,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

বান্দরবানে অতিঝুঁকিপুর্ন ২৪ বেইলি সেতু

brige-vanggaরিমন পালিত, বান্দরবান প্রতিনিধি,বিডিনিউজ রিভিউজ.কম:  মেরামত বা পুননির্মাণ কাজ এখনও শুরু করা হয়নি বান্দরবান-রুমা সড়কের অতিঝূঁকিপুর্ণ ২৪টি বেইলি সেতুর। ৪৮ কিলোমিটারের মধ্যে প্রায় ৩০ কিলোমিটার সড়কপথও যানবাহন চলাচলের অনুযোগী হয়ে পড়েছে।

তবে ক্ষত-বিক্ষত সড়কপথের কোন কোন এলাকায় নিম্মমানের সামগ্রী দিয়ে ঘষা-মাঝা বা মেরামত কাজ চলছে।

শনিবার বিকেলে আবারো তৃতীয়বারের মত বিধস্ত হয়ে পড়েছে এ সড়কের রুমা উপজেলার অংশে কৈক্ষংঝিরির ওপর কাঠের পাতাটন দিয়ে নির্মিত বেইলি সেতুটি।

এর আগেও পর পর দু’বার একই সেতু বিধস্ত হয় এবং বেশক’দিন যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকে। শনিবার বিকেল থেকে ফের যানবাহন চলাচল অনির্দিষ্টকালের জন্যেই বন্ধ হয়ে গেছে উপজেলা সদরের সাথে বান্দরবান জেলা সদরের সেতুটি বিধস্ত হওয়ায়।

শনিবার দিনভর রুমা উপজেলা সদর এবং দুর্গম এলাকাসমূহ সরেজমিন সফরকালে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, সচেতন নাগরিক এবং সমাজ নেতাদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, জেলা সদর থেকে রুমা উপজেলা সদর পর্যন্ত ৪৮ কিলোমিটার দীর্ঘ সড়কপথে প্রতিদিনই ২ শতাধিক বাস, ট্রাক, জিপসহ বিভিন্ন যানবাহন চলাচল করে থাকে।

এ সড়কটি উপজেলাবাসীর যাতায়াতের একমাত্র প্রধান সড়ক ছাড়াও দেশ-বিদেশ থেকে ভ্রমণে আসা পর্যটকদের জন্যও খুবই গুরুত্বপুর্ণ। এ সড়কপথেই যেতে হয় পর্যটন কেন্দ্র বগালেক, তাজিংডং ও ক্যক্রাডং পর্বতমালায়। রিজুক ঝর্ণাও রুমা উপজেলায় অবস্থিত। জনগুরুত্বপুর্ণ হওয়া সত্বেও এ সড়কের ওপর নির্মিত প্রায় ৮০টি বেইলি-আধা-বেইলি সেতুর বেশির ভাগই কার্যত যানবাহন চলাচলের অনুুপযোগী হয়ে পড়েছে।

খোদ সড়ক বিভাগ এবং এ সড়কের মেরামতও পুন:নির্মাণ কাজে নিয়োজিত সেনাবাহিনীর নির্মাণ প্রকৌশল বিভাগের তথ্য মতে ২৪টি সেতুই অতিঝুঁকিপুর্ণ। এসব সেতুর মধ্যে প্রাথমিকভাবে ২৩টি সেতু ভেঙ্গে ফেলে পুনরায় আরসিসি সেতু নির্মাণের জন্য চাহিদাপত্রও পাঠানো হয়েছে উচ্চ মহলে। কিন্তু তহবিল বরাদ্দ না থাকার অজুহাত তুলে ভগ্নদশাগ্রস্ত সেই সেতুগুলোর মেরামত কিংবা পুনর্নিমাণের উদ্যোগ এখনও গ্রহণ করা হয়নি।

অতিঝূঁকিপূর্ণ সেতুগুলোর কমপক্ষে ২৪টি সেতুই যানবাহন ব্যবহারের অনুপযোগী এবং যে কোন সময় সেগুলো ভেঙ্গে পড়ে ব্যাপক জানমালের ক্ষয়ক্ষতির আশংকা করছেন যাত্রীরা।

গত মঙ্গলবার সকালে বান্দরবান-রুমা সড়কের কৈক্ষংঝিরি এলাকায় বিধস্ত সেতুর ওপর কাঠের টুকরো ফেলে বান্দরবানগামী একটি মালবাহী ট্রাক কোন মতে পারাপার করলেও বিকেলেই সেই সেতুটি অপর একটি ট্রাকসমেত ভেঙ্গে পড়ে।

বান্দরবানগামী মালবাহী ওই ট্রাকের চালক আলহাজ্ব মো.ফরিদ আহমদ এবং সহকারী এনামুল হক জানিয়েছেন, তারা বিধস্ত সেতুটির ওপর কাঠের টুকরো ফেলে জীবনের ঝুঁকি নিয়েই কোন মতে পারাপার করেছেন। এ সড়কের ফারুকমুন পাড়ায় ২টি, লাইমী পাড়ায় ২টি, খুমিঘাট এলাকায় একটি, কৈক্ষংঝিরি ও মুরংগু বাজার এলাকায় ৮টি বেইলি সেতুর বেহাল দশা ।

সেগুলোর পাতাটনের অংশসমূহ ভেঙ্গে পড়েছে। এসব সেতু ব্যবহার করতে গিয়ে প্রতিদিনই মোটর সাইকেলসহ ছোট ছোট যানবাহন নানামুখী দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছে বলে জনিয়েছেন স্থানীয়রা।

মতামত...