,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

নান্দনিকতা ফিরে আসছে মডেল ক্লিন ও গ্রিন সিটি চট্টগ্রামে

azm nasirমীর মুহাম্মদ নাছির উদ্দিন দিকদার,(বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকম):: চট্টগ্রাম,  পরিকল্পিত নগরায়নের ওপর একটি পূর্ণাঙ্গ প্রস্তাবনা উপস্থাপনের জন্য নগর পরিকল্পনাবিদদের আহবান জানিয়েছেন সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন। মঙ্গলবার রাতে নগর ভবনের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন গঠিত প্ল্যানিং সেলের সভায় সিটি মেয়র এ আহবান জানান।

মেয়র বলেন, ৫৩ দশমিক ৩৮ জায়গার ওপর দোতলা বেসমেন্টসহ ২৩ তলা ফ্লোরবিশিষ্ট একটি আইকন নগরভবন নির্মাণ করা হবে। নগরভবনে রেস্ট হাউস, মাল্টিপারপাস হল, সম্মেলন কক্ষ, গ্যালারি সিস্টেমের হলরুমসহ সিটি কর্পোরেশনের প্রতিটি বিভাগ ও শাখার কার্যক্রম একই ভবন থেকে পরিচালিত হবে। সিটি মেয়র যানজট নিরসনে গণপরিবহন নিয়ন্ত্রণ এবং ট্রাফিক ব্যবস্থা যুগোপযুগী করার লক্ষ্যে সংশ্লিষ্টদের সাথে পরামর্শ করা হবে বলে জানান।
তিনি বলেন, চট্টগ্রামকে নান্দনিকতায় গড়ে তোলা হবে। বিশ্বে চট্টগ্রাম হবে একটি মডেল ক্লিন ও গ্রিন সিটি। প্রসঙ্গক্রমে মেয়র বলেন, ২০১৫ সালের ২২ আগস্ট থেকে নগরীর সৌন্দর্য্য বর্ধনে নাগরিক সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে প্রচার কার্যক্রম অব্যাহত আছে। তিনি বলেন, গতবছরের ১ সেপ্টেম্বর থেকে রাতে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা চালু করা হয়েছে। এ বিষয়ে নাগরিকদের সহযোগিতা দৃশ্যমান।
তিনি বলেন, আবর্জনামুক্ত, পরিচ্ছন্ন নগরী গড়ার পরিকল্পনা অনুযায়ী ঘরে ঘরে আবর্জনা সংগ্রহ কার্যক্রমের পাইলট প্রকল্প হাতে নেয়া হবে। প্রাথমিক পর্যায়ে কয়েকটি ওয়ার্ডকে পাইলট প্রকল্পের আওতায় আনা হবে।
আ জ ম নাছির উদ্দীন সর্বস্তরের নাগরিকদের স্বার্থ সংরক্ষণ করেই সিটি কর্পোরেশন জনস্বার্থে সেবা কার্যক্রম অব্যাহত রাখতে অঙ্গীকারাবদ্ধ উল্লেখ করে তিনি তাঁর ভিশন বাস্তবায়নে সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।
সভায় বাস্থই, চট্টগ্রাম চ্যাপ্টারের চেয়ারম্যান স্থপতি তসলিম উদ্দিন চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক স্থপতি সোহেল মোহাম্মদ শাকুর, আইইবি চট্টগ্রাম কেন্দ্রের ভাইস চেয়ারম্যান প্রকৌশলী আবদুর রশিদ, আইইবি চট্টগ্রাম কেন্দ্রের সাবেক চেয়ারম্যান প্রকৌশলী মোহাম্মদ হারুন, প্রকৌশলী আলী আশরাফ, প্রকৌশলী দেলোয়ার হোসেন মজুমদার, প্রকৌশলী সুভাষ বড়–য়া, স্থপতি জেরিনা হোসাইন, চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মহসিন চৌধুরী, বিআইপি চট্টগ্রাম চ্যাপ্টারের সেক্রেটারি মো. আবু ঈসা আনছারী, ।

