,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

এশিয়াকাপে ফাইনালের মিশন আজ টাইগারদের

aক্রীড়া প্রতিবেদক,বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকমঃ ঢাকা, আজ পাকিস্তানকে হারাতে পারলেই  প্রথমবারের মতো  এশিয়া কাপের ফাইনালে খেলবে স্বাগতিক শিবির।

এশিয়া কাপে টাইগাররা প্রথম ম্যাচেই ভারতের কাছেফারলেও  দ্বিতীয় ম্যাচেই সংযুক্ত আরব আমিরাতের বিরুদ্ধে দাপুটে জয় পেয়ে ফিরে এসেছিল জয়ের ধারায়। সে ধারায় তৃতীয় ম্যাচে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন শ্রীলংকাকে হারিয়ে টাইগারদের নতুন ইতিহাস রচনা করে টাইগাররা । স্বপ্ন এখন এশিয়া কাপের ফাইনালর। আজ বুধবার পাকিস্তানকে হারাতে পারলেই  প্রথমবারের মতো  এশিয়া কাপের ফাইনালে খেলবে স্বাগতিক শিবির।কেননা গতকালের ম্যাচে ভারত হারিয়ে দিয়েছে শ্রীলঙ্কাকে। তাই বলতে বাধা নেই আজ পাকিস্তানকে হারাতে পারলেই ফাইনাল নিশ্চিত হবে টাইগারদের। এমন সুযোগ হাতছাড়া করতে চান না বাংলাদেশ অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা।

আজ বাংলাদেশ দল নিজেদের প্রথম পর্বের শেষ ম্যাচ খেলবে পাকিস্তানের বিপক্ষে। এ ম্যাচকে সামনে রেখে মঙ্গলবার সারা দিন  মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামের ইনডোর এবং একাডেমী ভবন মাঠে ঘাম ঝড়িয়েছে সাকিব-তামিমরা। বাংলাদেশ দলের অনুশীলনের আগে সংবাদ মাধ্যমের মুখোমুখি হন স্বাগতিক অধিনায়ক মাশরাফি। প্রথম ম্যাচে ভারতের কাছে হারলেও পরপর দুই ম্যাচ জিতে ছন্দে ফিরেছে বাংলাদেশ। তিন খেলায় চার পয়েন্ট নিয়ে পয়েন্ট তালিকার দ্বিতীয় স্থানে টাইগাররা। পাকিস্তানের সঙ্গে জয় পেলে ছয় পয়েন্ট নিয়ে ফাইনালে খেলার সম্ভাবনা দারুণ উজ্জ্বল হবে বাংলাদেশের। দুই ম্যাচ জেতার পর বাংলাদেশের সামনে এবার ফাইনালের হাতছানি। এ প্রসঙ্গে মাশরাফি বলেন, ‘আমাদের সামনে আসলেই ফাইনাল খেলার খুব ভালো সুযোগ আছে। সর্বশেষ দুটি ম্যাচ যেভাবে খেলেছি, সেভাবে খেলতে পারলে অবশ্যই সুযোগ কাজে লাগানো যাবে। কিছু ভুলও অবশ্য ছিলো। কিন্তু আমরা প্রয়োজনের সময় দরকারি কাজগুলো ভালোভাবে করতে পেরেছি। সেই কারণেই আমরা ম্যাচ দুটি জিততে পেরেছি।’ বাংলাদেশের ফাইনালে খেলার-সম্ভাবনা প্রসঙ্গে স্বাগতিক অধিনায়ক আরো বলেন, সম্ভাবনার কথা বলবো যে, প্রতিটি জায়গায়ই সুযোগ আছে। কালকে (বুধবার) একটা নতুন ম্যাচ। যারা জিতবে তাদেরই ফাইনাল খেলার সুযোগ বেড়ে যাবে। সুতরাং এখানে আমাদের প্রতিটি জায়গায়ই সুযোগ আছে। প্রতিপক্ষেরও সুযোগ আছে। তারা একবার টি-২০ চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল। তাদের অনেক খেলোয়াড় বিভিন্ন জায়গায় টি-২০ খেলে থাকে। আমরাও কিন্তু টি-২০তে নতুনভাবে শুরু করেছি। অনেক কিছু চেষ্টা করেছি অনুশীলনে। সেগুলো নিয়ে আমরা এগিয়ে যাচ্ছি। আমরা যদি ওদের দিকে না তাকিয়ে আমাদের পরিকল্পনাগুলো ঠিকঠাক প্রয়োগ করি তাহলে আমার মনে হয় আমাদেরও ভালো সুযোগই আছে।

ওয়ানডে ফরম্যাটে বাংলাদেশ দল গেল দেড় বছর ধরে ভালোই পারফর্ম করছে। কিন্তু সে তুলনায় টি-২০তে এখনো গোছানো দলে পরিণত হতে পারেনি মাশরাফি বাহিনী। তবে এশিয়া কাপ থেকে টি-২০তে দলটা বদলে যাচ্ছে বলেই মনে করছেন কেউ-কেউ। বিশেষ করে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে জেতায় একটু বেশি অনুপ্রাণিত হয়েই কি পাকিস্তানের বিপক্ষে মাঠে নামবে স্বাগতিকরা? এ প্রসঙ্গে মাশরাফি বলেন, জয়-পরাজয় দিয়েই হয়তো সব সময় অনেক কিছু বিচার-বিশ্লেষণ করা হয়। সবাই জয়ের জন্যই খেলে। জিততে পারলে আত্মবিশ্বাসও বাড়ে- এটাই স্বাভাবিক। একটা দল যখন একটা বাজে পরিস্থিতি থেকে নতুন একটা সাফল্যের পথে যায়, তখন কিন্তু একটু একটু করেই উন্নতির দিকে তাকাতে হয়। রাতারাতি কিছু হয় না। আমরা শ্রীলঙ্কার সঙ্গে জিতেছি, এই জন্য অনেকে অনেক কিছু ভাবছে। আমার কাছে মনে হয় না সে রকম। ভারতের বিপক্ষেও আমরা কিন্তু সঠিক পথেই ছিলাম। কিন্তু দুঃখজনকভাবে একটা পর্যায়ে গিয়ে আমরা পারিনি। এটাই কিন্তু ব্যাপার। শ্রীলংকাকে হারানো প্রসঙ্গে সেদিন বেশ কিছু কৌশল নিয়েছিল স্বাগতিকরা। বিশেষ করে লংকান অধিনায়ক ম্যাথুসকে আটকানোর কৌশলটা সফল হয়েছিল। এ বিষয়ে মাশরাফি বলেন, শ্রীলঙ্কার ম্যাচের দিকে যদি আপনারা দেখেন- অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুস কিন্তু ওই পরিস্থিতি থেকে ম্যাচ বের করে নেয়ার জন্য যথেষ্ট কার্যকর ছিল। তার রেকর্ডও কিন্তু তাই বলছিল। তবে ওই পরিস্থিতিতে আমরা মাথা ঠাণ্ডা রেখে খেলেছি। সুতরাং এক বা দুই দিনেই কিছু হবে না। জেতা গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু একটা দল যখন উন্নতির পথে থাকে, তখন ওই গ্রাফটাই দেখা উচিত। তাই আমরা ওই দিকটাই ফোকাস করছি।

 

 

বি এন আর/০০১৬০০৩০০২/০০০৩২১ /এস

মতামত...