,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

নিরাপত্তা কর্মীর চাকরি নিয়ে পোশাক কারখানার সাড়ে ৩ কোটি টাকা লুট

বিশেষ সংবাদদাতা, ২৮ ফেব্রুয়ারী বিডিনিউজ রিভিউজ.কম:: ডাকাতির উদ্দেশ্যে পোশাক কারখানায় নিরাপত্তাকর্মীর চাকরি নেয় দুই ব্যক্তি। গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার ‘নিট প্লাস লিমিটেডে’ চাকরি পাওয়া ব্যক্তিরা হলেন মাহাবুবুর রহমান ওরফে আবদুল খালেক মিয়া ও ফারুক হোসেন ওরফে আলম শিকদার। পরে পরিকল্পনা অনুযায়ী, গত ৭ জানুয়ারি ওই কারখানার ভল্ট ভেঙে তিন কোটি ৪০ লাখ ৫১ হাজার টাকা লুট করে খালেক ও আলমসহ ডাকাত দল। অবশেষে র‌্যাবের জালে ধরা পড়লেন ডাকাতির সঙ্গে জড়িত দলটির ছয় সদস্য।

সোমবার সকাল ১১টায় রাজধানীর কারওয়ান বাজারে র‌্যাবের মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানানো হয়।

ব্যাব জানিয়েছে, রোববার রাতে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে ওই ছয় জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তারা হলেন—মাহাবুবুর রহমান ওরফে ফিরোজ মোল্লা ওরফে আবদুল খালেক মিয়া (৫১), ফারুক হোসেন ওরফে বাবুল ওরফে আলম শিকদার (৫০), খলিলুর রহমান রানা ওরফে রানা সর্দার ওরফে রানা ওরফে ফিরোজ (৪০), বেলায়েত হোসেন ওরফে আকন্দ ওরফে বেলায়েত (৪২), ইকবাল হোসেন রুবেল ওরফে রুবেল (৩৭) ও উজ্জ্বল বিশ্বাস (৩৪)।

র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার মুফতি মাহমুদ খান সংবাদ সম্মেলনে জানান, গ্রেফতার ব্যক্তিরা গত ৭ জানুয়ারি কালিয়াকৈরের মৌচাকের ‘নিট প্লাস লিমিটেড’ নামে একটি পোশাক কারখানার ভল্ট ভেঙে তিন কোটি ৪০ লাখ ৫১ হাজার টাকা লুট করে। ডাকাতির পর কারখানার দুই নিরাপত্তা কর্মী আবদুল খালেক মিয়া ও আলম শিকদার নিখোঁজ থাকায় সন্দেহ হয়। তদন্তে নেমে র‌্যাব সদস্যরা জানতে পারেন, খালেক ও আলম ডাকাতির মূল পরিকল্পনাকারী। খালেকের আসল নাম মাহাবুবুর রহমান এবং আলমের আসল নাম ফারুক হোসেন। তারা ছদ্ম নাম ও ভূয়া ঠিকানা ব্যবহার করে গত ডিসেম্বরে ওই পোশাক কারখানায় নিরাপত্তাকর্মীর চাকরি নেয়। কারখানার কোথায় কিভাবে অর্থ রাখে সে বিষয়ে গোপনে খোঁজ-খবর রাখত তারা।

তিনি জানান, গত ৭ জানুয়ারি রাতে ডাকাত দলের অন্য সদস্যরা কারখানার আশপাশে অবস্থান নেয়। ওই রাতে খালেক ও আলমসহ মোট ছয়জন নিরাপত্তাকর্মী পোশাক কারখানার নিরাপত্তার দায়িত্বে ছিলেন। খালেক ও আলম অপর চার নিরাপত্তাকর্মীকে বিস্কুট ও পানীয়ের সঙ্গে নেশা জাতীয় দ্রব্য খাইয়ে অচেতন করে। এরপর অপেক্ষমাণ ডাকাত সদস্যদের ভেতরে ঢুকিয়ে ভল্ট ভেঙে অর্থ লুট করে নিয়ে যায়।

র‌্যাবের এই কর্মকর্তা জানান, গত রোববার ভোর থেকে সোমবার ভোর পর্যন্ত একযোগে রাজধানী, খুলনা, রাজশাহী, কুমিল্লা, বরিশাল ও গোপালগঞ্জের বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে এই ছয়জনকে গ্রেফতার করা হয়। পোশাক কারখানা থেকে লুট হওয়া টাকার মধ্যে এক কোটি ১৭ লাখ টাকা ও এক হাজার ১০০ ডলার উদ্ধার করা হয়েছে। একইসঙ্গে তাদের কাছ থেকে একটি অস্ত্র, পাঁচ রাউন্ড গুলি জব্দ করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ডাকাত সদস্যরা জানিয়েছেন, এর আগেও তারা ওই পোশাক কারখানায় ডাকাতির চেষ্টা করেছিলেন। কিন্ত কারখানায় সংস্কার কাজ চলার কারণে তা সম্ভব হয়নি। এই চক্রটি এর আগে বাড্ডার একটি পোশাক কারখানায় ডাকাতি করেছে।

মতামত...