,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

বাঁশখালীতে ফের আপত্তিকর প্রশ্ন, এলাকায় তোলপাড়! স্কুলের পরীক্ষা স্থগীত

আটক ২ শিক্ষককে ৫৪ ধারায় চালান

quaissionশাহ মুহাম্মদ শফিউল্লাহ, বাঁশখালী (চট্টগ্রাম) সংবাদদাতা,বিডিনিউজ রিভিউজঃ চট্টগ্রামের বাঁশখালীতে সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান লেয়াকত আলীকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সাথে তুলনার রেশ কাটতে না কাটতেই আবারো আপত্তিজনক ও সাম্প্রদায়িক উস্কানীমূলক প্রশ্নপত্র ছাপানো হয়েছে।

শনিবার ২৩ জুলাই আবারো কয়লা বিদ্যুৎ প্রকল্প এবং মিয়ানমারের মুসলিম রোহিঙ্গা শরণার্থীদের নিয়ে আপত্তিকর এই প্রশ্ন পরীক্ষার্থীদের মাঝে বিলি করা হয়। তবে এই নিয়ে শিক্ষার্থী ও শিক্ষকদের মাঝে ব্যাপক আলোচনা সমালোচনার পর ওই প্রশ্নপত্র ফিরিয়ে নিয়ে পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে। এ ঘটনায় বাঁশখালীসহ দক্ষিণ চট্টগ্রামে আবারো তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে।
জানা গেছে, বাঁশখালীসহ দক্ষিণ চট্টগ্রামে নবম শ্রেণির ভূগোল ও পরিবেশ (সৃজনশীল) প্রশ্নপত্রে আপত্তিকর এই প্রশ্ন গুলো ছাপানো হয়েছে। শনিবার সকালে যথারীতি ওই পরীক্ষাটি অনুষ্ঠিত হলেও আকষ্মিক ভাবে শিক্ষকরা ২০ মিনিটের মধ্যেই শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে ওই প্রশ্নপত্র ফিরিয়ে নেয় । এরপর দ্রুত সময়ে উক্ত পরীক্ষা স্থগিত ঘোষণাও করে স্ব স্ব বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। এদিকে সপ্তাহ না পেরুতেই একই শ্রেণির ভিন্ন অধ্যায়ের পরীক্ষায় আপত্তিকর প্রশ্নপত্র ছাপানোকে কেন্দ্র করে শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও এলাকার সুশীল সমাজের প্রতিনিধিদের মাঝে তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। এ ঘটনায় পুরো উপজেলায় চলছে সমালোচনার ঝড়।
অন্যদিকে এর আগের ঘটনায় আটক শিক্ষক দুকুল বড়–য়া ও মাস্টার তাহেরুল ইসলামকে ৫৪ ধারায় চালান দিয়েছে বাঁশখালী থানা পুলিশ। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন পাওয়ার পরই তাদের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা দায়ের করা হবে বলে জানিয়েছে বাঁশখালী থানার ওসি আলমগীর হোসেন। গত বৃহস্পতিবার বাঁশখালী সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে তাদেরকে পুলিশ ৫৪ ধারা চালান দেখিয়ে হাজির করলে বিজ্ঞ আদালত আটক শিক্ষকদের জেল হাজতে প্রেরণ করেন।
বাঁশখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) হাবিবুল হাছান জানান, বিভ্রান্তিমূলক প্রশ্নপত্রে পরীক্ষা না নেয়ার জন্য সকল বিদ্যালয়কে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। আবারো এ ধরনের উদ্ভুট প্রশ্নপত্রের ঘটনাটি আমার উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করেছি। প্রশ্নপত্র তৈরীর সাথে জড়িত সকল শিক্ষককে আইনের আওতায় আনা হবে। তদন্ত চলছে।

কি আছে প্রশ্ন পত্রে?
বাঁশখালীসহ দক্ষিণ চট্টগ্রামের ৬টি উপজেলায় অনুষ্ঠিত নবম শ্রেণির ভূগোল ও পরিবেশ (সৃজনশীল) প্রশ্নে কয়লা বিদ্যুৎ প্রকল্প ও পার্শ্ববর্তী মায়ানমারের রোহিঙ্গা শরণার্থীদের নির্যাতনের বিষয়ে স্পর্শকাতর ও সাম্প্রদায়িক উস্কানিমূলক প্রশ্নপত্র ছাপানোর ঘটনায় শিক্ষার্থীদের মাঝে উৎকন্ঠার সৃষ্টি হয়েছে। উক্ত প্রশ্নপত্রে দেখা যায়, নবম শ্রেণির ভূগোল ও পরিবেশ (সৃজনশীল) প্রশ্নপত্রের ৩নং প্রশ্নে উল্লেখ করা হয়েছে চট্টগ্রাম জেলার বাঁশখালী থানার অন্তর্গত গন্ডামারা ইউনিয়নের সমুদ্র উপকূলীয় অঞ্চলে সাম্প্রতিককালে এস. আলম কোম্পানি কয়লা বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপনের পরিকল্পনা গ্রহণ করেছেন। জনরব উঠেছে যে, কয়লা বিদ্যুৎ স্থাপন করলে পরিবেশের বিপর্যয় ঘটবে। (ক) পরিবেশ কাকে বলে? (খ) প্রাকৃতিক ও সামাজিক পরিবেশের তুলনামূলক পার্থক্য দেখাও। (গ) কয়লা বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপনের কারণে আদৌ কি পরিবেশ বিনষ্ট হবে? তুমি কি মনে কর। (ঘ) পরিবেশ বিপর্যয়ের প্রধান প্রদান কারণ গুলো কী কী ব্যাখ্যা কর?। তাছাড়া ৫নং প্রশ্নে উল্লেখ করা হয়েছে সম্প্রতি প্রতিবেশি দেশ মায়ানার বৌদ্ধ সম্প্রদায় ও সংখ্যালঘু মুসলমানদের মধ্যে জাতিগত দাঙ্গা দেখা দেয়। ফলে নিজেদের জীবন রক্ষার্থে রোহিঙ্গা মুসলমানগণ কক্সবাজারের উখিয়াতে আশ্রয় নেয়। (ক) অভিবাসন কী? (খ) শরণার্থী বলতে কী বুঝায়? (গ) কক্সবাজারের উখিয়াতে রোহিঙ্গাদের আশ্রয় গ্রহণ কোন ধরনের অভিভাসন? ব্যাখ্যা কর। (ঘ) রোহিঙ্গাদের অভিবাসন ঐ অঞ্চলের সার্বিক পরিবেশের উপর বিরূপ প্রভাব ফেলবে বিশ্লেষন কর।

 

মতামত...