,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

নির্বাচনে জয় হলেই বিজয় মিছিল: লোকারণ্য সংবর্ধনা‍য় নওফেল

nowfel3নাছির মীর, বিডিনিউজ রিভিউজঃ  আওয়ামী লীগের নব নির্বাচিত সাংগঠনিক সম্পাদক ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল ও উপ প্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিনকে সংবর্ধনা জানাতে লোকারণ্য হয়ে উঠেছিল রেল স্টেশন চত্বর।

বৃহস্পতিবার সকাল থেকে ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, শ্রমিক লীগ, হকার্স লীগসহ বিভিন্ন সংগঠনের ব্যানার, ফেস্টুন, ঢোল, বাদ্যসহ মিছিল নিয়ে সমবেত হয় বটতলী রেলস্টেশনে। মহানগর, উত্তর ও দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে সংবর্ধনার জবাবে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল বলেছেন, ২০১৯ সালের নির্বাচনে নৌকার বিজয় ছিনিয়ে আনতে পারলে, বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনাকে আবার প্রধানমন্ত্রী বানাতে পারলে তবেই বিজয় মিছিল করবো। তার আগে নয়। দায়িত্ব পালনই বড়ো কথা। দলকে আবারো ক্ষমতায় নিতে হলে আমাদের সবাইকে যার যার দায়িত্ব পালন করতে হবে।

উপ প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী আমাদেরকে পদ দিয়েছেন কাজ করার জন্য। জীবনের শেষ রক্তবিন্দু দিয়ে হলেও শেখ হাসিনার যে সংগ্রাম-আন্দোলন তা সফল করবো। আমরা আরামকে হারাম করে কাজ করে যাবো। আমাদের লক্ষ্য চট্টগ্রামের জন্য কাজ করা। বাংলাদেশের মানুষের জন্য কাজ করা। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে নগরীর বট তলী পুরাতন রেলস্টেশনে সংর্বধনা জানাতে আসা নেতা-কর্মীদের উদ্দ্যেশে ট্রাকমঞ্চে দাঁড়িয়ে সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল ও আমিনুল ইসলাম এ সব কথা বলেন।

আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্ব পাওয়ার পর ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল ও উপ প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আমিনুল ইসলাম গতকাল বৃহস্পতিবার চট্টগ্রাম আসলে পুরাতন রেল ষ্টেশন চত্বরে তাদের সংবর্ধনা দেয়া হয়। ঢাকা থেকে সোনার বাংলা ট্রেনে করে বেলা পৌনে ১২টায় চট্টগ্রাম পৌঁছান ব্যারিস্টার নওফেল ও আমিনুল ইসলাম। রেল স্টেশন চত্বরে একটি ট্রাককে মঞ্চ বানিয়ে সেখানে এই দুই নেতাকে সংবর্ধনা দেওয়া হয়।

নওফেল ও আমিনুল ইসলামকে স্বাগত জানাতে মহানগর আওয়ামী লীগের পাশাপাশি দক্ষিণ ও উত্তর জেলা আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের হাজার হাজার নেতাকর্মী মিছিল নিয়ে রেল স্টেশন চত্বরে জড়ো হন। সকাল ১০টা থেকেই পুরাতন রেল স্টেশন মাঠে নেতাকর্মীরা জড়ো হতে থাকে।

ছেলের সংবর্ধনা অনুষ্ঠান এক নজরে দেখার জন্য গেলেও গাড়ি থেকে নামেননি নগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক মেয়র এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরী। সভা শেষ হওয়া পর্যন্ত পাশের রাচ্চায় গাড়িতেই বসেছিলেন এই প্রবীন নেতা। সভা শেষ হওয়ার আগ মুর্হূতে চলে যান তিনি।

দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান ও মহানগর আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক শফিকুল ইসলাম ফারুক ও আইন সম্পাদক এডভোকেট ইফতেখার সাইমুল চৌধুরীর সঞ্চালনায় শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন মহানগর আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি নঈম উদ্দিন চৌধুরী, খোরশেদ আলম সুজন, আলতাফ হোসেন চৌধুরী বাচ্চু, দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি মোতাহেরুল ইসলাম চৌধুরী, দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান, উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ, মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক্ব বদিউল আলম, এম এ রশিদ, উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও মীরসরাই উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান মো: গিয়াস উদ্দিন, ব্যারিস্টার নওফেলের মা-মহানগর মহিলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী হাসিনা মহিউদ্দিন। সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলকে দোয়া করতে উপস্থিত হন তার স্কুল সান শাইন গ্রামার স্কুলের অধ্যক্ষ সাফিয়া রহমান। এছাড়াও রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি চট্টগ্রামের সভাপতি ডা: শেখ শফিউল আজম, মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নোমান আল মাহমুদ, শফিক আদনান, দক্ষিণ জেলার সাংগঠনিক সম্পাদক প্রদীপ কুমার দাশ, মহানগর আওয়ামী লীগের সম্পাদকমন্ডলীর সদস্য চৌধুরী হাসান মাহমুদ শমসের, চন্দন ধর, মশিউর রহমান চৌধুরী, হাজী মো: হোসেন, হাজী জহুর আহমদ, মানস রক্ষিত, দেবাশীষ গুহ বুলবুল, আবু তাহের, আবদুল আহাদ, দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের শ্রম সম্পাদক মো: খোরশেদ আলম, হাজী শহীদুল আলম, জহরলাল হাজারী, সিটি কর্পোরেশনের কাউন্সিলর হাসান মুরাদ বিপ্লব, কাউন্সিলর নিলু নাগ, কাউন্সিলর কফিল উদ্দিন খান, রোটারিয়ান হাজী মোঃ ইলিয়াছ, মহানগর শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক কাজী মাহবুবুল হক চৌধুরী এটলী, মহানগর যুবলীগের আহ্বায়ক মহিউদ্দিন বাচ্চু, কেন্দ্রীয় যুবলীগ নেতা হেলাল আকবর চৌধুরী বাবর, মহানগর যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক দেলোয়ার খোকা, আবদুল্লাহ আল মামুন, নগর ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি এমআর আজিম, নগর ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মো. সালাউদ্দিন, নগর যুবলীগের সদস্য ওয়াসিম উদ্দিন, ওমর গনি এমইএস কলেজ ছাত্র সংসদের জিএস আরশাদুল আলম বাচ্চু, নগর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নুরুল আজিম রণি সহ মহানগর ও জেলার আওতাধীন থানা, ওয়ার্ড এবং অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের ব্যানার সহ মিছিল নিয়ে বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

