,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

পটিয়া ইউপি নির্বাচনে আগাম সমীকরণ

a1পটিয়া সংবাদদাতা,বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকমঃ পটিয়া ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে উপজেলা সর্বত্র সম্ভাব্য চেয়ারম্যান ও সদস্য প্রার্থীদের লবিং- গ্রুপিং বেশ জমে উঠেছে। রাজনৈতিক দল এবং দলের বাইরেও চলছে প্রার্থী নিবার্চনে জোড় তৎপরতা। পটিয়া উপজেলার আশিয়া ও কুসুমপুরা ইউনিয়নে আওয়ামীলীগ ও বিএনপির প্রবীন নেতাদের পাশাপাশি মনোনয়ন পেতে তরুণ্যেরা দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছে। তারা দলীয় নেতাকর্মীদের  বাসা- বাড়িতে গিয়ে সমর্থন আদায়ের চেষ্টা  করেছে এবং দলীয় মনোনয়ন লাভে কেন্দ্রীয় নেতাদের সাথে লবিং চালিয়ে যাচ্ছে।

জানা যায়, দেশে  প্রথম বারের মতো দলীয় প্রতীকে নিবার্চন হওয়া আশিয়া ইউপি নির্বাচনে আওয়ামীলীগ থেকে বর্তমান চেয়ারম্যান ও উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের আহবায়ক এমএ হাশেম, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি ও ব্যবসায়ী গোলাম রহমান চৌধুরী মঞ্জু, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম আহবায়ক ও তরুণ আওয়ামীলীগ নেতা ইমরান উদ্দীন বশির, উপজেলা যুবলীগের সেক্রেটারী বেলাল উদ্দীন নাম শোনা যাচ্ছে। অন্যদিকে বিএনপি থেকে ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি ও সাবেক চেয়ারম্যান জাফর আহমদ, বিএনপি নেতা মোজাম্মেল হক, বিএনপি নেতা ছৈয়দ মনির আহমদ সেলিম, দক্ষিণ জেলা ছাত্রদলের যুগ্ম আহবায়ক বখতিয়ার উদ্দীন দলীয় মনোনয়ন চাইতে পারেন।
আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী ও বর্তমান চেয়ারম্যান এমএ হাশেম বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকমকে বলেন, দীর্ঘ সময় ধরে চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করে আসছি। বর্তমানে এমপি সামশুল হক চৌধুরীর সহযোগিতায় বিগত ৫ বছরে আশিয়া ইউনিয়নের বিভিন্ন রাস্তা, ঘাট, সেতুসহ বিভিন্ন উন্নয়ন কাজ করা হয়েছে। সাধারণ মানুষের সুখে-দুঃখে পাশে ছিলাম আগামীতেও থাকবো। ইতিপূর্বে আমার বড় ভাই মো. মুছা ও অত্র ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ছিলেন। আওয়ামী পরিবারের সন্তান হিসেবে দলীয় মনোনয়ন চাইবো। মনোনয়নের ব্যাপারে আমি আশাবাদী।
অপরদিকে মনোনয়ন প্রত্যাশী ইমরান উদ্দীন বশির বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকমকে  বলেন, ২০০৩ সালের পর থেকে আশিয়া ইউনিয়নের প্রতিটি ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে বিচরণ করেছি। ছাত্র রাজনীতির সাথে জড়িত থাকার সুবাধে বর্তমান ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাথে যুক্ত হয়ে বিভিন্ন সামাজিক ও দলীয় উন্নয়ন কর্মকান্ডে জড়িত আছি।
বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশী ও সাবেক চেয়ারম্যান জাফর আহমদ বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকমকে বলেন, সৃষ্টি থেকেই বিএনপির রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত। বর্তমানে ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি। চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালনের সময় আশিয়ার জনগণের যে কোন বিপদ আপদে পাশে ছিলাম। দলের দুঃসময়ে আমরাই দলের হাল ধরেছি। দলের ত্যাগী কর্মী হিসেবে দলীয় মনোনয়নের ব্যাপারে আমি আশাবাদী।
কুসুমপুরা ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান ও দক্ষিন জেলা বিএনপির যুগ্ম সাধারন সম্পাদক রেজাউল কবির নেছার নিজের দলীয় প্রার্থীতার ব্যাপারে একভাবে নিশ্চিত রয়েছেন। আ’লীগের দলীয় মনোয়ন পাওয়ার জন্য যারা লবিং চালিয়ে যাচ্ছে তাদের মধ্যে রয়েছেন, উপজেলা আ’লীগ নেতা মাহমুদুল হক, বর্তমান ইউনিয়ন আ’লীগ সভাপতি জাকারিয়া ডালিম, সাবেক কুসুমপুরা ইউনিয়ন আ’লীগের আহবায়ক নাছির উদ্দিন, জেলা বঙ্গবন্ধু শিশু কিশোর মেলার সাধারন সম্পাদক এডভোকেট এম হোসাইন রানা, তরুন আ’লীগ নেতা এম এজাজ চৌধুরী, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা তরুণ ব্যাবসায়ী ইব্রাহীম বাচ্চু।
কুসুমপুরা ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারমান বিএনপি নেতা রেজাউল কবির নেছার বলেন,‘বিগত সময়ে নির্বাচিত হওয়ার পর এলাকার উন্নয়নে সর্বাত্বক কাজ করে যাচ্ছি। এলাকায় চুরি ডাকাতি অসামাজিক কর্মকান্ডবন্ধসহ জনগনের জানমালের নিরাপত্তা নিশ্চিতকরনে ভূমিকা রেখেছি। আগামী ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন শান্তিপূর্ণভাবে অনুষ্ঠিত হলে তিনি তৃতীয় বারের মত পুনরায় নির্বাচিত হবেন। দল তাকেই মনোনয়ন দেবের বলে তিনি শতভাগ নিশ্চিত রয়েছে।’
উপজেলা আ’লীগ নেতা ও সম্ভ্যাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থী মাহমুদুল হক বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকমকে বলেন, আমি গত নির্বাচনে নির্দলীয়ভাবে নির্বাচন করলেও এবারে আমি নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করার জোর প্রস্তুতি নিচ্ছি। বর্তমান পটিয়া উন্নয়নের রূপকার সাংসদ সামশুল হক চৌধুরীর নেতৃত্বে আমি আওয়ামী লীগের রাজনীতি করে আসছি। তিনি গত ২ বছর ধরে আমাকে কুসুমপুরা ইউনিয়নের সকল উন্নয়ন কর্মকা-ের সম্পৃক্ত করেছেন। তৃণমূল নেতাকর্মীসহ দলীয় নেতাকর্মীরা মনোনয়ন দিলে নিবার্চন করব।
চট্টগ্রাম জেলা বঙ্গবন্ধু শিশু কিশোর মেলার সাধারন সম্পাদক এডভোকেট এম হোসাইন রানা বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকমকে জানান, ‘তিনি স্কুল জীবন থেকে ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত হয়। এবারের ইউপি নির্বাচনে আমি দলীয় মনোনয়ন চাইবো।

বি এন আর/০০১৬/০০৪/০০১/০০০৪৭০৭/পি

মতামত...