,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

বিজিবিতে নারী সৈনিকরা সীমান্তে চোরাচালান প্রতিরোধে ভূমিকা রাখবে:মেজর জেনারেল হোসেন

মো. নাজিম উদ্দিন, দক্ষিণ চট্টগ্রাম,২৯ ডিসেম্বর,বিডিনিউজ রিভিউজ.কম:: বাংলাদেশের সীমান্ত এলাকায় চোরাচালানি কর্মকা-ে পুরুষের পাশাপাশি জড়িত রয়েছে বেশ কিছু নারী। সীমান্তে এসব নারীদের দেহ তল্লাশি করা বিজিবির পুুরুষ সদস্যদের পক্ষে কঠিন হয়ে যায়। তাই এই সুযোগে কৌশলে সীমান্তে চোরাচালানি কাজে নারী ব্যবহার বেড়েছে। চোরাকারবারিতে নারীদের দৌরাত্ম্য রুখতে বিজিবিতে নারী সৈনিক নিয়োগ আরও বাড়বে। এবার দ্বিতীয় দফায় বিজিবিতে ৯৩ জন নারী সৈনিক প্রশিক্ষণ নিয়েছে। গত ২৯ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় সাতকানিয়া বায়তুল ইজ্জত বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ এর ৮৯-তম ব্যাচ রিক্রুটদের সমাপনী কুচকাওয়াজে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিজিবি মহাপরিচালক মেজর জেনারেল আবুল হোসেন এ কথা বলেন। বিজিবি‘র একমাত্র প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠান বর্ডার গার্ড ট্রেনিং সেন্টার এন্ড স্কুলে অনুষ্ঠিত সমাপনী কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির সঙ্গে অভিবাদন মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন বায়তুল ইজ্জত বর্ডার গার্ড ট্রেনিং সেন্টার এন্ড স্কুলের কমান্ড্যান্ট ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এ কে এম সাইফুল ইসলাম। কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন বান্দরবান ৬৯ পাদাতিক ব্রিগেট কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মুহাম্মদ যুবায়ের সালেহীন, উত্তর-পশ্চিম রংপুরের রিজিয়ন কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শাহরীয়ার আহমেদ চৌধুরী,বান্দরবান বোমাং সার্কেলের রাজা প্রকৌশলী উচ প্রু চৌধুরী। তাছাড়া চট্টগ্রাম অঞ্চলের সামরিক ও বিজিবি উর্ধ্বতন কর্মকর্তা, বেসামরিক প্রশাসন ও পুলিশ কর্মকর্তা, জনপ্রতিনিধি, গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। কুচকাওয়াজে প্যারেড কমান্ডার ছিলেন মেজর মোহাম্মদ তানভীর আহমেদ নিজামী ও প্যারেড এ্যাডজুটেন্ট ছিলেন সহকারী পরিচালক মো. আলী আজগর সরদার।

প্রধান অতিথি আরও বলেন, বিজিবি একটি দক্ষ, চৌকষ ও এবং প্রশিক্ষিত বাহিনী। একটি বলিষ্ঠ ও দক্ষ বাহিনী গড়ে তোলার জন্য সবচেয়ে বেশী প্রযোজন কঠোর প্রশিক্ষন, সৎচরিত্র , মানসিক দৃঢতা, অধ্যাবসায়, শৃঙ্খলাবোধ এবং সঠিক নেতৃত্ব। বর্তমান সরকার বিজিবি’র সদস্যদেও জীবন মান উন্নয়নের প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। বিজিবি’র সদস্যদের ছেলে মেয়েরা যাতে সঠিকভাবে লেখাপড়া করতে পৃথকভাবে ছাত্র নিবাস ও ছাত্রী নিবাস নির্মানের কাজ চলছে। দেশের প্রায় সাড়ে ৫শ’ কিলো মিটার অরক্ষিত সীমান্ত এলাকা ছিল। বর্তমানে ভারত ও মায়ানমারের সাথে অরক্ষিত সীমান্তের ১১০ কি.মি. কমিয়ে আনা হয়েছে। ক্রমান্বয়ে অরক্ষিত সীমান্ত নিয়ন্ত্রনে আনা হবে। সকাল ৮ঘটিকা হতে পর্যায়ক্রমে মার্কারদের প্যারেডে যোগদান, বাদক দলের মাঠে প্রবেশ, রিক্রুটদের প্যারেড মাঠে প্রবেশ, জাতীয় ও বিজিবি পতাকাবাহী দলের প্রবেশ, প্রধান অতিথির আগমন ও প্যারেড পরিদর্শন, রিক্রুটদের শপথ গ্রহণ, পুরস্কার বিতরণ, প্রধান অতিথির ভাষণ, সংঘবদ্ধ কুচকাওয়াজ, বাদকদলের মার্চ প্রভৃতি আনুষ্ঠানিকতার মধ্য দিয়ে সকাল সাড়ে ১১ টায় অনুষ্ঠানমালা সমাপ্ত হয়। প্রধান অতিথি ৮৯তম রিক্রুট ব্যাচে মোট ৫০১ জন নবীন সৈনিকদের মধ্য হতে কুচকাওয়াজে সর্ববিষয়ে শ্রেষ্ঠ সিপাহী (জিডি) বদিয়ার আলম ও নারী সৈনিকদের মধ্যে শ্রেষ্ঠ সিপাহী (জিডি) স্মতি আক্তারকে পুরস্কার প্রদান করেন।

 

মতামত...