,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

পাহাড়ে টিসিবি’র সুবিধা বঞ্চিত

আবদুল মান্নান, মানিকছড়ি(খাগড়াছড়ি) সংবাদদাতা, বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকমঃ চলতি রোজার মাসে সারা দেশের গ্রাহকেরা ট্রেডিং কর্পারেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি) এর খোলাবাজারে নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য সামগ্রী ক্রয়ের সুবিধা ভোগ করলে তা থেকে পুরোপুরি বঞ্চিত হয়েছে পাহাড়ের গ্রাহকেরা।
খোলা বাজারে স্বল্প দামের ক্রয়ের সেবা দূরে থাক, খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলার নয় উপজেলার মধ্যে তিন উপজেলায় ৪ জন টিসিবি’র ডিলারের নাম কাগজে-কলমে দেখা গেলেও বাস্তবে টিসিবি’র কার্যক্রমের দেখা মেলেনি।
এছাড়া জেলার বাকী ছয় উপজেলায় টিসিবির কোন ডিলার না থাকায় এবং তিন উপজেলায় ৪ টিসিবি ডিলারের কোন কার্যক্রম না থাকায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন প্রত্যন্ত পাহাড়ি এলাকার সাধারন গ্রাহকসহ সংশ্লিষ্ট সকলেই।
খাগড়াছড়ি জেলা প্রশাসন সুত্রে জানা যায়, খাগড়াছড়ি জেলার মানিকছড়ি উপজেলায় ২ জন, মাটিরাঙা ও দিঘীনালা ১ জন করে মোট ৪ জন সাধারণ ডিলার নিয়োগ করলেও জেলার বাকী ছয় উপজেলায় টিসিবি এ বছর কোন ডিলার নিয়োগ করেনি। নিয়োগকৃত ডিলারদের কোন কার্যক্রম না থাকায় টিসিবি’র সেবা বঞ্চিত হয়েছে পাহাড়ের গ্রাহকেরা। এ বিষয়ে জেলা প্রশাসন টিসিবি ও বাণিজ্য মন্ত্রনালয়ে একাধিক চিঠি লিখলেও কোন ফল পাওয়া যায়নি।
খাগড়াছড়ি সদরের শালবন এলাকার মো. আনোয়ার হোসেন বলেন তারা নিন্ম আয়ের লোকজন। টিসিবি’র সুবিধা পেলে হয়তো এই পবিত্র রমজান মাসটি আরো ভালো কাটাতে পারতো। মহালছড়ি উপজেলার মাইসছড়ি গুচ্ছগ্রামের বাসিন্দা মোঃ গিয়াস উদ্দিন বলেন গরীবদের জন্য নয় সরকারের সব সুবিধা বড় লোকদের জন্য।
খাগড়াছড়ি চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রিজ এর পরিচালক সুদর্শন দত্ত বলেন পাহাড়ের লোকজন এমনিতেই কম আয়ের মানুষ। আর এখানে টিসিবি ডিলার নিয়োগ না করায় এবং টিসিবির সেবা প্রদান না করায় টিসিবি’র লক্ষ্য-উদ্দেশ্য ব্যর্থ হয়েছে।
খাগড়াছড়ির জেলা প্রশাসক মুহাম্মদ ওয়াহিদুজ্জামান বলেন জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে এই বিষয়ে একাধিকবার লেখালেখি করা হয়েছে। কিন্তু কোন ফল হয়নি।

মতামত...