,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

নিরাপত্তাবিহীন ভবন নির্মাণ: বাঁচানো গেল না বিএএফ শাহীন কলেজের সেই শিক্ষার্থীকে

নিউজ ডেস্ক, ৮ জানুয়ারী, বিডিনিউজ রিভিউজ.কম:: নগরীর বিএএফ শাহীন কলেজের সেই শিক্ষার্থীকে আর বাঁচানো গেল না। নির্মাণাধীন ভবন থেকে বাঁশ পড়ে মাথায় গুরুতর আঘাতপ্রাপ্ত এ শিক্ষার্থী অবশেষে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়লেন। শিক্ষার্থী আবিদুর রহমান রাকিব (১৮) আঘাত প্রাপ্ত হয়ে সাত দিন জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে থেকে অবশেষে মৃত্যুর কাছে হার মানলেন। গতকাল শনিবার সকাল ১১টায় চমেক হাসপাতালে মারা যান। নিহত রাকিব বিএএফ শাহীন কলেজের প্রথম বর্ষের ছাত্র। চন্দনাইশ উপজেলার জোয়ারা ফতেনগর গ্রামের বাসিন্দা আবুল বশরের পুত্র রাকিব চমেক হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রের (আইসিইউ) বিছানায় সাত দিন ধরে অচেতন ছিলেন। ১ জানুয়ারি (রোববার) চট্টগ্রাম নগরীর ইপিজেড থানার ব্যারিস্টার সুলতান আহমদ চৌধুরী কলেজ সংলগ্ন আবদুল মাবুদ সওদাগর লেইন এলাকায় জনৈক মহিউদ্দিনের নির্মাণাধীন ছয়তলা ভবন থেকে মাথায় বড় আকারের একটি বাঁশ পড়ে গুরুতর আহত হয় রাকিব। এরপর তাকে প্রথমে চমেক হাসপাতালে ২৮নং ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়। অবস্থার অবনতি হলে হাসপাতালের চতুর্থ তলায় আইসিইউতে ৬নং বেডে স্থানান্তর করা হয়। ঘটনাস্থলের কাছেই তার মামার ভাড়া বাসায় থেকে রাকিব লেখাপড়া করতো।
রাবিকের পরিবারের সদস্যদের কাছ থেকে জানা গেছে, ওইদিন বেলা ১২টায় চায়ের দোকানে বসে চা খাচ্ছিলেন রাকিব। এসময় পাশের নির্মাণাধীন ছয়তলা ওই ভবন থেকে একটি বড় বাঁশ তার মাথার উপর পড়ে। এ সময় তার মাথায় বেশ রক্তক্ষরণ হয়। স্থানীয় কয়েকজন ব্যক্তি তাকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় চমেক হাসপাতালে নিয়ে যায়। ভবন মালিকের অবহেলার কারণে এত বড় দুর্ঘটনা ঘটেছে বলে পরিবারের পক্ষ
থেকে অভিযোগ করা হয়েছে। কোন প্রকার নিরাপত্তা ব্যবস্থা ছাড়াই সড়কের পাশে ভবনে নির্মাণ কাজ চলছিল। কলেজ ছাত্র রাকিবের করুণ মৃত্যুতে তার পরিবার-পরিজনসহ এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।
মোহাম্মদ মীর কাশেম জানান, নির্মাণাধীন ভবনের উপর থেকে বাঁশ পড়ে মাথায় গুরুতর যখম হয় রাবিক। এরপর তাকে নিবীড় পর্যক্ষণে রাখা হয় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। কিন্তু সবকিছুকে ব্যর্থ করে রাকিব সবাইকে ছেড়ে চলে গেল।
জানা গেছে, নগরীর নির্মাণাধীন অসংখ্য বিন্ডিংয়ে কোন ধরনের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করা হয়না। ফলে প্রতিনিয়ত নির্মাণ সামগ্রী পড়ে আহত হচ্ছেন পথচারীরা। রাকিবের মতো একজন সম্ভাবনাময় মেধাবি শিক্ষার্থীর মৃত্যুর ঘটনা তারই প্রমাণ।
মোহাম্মদ মীর কাশেম প্রশ্ন রেখে বলেন, নগরীতে এসব দেখার কি কেউ নেই?

মতামত...