,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

নব্য জিএমবির অর্থযোগানদাতা ৩০ লাখ টাকাসহ গ্রেপ্তার: চিকিৎসাধীন অবস্থায় নিহত

jবিশেষ সংবাদদাতা, বিডিনিউজ রিভিউজঃ  সভারের আশুলিয়ায় আহত অবস্থায় গ্রেপ্তার নব্য জিএমবির অর্থযোগানদাতা আইনুল ওরফে এনামুল ওরফে আবদুর রহমান মারা গেছেন।

শনিবার ৮ আক্টোবর রাত ৮টার দিকে সাভার এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায় সে।ঢাকা-১৯ আসনের সাংসদ ডা. এনামুর রহমান জানান,  সভারের আশুলিয়ায় আহত অবস্থায় গ্রেপ্তার নব্য জিএমবির অর্থযোগানদাতা এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায়।

নিহত জেএমবি নেতা আইনুল হক ঠাকুরগাঁও জেলার পীরগঞ্জ থানার চন্দোরিয়া গ্রামের আব্দুর রহমানের ছেলে। তবে এনামুল হক, নাজমুল ইসলাম ও সরওয়ার হোসেনসহ একাধিক নাম সে অবস্থান পরিবর্তনের ক্ষেত্রে ব্যবহার করতো । তিনি নব্য জেএমবির অর্থদাতা। ওষুধ কোম্পানির বিক্রয় কর্মী হিসেবে সে বাসা ভাড়া নেয় বলে জানিয়েছে র‌্যাব।

সন্ধ্যায় আশুলিয়ার বসুন্ধরা এলাকায় আমির মৃধা শাহিনের মৃধা ভবনের পাঁচ তলা বাড়িতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী অভিযান চালিয়ে স্ত্রী শাহনাজ ও তিন সন্তানসহ তাকে গ্রেপ্তার করে। এরপর তাকে সভারের এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। আটকের সময় তার কাছ থেকে ৩০ লাখ টাকা উদ্ধার করা হয়েছে। তার সন্তানকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী নিজেদের হেফাজতে নিয়েছে। অভিযানের সময় তার বাসা থেকে একটি বিদেশি পিস্তল, বেশ কিছু ‘জিহাদি’ বই, দেশীয় অস্ত্র, উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন বৈদ্যুতিক ব্যাটারি ও ৩০ লাখ টাকা উদ্ধার করা হয়েছে।

রাত সাড়ে ৯টার দিকে সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার মুফতি মাহমুদ জানান, জঙ্গি নির্মূলে গাজীপুর ও টাঙ্গাইলে র‌্যাবের এলিট ফোর্স যে অভিযান পরিচালনা করেছে এর অংশ হিসেবে সাভারেও অভিযান পরিচালনা করা হয়। তবে আশুলিয়ার বসুন্ধরা টেক এলাকায় আমির মৃধা শাহিনের মৃধার বাড়িতে আইনুল হক নামে যে জঙ্গি গত ৬ মাস আগে পঞ্চম তলার একটি কক্ষ ভাড়া নিয়েছিলো সে সারা দেশে সংঘটিত সকল জঙ্গি কর্মকান্ডের অর্থের যোগানদাতা ও পরিকল্পণাকারী হিসেবে কাজ করতো।

ঘটনার বর্ণনা দিয়ে তিনি বলেন, আইনুল নামের ওই নব্য জেএমবি নেতা এখানে অবস্থান করছে এমন সংবাদের ভিত্তিতেই আজ অভিযান পরিচালনা করেন তারা। এসময় আইনুল র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে পঞ্চম তলার ভাড়া কক্ষ থেকে লাফিয়ে পড়লে গুরুতর জখম হয়। পরে তাকে সাভারের এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এসময় আইনুলের স্ত্রী শাহনাজ আক্তার রুমি ও তার এক কন্যা ও দুই ছেলে সন্তানকে হেফাজতে নেওয়া হয়। একই সাথে ওই বাড়ির কেয়ারটেকার তরিকুল ইসলামকেও জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয় বলেও জানান তিনি।

র‌্যাবের এই কর্মকর্তা আরো বলেন, এসময় আইনুলের কক্ষে তল্লাশি চালিয়ে একটি বিদেশী পিস্তল, দুইটি ম্যাগজিন, ২০ রাউন্ড গুলি, বিস্ফোরক দ্রব্য, নগদ ৩০ লাখ টাকা, দেশে সংঘটিত জঙ্গি কর্মকান্ডের ২টি ম্যাপ, মোবাইল জ্যামার, নাইট ভিশন বাইনোকুলার, ১২টি মোবাইল, বেশ কিছু জিহাদি বই, দেশীয় অস্ত্র ও উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন্ বৈদি্যুতিক ব্যাটারী উদ্ধার করা হয়।

ঢাকা-১৯ আসনের সংসদ সদস্য ডা. এনামুর রহমান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। এসময় তিনি জানান, আহত জঙ্গিকে গত দুই বছর ধরে খুঁজে বেড়ালেও তার অবস্থান পাঁচ বার পরিবর্তন করায় তাকে আটক করা সম্ভব হচ্ছিল না।

গত ১ জুলাই গুলশানের স্প্যানিশ রেস্তোরাঁ হলি আর্টিজান বেকারিতে হামলা করে জঙ্গিরা বিদেশিসহ ২২ জনকে হত্যা করে। পরে যৌথ বাহিনীর অভিযানে পাঁচ জঙ্গি মারা যায়। এরপর থেকে বিভিন্ন স্থানে জঙ্গিবিরোধী অভিযান অব্যাহত আছে। এর অংশ হিসেবে রাজধানীর কল্যাণপুর, রূপনগর, আজিমপুর, নারায়ণগঞ্জে অভিযানকালে বেশ কয়েকজন জঙ্গি মারা যান।সবশেষ শনিবার গাজীপুরের দুইটি এবং টাঙ্গাইলের একটি আস্তানায় অভিযানকালে ১১ ‘জঙ্গি’ হয়েছেন। আজই একদিনে সর্বোচ্চ ‘জঙ্গি’ নিহতের ঘটনা ঘটলো।

মতামত...