,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

বাবার স্বপ্ন বুকে নিয়ে ছুটছেন ক্রিকেটার তামিম

640ফুটবলার বাবার স্বপ্ন বুকে নিয়ে ছুটছেন ক্রিকেটার তামিম ইকবাল।সেই স্বপ্ন বাস্তাবায়নের জন্য উদ্যোগ নিয়েছেন টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান তামিম। বাবা ইকবাল খান স্বপ্ন দেখতেন একাডেমি গড়ার; টুর্নামেন্ট আয়োজনের। ‘নো টু ড্রাগ, ইয়েস টু ক্রিকেট’- এমন স্লোগানকে সামনে রেখেই শুরু করছেন ইকবাল মেমোরিয়াল ক্রিকেট টুর্নামেন্ট। আপাত আসরের ভেন্যু চট্টগ্রাম। স্থানীয় একাডেমিগুলো নিয়েই অনুষ্ঠিত হবে প্রথম আসর। অনূর্ধ্ব-১৩, অনূর্ধ্ব-১৫ ও অনূর্ধ্ব-১৮ ক্রিকেটারদের নিয়ে আগামী ফেব্রুয়ারিতে শুরু হতে পারে এই টুর্নামেন্টটি। বুধবার এমন তথ্যই জানিয়েছেন তামিম ইকবাল।

বাংলাদেশের ইতিহাসে নির্মাণ ক্রিকেটকেই মূল পথ ভাবছেন তামিম। বলেছেন, আমার পরিকল্পনা অনেকটা নির্মাণ ক্রিকেটের মতো। ওখান থেকে খেলে যারা নতুন পথ পেতো সেভাবেই সবকিছু করতে চাই। এটা মাত্র শুরু, পরিকল্পনা অনেক থাকবে।

তামিম ইকবালের বাবা ইকবাল খান ছিলেন নামী একজন ফুটবলার। নিজে খেলেছেন, আবার কোচ হিসেবে তার হাতেই গড়ে উঠেছেন অনেক নামী ফুটবলার। কিন্তু তিনি চাইতেন পরিবারের অন্যরা ক্রিকেটে মনোযোগ দিক। তার চাওয়া-পাওয়া পূর্ণ করেছেন ছোট ভাই আকরাম খান। পরের প্রজন্মে নাফিস ইকবাল ও তামিম ইকবাল।

আয়োজন সম্পর্কে তামিম বলেছেন, চট্টগ্রামের ক্রিকেটের উন্নতির জন্য আমি এই ধরনের টুর্নামেন্ট আয়োজন করতে চাচ্ছি। তবে অনেক ধরনের টুর্নামেন্টই হয় এবং হচ্ছে। তবে আমি চাচ্ছি, আমার এই টুর্নামেন্টের একটা মান থাকবে। যেমন বিপিএলে একটি মান আছে। সবাই জানে এখানে ভাল খেললে সামনে এগিয়ে যাওয়ার সুযোগ পাওয়া যাবে। ঠিক তেমনভাবেই আমি এই টুর্নামেন্টেও মান বাড়াতে চাচ্ছি।

আসরের ৩টি টুর্নামেন্টে ৩টি ভিন্ন ফরম্যাটে। অনূর্ধ্ব-১৩ দলের টুর্নামেন্টটি হবে ৩০ ওভারের। অনূর্ধ্ব-১৫ দলের টুর্নামেন্টটি হবে ৪০ ওভারের। আর অনূর্ধ্ব-১৮ দলের টুর্নামেন্টটি হবে ২ দিনের ম্যাচ। শুধু ফাইনাল ম্যাচটি হবে ৩ দিনের। তামিম বলেন, আমাদের ঘরোয়া টুর্নামেন্টে তরুণরা এই ধরনের ম্যাচ খুবই কম খেলার সুযোগ পায়। আশা করি এখান থেকে তারা অনেক ভাল কিছু শিখতে পারবে।

আগামী ২৫ জানুয়ারি সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে সব কিছু জানানো হবে। ইতিমধ্যে চট্টগ্রামের একাডেমিগুলোর সঙ্গে নিজেদের কথাবার্তা চূড়ান্ত করা হয়েছে।

নিজের দায়িত্ববোধ থেকেই এমন একটি উদ্যোগ নিচ্ছেন তামিম ইকবাল। বলেছেন, আমি আমার দায়িত্ববোধ থেকেই কিছু করতে চাই। আমি যেহেতু চট্টগ্রাম থেকে এসেছি, এই চট্টগ্রামের জন্য কিছু করা আমার দায়িত্ব। আমার আব্বাকে যারাই চিনেন তারা জানেন সে খেলার প্রতি কতটা অনুরাগী ছিলেন। আমি জাতীয় লিগে খেলার সময় চট্টগ্রামের ক্রিকেটারদের অভাব বুঝতে পারি। কিছু একটা করাই লাগতো চট্টগ্রামের ক্রিকেটকে এগিয়ে নেওয়ার জন্য।’

প্রথমবারের মতো চট্টগ্রামে আয়োজন করলেও এখানেই থেমে থাকতে চান না তামিম ইকবাল। সামনে বাংলাদেশের ক্রিকেট একাডেমিগুলো নিয়ে কাজ করতে চান তিনি। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, এটি শুধু প্রথম একটি ধাপ। আমার ইচ্ছে দ্বিতীয় কিংবা তৃতীয় বছর পুরো বাংলাদেশের একাডেমি নিয়ে এমন আয়োজন করতে চাই।

 

মতামত...