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা কাজী মোহাম্মদ শফিউল আলম, মেয়রের একান্ত সচিব মোহাম্মদ মঞ্জুরুল ইসলাম, প্রধান নগর পরিকল্পনাবিদ স্থপতি এ কে এম রেজাউল করিম, তত্বাবধায়ক প্রকৌশলী মো. রফিকুল ইসলাম, আনোয়ার হোছাইন, মো.মাহফুজুল হক, নির্বাহী প্রকৌশলী মনিরুল হুদা, আবু ছালেহ, কামরুল ইসলাম, সহকারী প্রকৌশলী হারাধন আচার্য, সহকারী নগর পরিকল্পনাবিদ স্থপতি আবদুল্লাহ আল ওমর, সহকারী প্রকৌশলী মঞ্জুরুল হক তালুকদার প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
প্ল্যানিং সেলের সভায় চট্টগ্রাম শহরকে সবুজ, পরিচ্ছন্ন এবং আধুনিক প্রযুক্তি সমৃদ্ধ নগরীতে পরিণত করতে দ্য ইনোভিশন সলিউশন লিমিটেড এবং এক্সটেনসিভ মিডিয়া একটি করে প্রস্তাবনা উপস্থাপন করে।
এছাড়াও স্থপতি সোহেল মোহাম্মদ শাকুর নগর ভবনের একটি প্রস্তাবনা পাওয়ার পয়েন্টে উপস্থাপন করেন। দ্য ইনোভেশন সলিউশন লিমিটেডের পরিচালক মুজিবুর রহমান তাঁর প্রস্তাবনায় মিড আইল্যান্ড এন্ড ফুটপাত বিউটিফিকেশন, বিউটিফিকেশন এট এয়ারপোর্ট রোড, সোলার প্যানেল ওয়াইফাই বাস স্টপ উইথ ইনফরমেশন ডেস্ক এন্ড টয়লেট, ফ্লাইওভার বিউটিফিকেশন এট জিইসি, ফ্লাইওভার বিউটিফিকেশন, স্কালপচার উইথ ফাউন্টেইন এট টাইগারপাস, স্কালপচার উইথ ফাউন্টেন এট জামাল খান, ডান্সিং ফাউন্টেন এট প্রবর্তক, মিউজিক্যাল ডান্সিং ফাউন্টেন উইথ ইটারনাল ফ্লাম এট এমএ আজিজ স্টেডিয়াম, স্কাল্পচার এট কর্ণফুলী ব্রিজ, স্কাল্পচার উইথ ফাউন্টেন এট জিইসি, কাজির দেউড়ি, অক্সিজেন, জিপিও, ডান্সিং ফাউন্টেন এট নিউ মার্কেট, স্কাল্পচার এট এয়ারপোর্ট, ডান্সিং ফাউন্টেন এট এয়াপোর্ট এন্ট্রেন্স নিউ টেকনোলজি এলইডি এইচডি স্ক্রলার, সোলার প্যানেল এইচডি স্ক্রলার উইথ বিন বক্স ইত্যাদির সচিত্র প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন। উপস্থাপিত প্রস্তাবনায় বলা হয়, নকশা অনুযায়ী আধুনিক ডিজিটাল যাত্রীছাউনি স্থাপন, যাতে সোলার প্যানেল দ্বারা বিদ্যুতের ব্যবস্থা, ওয়াই-ফাই সিস্টেমের মাধ্যমে ইন্টারনেট সুবিধা, ইনফরমেশন ডেস্ক, যাত্রীদের জন্য পানীয় ও জরুরী মোবাইল রিচার্জ এবং প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রে টয়লেটের সু-ব্যবস্থা থাকবে। চট্টগ্রাম শহরে নির্মিত বহদ্দারহাট ফ্লাইওভার, কদমতলী ফ্লাইওভার, দেওয়ানহাট ফ্লাইওভার, নির্মানাধীন আখতারুজ্জামান ফ্লাইওভার এবং নির্মিতব্য লালখান বাজার থেকে বিমানবন্দর এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়েসমূহে সংযুক্ত নকশা অনুযায়ী সৌন্দর্য্য বর্ধিতকরণ, যাতে ফ্লাইওভারের নিম্নাংশে সবুজায়ন, পুষ্পায়ন, ভাষ্কর্য্য স্থাপন, বিভিন্ন রং, লাইটিং এবং ফ্লাইওভারের ওপরের লাইটপোস্টসমূহে সহনীয় ওজনের পুষ্পঝাড় স্থাপন। চট্টগ্রাম শহরকে আধুনিক পরিচ্ছন্ন শহরে রূপ দিতে সড়কসমূহে সংযুক্ত নকশা অনুযায়ী সৌন্দর্য্য বর্ধনে রাস্তার মাঝখানে লাইটপোস্টের সাথে পুষ্পঝাড় স্থাপন ও পথচারীদের সহজ সুবিধা নিশ্চিত করতে সোলার প্যানেল দ্বারা আলোকিতকরণ ও সহজে পরিষ্কারযোগ্য ডাস্টবিনসহ বিভিন্ন ডিজিটাল লাইটবক্স স্থাপন ও চৌরাস্তার মোড়ে ফুটপাতের বাইরে ফাঁকা জায়গায় সবুজায়ন ও পুষ্পায়ন করে বিভিন্ন পরিমানের এলইডি ও এইচডি স্ক্রলার সাইন স্থাপন এবং চট্টগ্রাম শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক মোড় ও সড়কদ্বীপসমূহে সংযুক্ত নকশা অনুযায়ী নান্দনিক ফোয়ারাসহ ভাষ্কর্য্য স্থাপন।
এক্সটেনসিভ মিডিয়ার প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সরোজ বড়ুয়া রাস্তার মিড আইল্যান্ডে সৌন্দর্য্য বর্ধন, চট্টগ্রাম ক্লাবের বিপরীত পার্শ্বে দেওয়ালে ভিজুয়াল টেরাকোটা নির্মাণ, যাতে আমাদের চট্টগ্রামের কৃষ্টি, ঐতিহ্য, সংস্কৃতির চিত্র প্রকাশ, দেওয়াল, গোলচত্বর এবং ত্রিভুজ আকৃতির স্থানে বিউটিফিকেশন, ল্যান্ডস্কেপ, সৌন্দর্যবর্ধনকারী টব, মিড আইলেন্ড সবুজায়ন ইত্যাদি প্রস্তাবনার উপর সচিত্র প্রতিবেদন পাওয়ার পয়েন্টে উপস্থাপন করেন।

 

মতামত...