সংবর্ধনার মঞ্চে ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল বলেন, আমি রাজনৈতিক পরিবারের সন্তান। প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা আমার উপর যে গুরুদায়িত্ব অর্পণ করেছেন আমি সে দায়িত্ব পালনে যথাযথ ভূমিকা পালন করার দৃঢ় অঙ্গীকার ব্যক্ত করছি। আমি চট্টগ্রামের শীর্ষস্থানীয় জেলার নেতৃবৃন্দ ও বিপ্লবতীর্থ চট্টগ্রামবাসীর দোয়া, ভালবাসা ও সহযোগিতা চাই। তিনি তার বক্তব্যে বলেন, এটা কোন সংবর্ধনা নয়, তাৎক্ষণিকভাবে দলের নেতাকর্মীরা যে ভালবাসা দেখিয়েছে তাদের কাছে আমার কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

আমিনুল ইসলাম আমিন বলেন, আওয়ামী লীগের কমিটিতে চট্টগ্রামকে সন্মানিত করায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনাকে কৃতজ্ঞতা জানাই। ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান নওফেল, হাছান মাহমুদ, ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়াকে স্থান দিয়েছেন এবারের কমিটিতে। নেতাগিরি করার জন্য আমাকে পদ দেননি।

সমাবেশ থেকে আগামী ১২ নভেম্বর বিকেলে লালদীঘির মাঠে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরসহ চট্টগ্রাম থেকে যারা কেন্দ্রে স্থান পেয়েছেন তাদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠান সফল করার আহ্বান জানানো হয়।
সংক্ষিপ্ত বক্তৃতা পর্ব শেষে নেতা-কর্মীবেষ্টিত ট্রাকমঞ্চটি চশমা হিলের উদ্দেশে যাত্রা শুরু করে।

সংবর্ধনার কারণে নগরীর নিউমার্কেট, জুবিলী রোড, কোতোয়ালি, স্টেশন রোড, বিআরটিসি, টাইগারপাস, কদমতলী এলাকায় যানজটের সৃষ্টি হয়।
রাত ৭টায় ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল শাহ আমানত শাহ (রঃ) মাজার জিয়ারত করেন। এসময় মোনাজাত পরিচালনা করেন শাহজাদা সৈয়দ মোহাম্মদ বেলায়েত উল্লাহ খান আল হাসানী। উপস্থিত ছিলেন, শাহজাদা সৈয়দ মোহাম্মদ হাবিব উল্লাহ খান মারুফ, মোঃ রাসেল মোঃ রাশেদ।

বাকলিয়া থানা আওয়ামী-যুবলীগ, ছাত্রলীগ : ব্যারিস্টার নওফেল সাংগঠনিক সম্পাদক, আমিনুল ইসলাম উপ-প্রচার সম্পাদক ও ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া আওয়ামী লীগের উপ-দপ্তর সম্পাদক মনোনীত হওয়ায় বাকলিয়া থানা আওয়ামী যুবলীগ, ছাত্রলীগ ও স্বেচ্ছাসেবক লীগের উদ্যোগে আনন্দ মিছিল ও সমাবেশ বাকলিয়া থানা যুবলীগ নেতা সাঈদ রহিমের সভাপতিত্বে ও নগর ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক কায়সার মাহমুদ রাজুর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন ওমর গণি এম.ই.এস. কলেজের এজিএস ও নগর ছাত্রলীগের সাবেক সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য আকবর আলী আকাশ। বিশেষ অতিথি ছিলেন ইফতেখার উদ্দিন বাবলু। সমাবেশে আরও উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সম্পাদক আবু সাঈদ সুমন, যুবলীগ নেতা ইব্রাহিম মোহাম্মদ সোহেল, সামিরুল কাদের চৌধুরী সজিব, মহানগর ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি একরামুল হক রাসেল, আবু মোহাম্মদ আরিফ, মঈনুল হাসান চৌধুরী শিমুল, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ ইলিয়াছ, বাকলিয়া থানা যুবলীগ নেতা আবু মোর্শেদ, আবু তারেক, মনিরাজ মনি, ১৮নং ওয়ার্ড যুবলীগ নেতা এস এম মমিনুল হক, খোরশেদ আলম বাবলু।

মতামত...