,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

বান্দরবানের লামায় যুবককে হত্যা করে মাকে অপহরণ

বান্দরবান সংবাদদাতা, বিডিনিউজ রিভিউজ.কম::বান্দরবানের লামা উপজেলায় এক যুবককে জবাই করে হত্যা করে মা হাজেরা বেগমকে অপহরণ করে নিয়েগেছে। নিহত যুবকের নাম নুর হোসেন (২৬)। বুধবার গভীর রাতে উপজেলার সরই ইউনিয়নের ফরিদ চেয়ারম্যান পাড়ায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত নুর হোসেন কক্সবাজার জেলার উখিয়া উপজেলার বাসিন্দা মৃত হামিদ হোসেনের ছেলে। তিনি স্থানীয় জসিম উদ্দিন নামের এক ব্যক্তির খামার বাড়িতে মা, স্ত্রী ও সন্তানকে নিয়ে চাষা হিসেবে ছিলেন। পুলিশ ময়না তদন্তের জন্য লাশ উদ্ধার করে বান্দরবান সদর মর্গে প্রেরণ করেছে।

এ রিপোর্ট লিখা পর্যন্ত  ঘটনার সঙ্গে জড়িত কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ।

সূত্র জানায়, দীর্ঘদিন ধরে নুর হোসেন তার মা হাজেরা বেগম, স্ত্রী নুর ফাতেমা ও একমাত্র সন্তান আবদুল খালেককে নিয়ে সরই ইউনিয়নের ফরিদ চেয়ারম্যান পাড়ার জসিম উদ্দিনের খামার বাড়িতে বসবাস করে আসছিলেন। একপর্যায়ে বুধবার দিবাগত রাত ২ টার দিকে দুর্বৃত্তরা ঘরে ঢুকে স্ত্রীকে বেধে রেখে নুর হোসেনকে কুপিয়ে হত্যা করে এবং যাওয়ার সময় নুর হোসেনের মা’কে তুলে নিয়ে যায়।

নিহত নুর হোসেনের স্ত্রী নুর ফাতেমা সাংবাদিকদের জানান, দুইদিন আগে তার স্বামীর ভাগনি জামাই মো. ইউছুপ ও ভাগিনা ইউছুপ তাদের বাড়িতে বেড়াতে আসেন। যাওয়ার সময় শাশুড়ি হাজেরা বেগমকে সঙ্গে নিতে চাইলে নুর হোসেন বাধা দেন। এতে তারা ক্ষিপ্ত হয়। একপর্যায়ে রাত ২টার দিকে দুটি সিএনজি যোগে ভাড়াটিয়া লোকজন নিয়ে পুনরায় খামার ঘরে হামলা করে তারা। এ সময় তারা নুর হোসেনকে দা দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে মাকে তুলে নিয়ে যায়। তিনি আরও জানান, আমার স্বামীরা চার ভাই। তাদের মধ্যে তিনজন মালয়েশিয়া ও অস্ট্রেলিয়া থাকেন। প্রবাসী ভাইদের নির্দেশেই ভাগিনা ও ভাগনি জামাই লোকজন নিয়ে এ হত্যাকান্ড ঘটিয়েছে বলে তার ধারণা।

একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র জানায়, দুটি সিএনজি যোগে কয়েকজন লোক ক্যায়াজুপাড়া হয়ে লোহাগাড়া যাওয়ার সময় বুধবার দিবাগত রাত আনুমানিক ৩টার দিকে টহল পুলিশ তাদেরকে আটকায়। পরে তাদেরকে অজ্ঞাত কারণে ছেড়ে দেয় পুলিশ।
নুর হোসেনকে জবাই করে হত্যার সত্যতা নিশ্চিত করে লামা থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আনোয়ার হোসেন বলেন, হত্যাকান্ডের ঘটনা তদন্তের পাশাপাশি জড়িতদের গ্রেপ্তারে পুলিশ তৎপর রয়েছে। বি এন আর, ১৩ অক্টোবর ২০১৭।

মতামত...