,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

বাশিস-বাকবিশিসের মানববন্ধন দাবি না মানলে শ্রেণিকক্ষে তালা

নিজস্ব প্রতিবেদক,চট্টগ্রাম,১৯996, জানুয়ারি (বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকম)::অষ্টম জাতীয় বেতন কাঠামো শর্তহীনভাবে কার্যকর করা না হলে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের মতো সর্বাত্মক ধর্মঘটের ঘোষণা দিয়েছেন এমপিওভুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক ও কর্মচারীরা। সোমবার চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সামনে পৃথকভাবে মানববন্ধন ও সমাবেশ করে বাংলাদেশ কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি (বাকবিশিস) ও বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি (বাশিস) চট্টগ্রাম মহানগর।  ১ জুলাই ২০১৫ থেকে বকেয়াসহ এমপিওভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারীদেরকে জানুয়ারি মাসের বেতনের সাথে নতুন পে-স্কেল কার্যকরের দাবিতে কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে অনুষ্ঠিত এই বিপুল পরিমাণ শিক্ষক ও কর্মচারী অংশ নেন। মানববন্ধন ও সমাবেশ শেষে জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর কাছে দাবি সম্বলিত একটি স্মারকলিপি প্রেরণ করা হয়।

বাকবিশিস চট্টগ্রাম জেলা কমিটির সভাপতি অধ্যক্ষ মোহাম্মদ রফিক উদ্দিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান বক্তা ছিলেন বাকবিশিস কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর। সভায় বক্তারা বলেন, নতুন বেতন স্কেলের প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী ১ জুলাই ২০১৫ থেকে সকল এমপিওভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারীকে বকেয়াসহ জানুয়ারি মাস থেকে বেতন ভাতা প্রদান করতে হবে।

তা না হলে এমপিওভুক্ত শিক্ষক কর্মচারীরা স্কুল-কলেজে অনির্দিষ্ট কালের ধর্মঘট আহ্বান করে শ্রেণিকক্ষে তালা ঝুলিয়ে রাজপথে নেমে আসতে বাধ্য হবে। এই ধরনের অনভিপ্রেত ঘটনার জন্য সম্পূর্ণ দায়-দায়িত্ব সরকারকে বহন করতে হবে। তাই প্রধানমন্ত্রীর নিকট বিশেষ অনুরোধ শিক্ষক-কর্মচারীদের আন্দোলনে ঠেলে না দিয়ে অনতিবিলম্বে নতুন পে-স্কেল কার্যকর করে শ্রেণিকক্ষে থাকার সুযোগ করে দেবেন। পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকসহ অপরাপর পেশাজীবীদের ন্যায্য দাবিসমূহ আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে মীমাংসা করে তাদেরকে সম্মানজনক পদে রাখার আহ্বান জানান।

বক্তারা বলেন, নতুন পে-স্কেল কার্যকরের সুবাদে কিছু অসাধু ব্যবসায়ী বাজারে অস্বাভাবিক দ্রব্যমূল্য বাড়িয়ে নিম্ন আয়ের মানুষদের সীমাহীন দুর্ভোগে ফেলেছে। তাই সরকারকে এ ব্যাপারে বাজার তদারকিরও আহ্বান জানান। সভায় বক্তব্য রাখেন বাকবিশিস বিভাগীয় কমিটির সভাপতি অধ্যাপক উত্তম চৌধুরী,কেন্দ্রীয় কমিটির অন্যতম সদস্য অধ্যাপক কানাই দাশ, বিভাগীয় সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ আবুল মনসুর মো: হাবিব, জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক তড়িৎ ভট্টাচার্য, মহানগর কমিটির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক অজিত দাশ,অধ্যাপক শ্যামল দাশ, উপাধ্যক্ষ দেবপ্রিয় বড়ুয়া অয়ন, উপাধ্যক্ষ বশির উদ্দিন কনক, অধ্যাপক ভবরঞ্জন বণিক, অধ্যাপক অসীম চক্রবর্তী, অধ্যাপিকা হামিদা বেগম, অধ্যক্ষ সুধীর চক্রবর্তী ও অধ্যাপক ভূপতি দাশ প্রমুখ।

বাশিস চট্টগ্রাম মহানগরী শাখার উদ্যোগে শর্তহীনভাবে জাতীয় বেতন স্কেল কার্যকর করার দাবিতে এক মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়। বাশিস চট্টগ্রাম মহানগর শাখার সভাপতি নুরুল হক ছিদ্দিকীর সভাপতিত্বে ও বাশিস চট্টগ্রাম মহানগরী শাখার সাধারণ সম্পাদক প্রদীপ কানুনগোর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন বাশিস চট্টগ্রাম অঞ্চলের সভাপতি সুনীল চক্রবর্তী,বাংলাদেশ কলেজ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি কেন্দ্রীয় সম্পাদক অধ্যক্ষ মো:মুহাম্মদ জাহাঙ্গীর, চট্টগ্রাম অঞ্চলের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ লকিতুল্লাহ, যুগ্ম সম্পাদক অঞ্চল চৌধুরী, চট্টগ্রাম উত্তর জেলা শাখার সভাপতি রঞ্জিত কুমার নাথ,শিক্ষক নেতা শান্তি রঞ্জন চক্রবর্তী, মনিকা সেন, মো: মহসীন, উত্তম কুমার দাশ,খুরশীদ রোকেয়া, বিচিত্রা চৌধুরী, বরুন চক্রবর্তী, আবদুল মালেক, মৃণাল কান্তি দাশ ও মো: ইয়াছিন প্রমুখ শিক্ষক নেতৃবৃন্দ।

শিক্ষকরা  বলেন, বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীগণ এযাবতকাল কোন রকম শর্ত ছাড়াই প্রজাতন্ত্রের সকল কর্মকর্তা কর্মচারীদের সাথে একযোগে এবং একই সময়ে জাতীয় বেতন স্কেল পেয়ে আসছেন কিন্তু এবারের অষ্টম জাতীয় স্কেল প্রদানের ক্ষেত্রে সরকার নানা তালবাহানা শুরু করেছে। শিক্ষক সমাজ এ সমস্যার সমাধান চায়। বক্তারা আরো বলেন, সরকারের শিক্ষাক্ষেত্রে বিভিন্নমুখী সফলতাকে ম্লান করার জন্য একটি মিমাংসিত বিষয়কে জটিল করে শিক্ষক কর্মচারীদের অকারণে আন্দোলনের দিকে ঠেলে দিয়ে শিক্ষাক্ষেত্রে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির অপপ্রয়াস চালাচ্ছেন। বক্তারা পূর্বের ন্যায় শর্তহীনভাবে ৮ম জাতীয় বেতন স্কেলে এমপিওভুক্ত শিক্ষক কর্মচারীদের অন্তর্ভুক্ত করা না হলে লাগাতার ধর্মঘটসহ কঠোর কর্মসূচির ঘোষণার হুমকি দেন।

 

মতামত...