,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

বিজয় দিবসে শহীদদের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধাঃ জাতীয় স্মৃতিসৌধে জনতার ঢল

170নিজস্ব প্রতিনিধি,সাভার, ১৬, ডিসেম্বর (বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকম)::  মহান বিজয় দিবসে জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে সাভারে জাতীয় স্মৃতিসৌধে জনতার ঢল নেমেছে।

বুধবার ভোরে ৩১ বার তোপধ্বনির মধ্য দিয়ে শুরু হয় বিজয় দিবসের কর্মসূচি।

জাতির পক্ষ থেকে সকাল ৬টার দিকে সাভারে জাতীয় স্মৃতিসৌধে ফুল দিয়ে মুক্তিযুদ্ধের বীর শহীদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান প্রেসিডেন্ট আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তিন বাহিনীর একটি চৌকস দল এ সময় সালাম জানায়। শহীদদের স্মরণে বিউগলে বাজানো হয় করুণ সুর।

জাতির যে বীর সন্তানদের আত্মত্যাগে স্বাধীন বাংলাদেশের জন্ম, কিছুটা সময় নিরবে দাঁড়িয়ে একাত্তরের সেই শহীদদের স্মরণ করেন রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী।

এরপর জাতীয় সংসদের স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী, প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহা স্মৃতিসৌধে ফুল দেন।

আওয়ামী লীগের সভানেত্রী হিসাবে দলের নেতা-কর্মীদের নিয়ে পরে আবারো শ্রদ্ধা নিবেদন করেন শেখ হাসিনা।

জাতীয় পার্টির নেতাকর্মীদের নিয়ে বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদ, মন্ত্রিপরিষদের সদস্য, সংসদ সদস্য, বিচারপতি, তিন বাহিনীর প্রধান, মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণকারী ভারতীয় সশস্ত্রবাহিনীর সদস্য ও কূটনীতিকরাও শহীদ বেদিতে ফুল দিয়ে স্মরণ করেন একাত্তরের শহীদদের।

রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীসহ ভিআইপিদের শ্রদ্ধা নিবেদনের পর সর্বস্তরের মানুষের ঢল নামে জাতীয় স্মৃতিসৌধে।  বিভিন্ন এলাকা থেকে মানুষ ছুটে আসছেন বীর শহীদদের স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করতে।

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াও স্মৃতিসৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণ করবেন।

সকাল সাড়ে ৮টায় বিকল্পধারার প্রেসিডেন্ট একিউ এম বদরুদ্দোজা চৌধুরী নেতা-কর্মীদের নিয়ে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

এর আগে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, স্বাধীনতা মানে ভালো থাকবো, ভালো চলবো ও গণতন্ত্র। গণতন্ত্র ও স্বাধীনতা যেদিন একই সঙ্গে চলবে সেদিনই প্রকৃত বিজয়ের স্বাদ পাবো। আমরা স্বাধীনতা ও গণতন্ত্রকে একসঙ্গে দেখতে চাই। তবে সেদিন আর বেশি দূরে নয় স্বাধীনতা ও গণতন্ত্র একসঙ্গে চলবে। বর্তমানে দেশে অসম্পূর্ণ গণতন্ত্র বিরাজ করছে।

শ্রুদ্ধা নিবেদনের পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক বলেন, বর্তমান সরকারের নেতৃত্বে দেশ আজ মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় এগিয়ে যাচ্ছে। নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মাসেতু প্রকল্পের নির্মাণ কাজ প্রমাণ করে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। যুদ্ধাপরাধীদের বিচার নিয়ে পাকিস্তান যে মিথ্যাচার করেছে সেজন্য ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় তাদের সঙ্গে সব ধরনের সম্পর্ক ছিন্ন করেছে।

সেক্টর কমান্ডার্স ফোরামের ভাইস চেয়ারম্যান আবু ওসমান চৌধুরী শ্রদ্ধা জানাতে এসে বলেন, পাকিস্তান আন্তর্জাতিকভাবে মিথ্যাচার করছে। এই মিথ্যাচারের জন্য শুধু প্রতিবাদ করলেই হবে না, তাদের সঙ্গে শিক্ষা, ব্যবসা বাণিজ্য ও সাংস্কৃতি সম্পর্কসহ সব ধরনের সম্পর্ক ছিন্ন করতে হবে।

ইতোমধ্যেই স্মৃতিসৌধে শ্রদ্ধা নিবেদন করেছে জাকের পার্টি, ডক্টরস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ, জাতীয়তাবাদী যুবদল, বাংলাদেশ লোক-প্রশাসন প্রশিক্ষণ কেন্দ্র (বিপিএটিসি), জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়, পক্ষাঘাতগ্রস্তদের পুনর্বাসন কেন্দ্র (সিআরপি), শ্রমিক লীগ, বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়, কেন্দ্রীয় গো-প্রজনন দুগ্ধ খামার, জাতীয়তাবাদী শিক্ষক ফোরাম, বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন, জাতীয়তাবাদী শ্রমিকদল, পল্লী দারিদ্র্য বিমোচন ফাউন্ডেশন, জাতীয় পার্টি, প্রশিকা, আমরা মুক্তিযুদ্ধের সন্তান. মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, ন্যাপ, জাতীয় গার্মেন্ট শ্রমিক ফেডারেশন, রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি, বাংলাদেশ যুব ইউনিয়ন, সাম্যবাদী দলসহ আরও অনেক রাজনৈতিক-সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন।

মতামত...