,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

পটিয়ায় বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ৭ নির্বাচিত ৪ প্রার্থী বাতিল

upeপটিয়া সংবাদদাতা, বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকমঃ পটিয়ার ইউপি পরিষদ নির্বাচনে মনোনয়ন বাচাইকালে দক্ষিণভূর্ষি ইউনিয়নে bnr ad 250x70 1বিএনপি প্রার্থী ও ইসলামি ফ্রন্ট প্রার্থীর সমর্থকারীরা তাদের কাছ থেকে জোরপূর্বক স্বাক্ষর আদায়ের অভিযোগে থানায় পৃথক জিডি দায়ের করায় দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল করা হয়। ওই ইউনিয়নে আর কোন চেয়ারম্যান প্রার্থী না থাকায় উপজেলা যুবলীগ সভাপতি ও আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী মোহাম্মদ সেলিম বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ও সাধারণ সদস্য পদে তিন জন ও সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদে তিন জন প্রাথমকিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন।

 মনোনয়র বাচাইকালে বিভিন্ন ত্রুটির কারণে সংরক্ষিত মহিলা ও সাধারণ সদস্য পদে আরো ৪ প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল করার কথা জানান  উপজেলা রিটার্নিং অফিসার সৈয়দ আবু ছাইদ ।

পটিয়া উপজেলার দক্ষিণভূর্ষি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান ও বিভিন্ন ইউনিয়নে সাধারণ সদস্য ও সংরক্ষিত মহিলা সদস্য আসনে অন্য কোন প্রার্থী না থাকায় বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিতরা হলেন- দক্ষিণভূর্ষি ইউনিয়নের আওয়ামী লীগ দলীয় প্রার্থী ও উপজেলা যুবলীগের সভাপতি মোহাম্মদ সেলিম। সাধারণ সদস্য পদে চরপাথরঘাটা ইউনিয়নের ৬ নং ওয়ার্ডে জাহাঙ্গীর আলম পাঠোয়ারী, শিকলবাহা ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডের সাধারণ সদস্য পদে মোহাম্মদ ইদ্রিস, ধলঘাট ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ডে মোহাম্মদ আবু ছায়েদ,কচুয়াই ইউনিয়নের সংরক্ষিত ২ নং আসনের (৪, ৫ও ৬) নং ওয়ার্ডের মহিলা সদস্য পদে সাজেদা বেগম, ভাটিখাইন ইউনিয়নের সংরক্ষিত ২ নং আসনের (৪, ৫ ও ৬) নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত মহিলা সদস্য নুরনাহার বেগম, কেলিশহর ইউনিয়নের সংরক্ষিত ৩ আসনের (৭,৮ ও ৯) নং ওয়ার্ডের আয়েশা বেগম।

 প্রার্থীতা বাতিলকৃতরা হলেন- উপজেলার দক্ষিণভূর্ষি ইউনিয়নের বিএনপি দলীয় চেয়ারম্যান প্রার্থী নুরুল আকতার ও একই ইউনিয়নের ইসলামী ফ্রন্টের চেয়ারম্যান প্রার্থী আবুল কালাম আজাদ, কচুয়াই ইউনিয়নের সংরক্ষিত ৩ আসনের (৭, ৮ ও ৯) মহিলা সদস্য প্রার্থী প্রতিমা রানী দাশ, আশিয়া ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ডের সাধারণ সদস্য হেলাল উদ্দিন, শিকলবাহা ইউনিয়নের ৩ নং ওয়ার্ডের সাধারণ সদস্য পদে ফুটবলার মুছা আদর্শ, হাঈদগাঁও ইউনিয়নের ২ নং ওয়ার্ডে সদস্য পদ প্রার্থী অনুপ মজুমদার,একই ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ডের শুভ তালুকদার ও একই ইউনিয়নের ৯ নং ওয়ার্ডে পদ প্রার্থী মোহাম্মদ সেলিম উদ্দিন।

জানা যায়, বৃহস্পতিবার ৪ মে  পটিয়া উপজেলার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের যাচাই বাচাইয়ের শেষ দিন ছিল। দক্ষিনভূর্ষি ইউনিয়নের বিএনপি ও ইসলামী ফ্রন্টের দলীয় দুই প্রার্থী তাদের সমর্থনকারী জোর করে তাদের কাছ থেকে সমর্থন আদায় করা হয়েছে বলে উল্লেখ করেন। পরে উভয় দলের প্রার্থীর সমর্থনকারীরা পটিয়া থানায় জিডি করলে দায়িত্বপ্রাপ্ত সহকারী রির্টানিং কর্মকর্তা ও উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মোহাম্মদ আনিসুজ্জমান উভয়ের মনোনয়ন বাতিল করেন। উপজেলার কচুয়াই ইউনিয়নের সংরক্ষিত ৩ নং আসনের মহিলা সদস্য প্রার্থী প্রতিমা রানী দাশ নিজ মনোনয়ন পত্রে নির্বাচন কমিশনারের বরাদ্দ দেয়া কোন প্রতীক পছন্দ না করে নিজের পছন্দের প্রজাপতি প্রতীক দাবি, জন্ম তারিখ অনুযায়ী তার বয়স ৪৪ বছর ১০ মাস হলেও ৩৭ বছর ৩ মাস ২০ দিন এবং ইউনিয়নের সংরক্ষিত ৩ আসনে নির্বাচনে অংশ নিলেও মনোনয়ন পত্রে উল্লেখ করেন ৭ নং আসন। এসব অভিযোগের ভিত্তিতে দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ও জেলা তথ্য কর্মকর্তা বিশ্বনাথ মজুমদার এই মনোনয়ন বাতিল করেন। এছাড়া হাইদগাও ২ নং ওয়ার্ডের সদস্য অনুপ মজুমদার ও একই ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ডের শুভ তালুকদার ঋণখেলাপী ও ৯ নং ওয়ার্ডের মোহাম্মদ সেলিম উদ্দিন উক্ত এলাকার ভোটার না হওয়ার অভিযোগে মনোনয়ন বাতিল করেন দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ও উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা আনিসুজ্জমান।

এ ব্যাপারে পটিয়া উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ছৈয়দ মোহাম্মদ আবু ছায়েদ জানান, ‘যাচাই বাছাইকালে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল হওয়ায় ও অন্য কোন প্রার্থী না থাকায় দক্ষিণভূর্ষি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান ও আরো কয়েকটি ইউনিয়নে সাধারণ সদস্য পদে তিন জন ও সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদে তিন জন প্রাথমকিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন।’ তবে যাদের মনোনয়ন বাতিল তারা ইচ্ছা করলে জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা নিকট আপিল করতে পারবে।’

 

মতামত...