,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

পাকিস্তান ও তুরষ্ক ঔদ্যত্বপূর্ণ মন্তব্যের প্রতিবাদে চট্টগ্রাম কলেজ ছাত্রলীগ

aনিজস্ব প্রতিবেদক, বিডিনিউজ রিভিউজঃ যুদ্ধাপরাধী মীর কাশেম আলীসহ যুদ্ধাপরাধীদের বিচার ও বিচারের রায় কার্যকরের বিষয়ে পাকিস্তান ও তুরষ্ক সরকার বাংলাদেশের যুদ্ধাপরাধীর পক্ষে ঔদ্যত্বপূর্ণ মন্তব্যের প্রতিবাদে চট্টগ্রামছাত্র সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয় ।

চট্টগ্রাম কলেজ ক্যাম্পাসে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ চট্টগ্রাম কলেজ শাখার উদ্যোগে ৬ সেপ্টেম্বর  মঙ্গলবার বিকেলে  ছাত্র সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সংগঠনের সাবেক সাধারন সম্পাদক এস এম কামাল উদ্দিন এর সভাপতিত্বে ও নগর ছাত্রলীগের সদস্য ও কলেজ ছাত্রলীগ নেতা মোস্তাফা কামালের সঞ্চালনায় সমাবেশে একাত্মতা প্রকাশ করে বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম কলেজ রাষ্ট্র বিজ্ঞাণ বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মোহাম্মদ সানা উল্লাহ,এস এম ফিরোজ আহমদ, নগর ছাত্রলীগের সদস্য বোরহান উদ্দিন গিফারী, চট্টগ্রাম কলেজ ছাত্রলীগ নেতা আজিজুল হক, মোসলেম উদ্দিন, আকতার হোসেন নয়ন, আবু বক্কর, মোজাম্মেল হক সানি, আনন্দ মজুমদার, রহমত উল্লাহ রিফাত, নাসির উদ্দিন, ওহিদুল কাদের অহিদ, ইমরান, মো. শোয়েব, রোমান, পারভেজ, রিফাত, ফারুক, নাফিজ ইকবাল, নোমান প্রমূখ। ছাত্র সমাবেশে বক্তারা ঘৃণ্য মানবতা বিরোধী অপরাধীর পক্ষে পাকিস্তান ও তুরষ্কের এ বিবৃতিকে চরম অসভ্যতা উল্লেখ করে বলেন, পাকিস্তান ও তুরষ্কের এই বিবৃতি স্পষ্টভাবে বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপ এবং ভিয়েনা কনভেনশন লঙ্ঘন। তিনি বলেন,“আন্তর্জাতিক নীতি হচ্ছে কোন অবস্থাতেই অন্যদেশের অভ্যন্তরীণ বিষয় নিয়ে অন্য কোন দেশ কোন ধরণের মন্তব্য করবে না”। স্বাধীন-সার্বভৌমত্ব দেশ হিসেবে অপরাধীদের বিচারের আওতায় নিয়ে আসার অধিকার রয়েছে বাংলাদেশের। পাকিস্তান বাংলাদেশের আভ্যন্তরীণ বিচারের বিষয়ে আপত্তিকর বিবৃতি দিয়ে নিজদের নির্লজ্জ চরিত্র প্রকাশ করেছে। মেয়র আরো বলেন, পাকিস্তান সংঘাতে পরিপূর্ণ একটি দেশ, যেখানে গণতন্ত্র দূরের কথা সাধারণ মানুষের নিরাপত্তা নেই। তাদের পক্ষে কোন দেশের গণতন্ত্র, ন্যায় বিচার নিয়ে প্রশ্ন তোলার বিষয়টি হাস্যকর। বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক মানদন্ডে ন্যায় বিচারের প্রতিটি শর্ত মেনে আসামীদের আইনসম্মত অধিকার দিয়েই ’৭১ এর মানবতাবিরোধী অপরাধীদের বিচার করছে। এই বিচার ন্যায় বিচারের ইতিহাসে মাইলফলক হয়ে থাকবে। তিনি আরো বলেন, দেশের অন্যতম শীর্ষ যুদ্ধাপরাধী আলবদর কমান্ডার ও জামায়াতের অর্থ যোগানদাতা মীর কাশেমের ফাঁসি নিয়ে পাকিস্তানের প্রতিক্রিয়াকে ধৃষ্টতা ও ঔদ্ধত্যপূর্ণ আখ্যায়িত করে বলেছেন পাকিস্তানের এই ধরনের আচরণ বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে নগ্ন হস্তক্ষেপের সামিল। সমাবেশ শেষে পাকিস্তানী সহকারী হাই কমিশনার সামিনা মেহতাব ও পাকিস্তান ও তুরষ্কের জাতীয় পতাকা কুশপুত্তলিকা দাহ করা হয়।

মতামত...