,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

বঙ্গবন্ধুর খুনীদের বেহেস্ত কামনা করে মোনাজাত করায় মাদ্রাসা অধ্যক্ষ গ্রেপ্তার

টাঙ্গাইল সংবাদ দাতা, বিডিনিউজ রিভিউজ.কম::বিজয় দিবসে একাত্তরের শহীদদের রুহের মাগফেরাত কামনা অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধুর খুনীদের বেহেস্ত নসিব কামনা করে মোনাজাত করায় এক মাদ্রাসা অধ্যক্ষকে আটক করেছে পুলিশ। আটককৃত অধ্যক্ষের নাম ড. ফায়জুল আমীন সরকার। তিনি গোপালপুর দারুল উলুম কামিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ।

 আজ শনিবার (১৬ ডিসেম্বর) টাঙ্গাইলের গোপালপুরে মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের রুহের মাগফেরাত কামনা অনুষ্ঠানে এ ঘটনা ঘটেছে।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, সকালে গোপালপুর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কার্যালয়ে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুস্পমাল্য অর্পন ও মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের রুহের মাগফেরাত কামনা করে দোয়ার আয়োজন করে। উপজেলা প্রশাসন আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে মোনাজাত পরিচালনা করেন অধ্যক্ষ ড. ফায়জুল আমীন সরকার। দোয়া অনুষ্ঠানে ফায়জুল আমীন সরকার দোয়া পরিচালনার এক পর্যায়ে বলেন, “হে আল্লাহ তুমি পঁচাত্তরে বঙ্গবন্ধু হত্যাকারীদের বেহেস্ত নসিব কর।”, “হে আল্লাহ তুমি বঙ্গবন্ধু হত্যাকারী যাদের ফাঁসি হয়েছে তাদেরকে বেহেস্ত নসিব কর।” দোয়া অনুষ্ঠানে তার এ ধরনের বক্তব্যে উপস্থিত সকলেই হতবাক হয়ে যান! এ সময় সকলের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দিলে উপস্থিত নেতৃবৃন্দ সকলকে শান্ত করেন।

 উপজেলা চেয়ারম্যান ইউনুস ইসলাম তালুকদার, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা দিলরুবা শারমীন, থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হাসান আল মামুন, ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল লতিফ, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মরিয়ম আক্তার, পৌরসভার মেয়র রকিবুল হক, জেলা পরিষদ সদস্য মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল কাদের তালুকদার, একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির টাঙ্গাইল জেলা শাখার আহবায়ক এডভোকেট কেএম আব্দুস সালাম, সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আব্দুস সোবহানসহ আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মী, সকল সরকারি কর্মকর্তা এবং স্থানীয় সাংবাদিকরা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

গোপালপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাসান আল মামুন জানান, এমন ঘটনাটি সত্যিই হতবাক হওয়ার মতো। এ ঘটনার পরপরই তাকে আটক করা হয়েছে। তার নিজ জেলা কুমিল্লায় খোঁজখবর নেয়া হচ্ছে। তার বিরুদ্ধে মামলার প্রস্তুতি চলছে।

গোপালপুর উপজেলা চেয়ারম্যান ইউনুস ইসলাম তালুকদার জানান, ফায়জুল আমীন সরকারের মতো মুক্তিযুদ্ধ বিরোধী মানুষ, যারা জামায়াত-শিবিরের সঙ্গে যুক্ত ছিল তাদের মুখ থেকে এমন কথা বের হওয়া অস্বাভাবিক কিছু নয়। তিনি তার শাস্তি দাবি করেন।

গোপালপুর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার এবং গোপালপুর কামিল মাদ্রাসার পরিচালনা কমিটির সভাপতি আব্দুস সোবহান জানান, মুখ ফসকে হয়তো তিনি একথা বলেছেন। তবে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

অভিযুক্ত ফায়জুল আমীন সরকার দুপুরে গোপালপুর থানায় সাংবাদিকদের জানান, ভুলবশত তার মুখ থেকে এ কথা বের হয়ে গেছে।

মতামত...