,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

প্রিমিয়ারের উপাচার্যের পদত্যাগ দাবি মেয়র পন্থী ছাত্রলীগ নেতাদের

a1নিজস্ব প্রতিবেদক,  বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকমঃ চট্টগ্রাম, প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র  সোহেল হত্যাকাণ্ডে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. অনুপম সেনের নিরব সম্মতি ছিল অভিযোগ তুলে তার পদত্যাগ দাবি করেছেন সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিনের অনুসারী ছাত্রলীগ নেতারা।

বুধবার দুপুর সাড়ে ১২টায় প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি জানান তারা।

নগর ছাত্রলীগের আওতাধীন কলেজসমূহের ব্যানারে এই সংবাদ সম্মেলন করা হলেও সেখানে ছিলেন না নগর ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক।  সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিনের অনুসারী হিসেবে পরিচিত।

সংবাদ সম্মেলনে উপাচার্যের পদত্যাগের পাশাপাশি হত্যাকারীদের ৩দিনের মধ্যে গ্রেফতার করা না হলে আগামী ৩ এপ্রিল থেকে ৭ এপ্রিল পর্যন্ত নানা কর্মসূচি পালনের ঘোষণা দেওয়া হয়।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন নগর ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি মিথুন মল্লিক।

লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, ‘ সোহেলকে চিহ্নিত সন্ত্রাসীরা পরিকল্পিতভাবে হত্যা করে। এ হত্যাকাণ্ড পূর্ব পরিকল্পিত। এ হত্যাকাণ্ডে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের নিরব সম্মতি আছে বলে প্রতীয়মান হয়। কেননা সোহেল ইতিপূর্বে উপাচার্যকে তার ওপর হামলা হওয়ার সম্ভাবনার কথা অবগত করেছিলেন। চকবাজার থানায় কয়েকজনের নামে জিডি করেছিল সোহেল। কিন্তু একজন ছাত্রের জীবনের নিরাপত্তার জন্য তিনি কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ করেননি।’

তিনি আরও বলেন, ‘সুপ্রতিষ্ঠিত এ বিশ্ববিদ্যালয়ে কোনো প্রো-ভিসি, রেজিস্ট্রার, ট্রেজারার নেই। উপাচার্যের খেয়াল খুশি মোতাবেক এবং বিশ্ববিদ্যালয় গ্রাস করার জন্য যে চক্রটি নিজের সম্পত্তি বলে আদালতে মামলা করেছেন সে চক্রের সঙ্গে প্রতিনিয়ত বৈঠক ও ষড়যন্ত্রে নিয়োজিত থাকেন।’

লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, বর্তমান উপাচার্য সকলের শ্রদ্ধেয় হলেও বয়সের কারণে কর্মক্ষমতা হারিয়েছেন এবং একটি চক্রদ্বারা তিনি নিয়ন্ত্রিত হচ্ছেন।

তবে এসময় সাংবাদিকরা এই চক্রটি কারা জানতে চাইলে তারা জানাতে পারেননি। পাশাপাশি সোহেল কি এই চক্রের বিপরীত পক্ষের হয়ে রাজনীতি করতো এমন প্রশ্ন এড়িয়ে যান সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত নেতারা।

ছাত্রলীগের ঘোষিত কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে ৩ এপ্রিল সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ছাত্র সমাবেশ, ৫ এপ্রিল ছাত্র ধর্মঘট, ৬ এপ্রিল পুলিশ কমিশনারের কার্যালয়ে অবস্থান ধর্মঘট এবং ৭ এপ্রিল উপাচার্যের অফিস অবরোধ এবং তিনি পদত্যাগ না করা পর্যন্ত অবস্থান।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সহ সম্পাদক আবদুল্লাহ আল মামুন, ইয়াছিন আরাফাত, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম সম্পাদক নুর মোহাম্মদ নাজমুল, নগর ছাত্রলীগের সহ সভাপতি রেজওয়ান রণি, যুগ্ম সম্পাদক মাঈনুর রহমান মঈন প্রমুখ।

বি এন আর/০০১৬/০০৩/০০৩০/০০৩৬৭১ /এন

মতামত...