,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষন স্বাধীনতার দিক নির্দেশনা: চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার রুহুল আমিন

বিশেষ সংবাদদাতা, বিডিনিউজ রিভিউজ.কম:: মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলার বিজয় মঞ্চের স্মৃতিচারণ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার রুহুল আমিন বলেছেন, বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষন স্বাধীনতার দিক নির্দেশনা। কে স্বাধীনতা ঘোষণা করল সেটা বিবেচ্য বিষয় নয়। আমি একজন ছাত্রনেতা হিসেবে এটুকু দায়িত্বের সাথে বুঝি একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধ দুই সামরিক বাহিনীর মধ্যে যুদ্ধ নয় এটা ছিল বাঙালি জাতিস্বত্তার অস্তিত্ব রক্ষার লড়াই। সেই সময় বাঙালিকে ঐক্য করা কঠিন ছিল কিন্তু বঙ্গবন্ধু তা সফলভাবে সম্পন্ন করেছেন।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বীর মুক্তিযোদ্ধা চিত্রনায়ক ফারুক বলেছেন, বঙ্গবন্ধু বাঙালি জাতিস্বত্তার প্রাণের স্পন্দন। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর বাঙালি জাতির ইতিহাসের উল্টো যাত্রা ঘুরেছিল। ১৯৮১ সালে বঙ্গবন্ধু তনয়া শেখ হাসিনা দেশে ফিরে এসে মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের শক্তিকে জাগ্রত করেছেন। আমাদেরকে মনে রাখতে হবে একাত্তরের পরাজিত শক্তির বীজ এখনো অঙ্কুরিত হচ্ছে। তারা আমাদের আশেপাশে আছে তাদেরকে নিশ্চিহ্ন করতে না পারলে স্বাধীনতা নিরাপদ নয়। আরো মনে রাখতে হবে একটি জাতির মুক্তিযুদ্ধ কখনো ইতি ঘটে না। তার ধারাবাহিকতা রক্ষা করতে না পারলে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ধারণ করা সম্ভব হবে না।

মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলা পরিষদের যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা এডভোকেট শফিউল বশর ভান্ডারীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত স্মৃতিচারণ সভায় বিজয় মঞ্চে বিশেষ অতিথি হিসেবে আরো উপস্থিত ছিলেন বার কাউন্সিলর সদস্য এড. ইব্রাহীম হোসেন বাবুল, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক সমাজবিজ্ঞান অনুষদের ডিন ড. জ্যোতি প্রকাশ দত্ত ও আলোচক ছিলেন ফজলুল হক মিলন।

সভা শেষে বিজয় মঞ্চের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে বিপুল পাল ও পরিতোষ দাশের পরিচালনায় দলীয় নৃত্য পরিবেশন করেন চারুকা নৃত্যকলা একাডেমী। দলীয় বৃন্দ আবৃত্তি পরিবেশন করেন ত্রিতরঙ্গ আবৃত্তি দল। এছাড়া একক সঙ্গীত পরিবেশন করেন ক্লোজ আপ তারকা রন্টি দাশ ও রাশেদ। আগামীকাল বিজয় মঞ্চে সঙ্গীত পরিবেশন করবেন রন্টি দাশ ও রাশেদ।

মতামত...