমালা ২০১০-এর সংশোধনীতে এই বিধান রেখেছে ইসি। পৌরসভা নির্বাচনে এ ক্ষেত্রে ১০০ ভোটারের স্বাক্ষরযুক্ত তালিকা দেওয়ার বিধান রয়েছে। ইউপি নির্বাচনের ক্ষেত্রে এ ধরনের কোনো বিধান নেই। তবে স্বতন্ত্র প্রার্থীদের ক্ষেত্রে জাতীয় সংসদ নির্বাচনের বিধানটি কঠিন। এ নির্বাচনে সংশ্লিষ্ট নির্বাচনী এলাকার মোট ভোটারের ১ শতাংশের স্বাক্ষর প্রয়োজন হয়।

মতামত...