,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

‘বিজয় মঞ্চে’র উদ্বোধনে গণপূর্ত মন্ত্রী মুক্তিযোদ্ধা ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন

cনিউজ ডেস্ক, বিডিনিউজ রিভিউজ.কম:: এম এ আজিজ স্টেডিয়াম চত্বরে শুক্রবার বিজয় শিখা প্রজ্বলনের মাধ্যমে মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলার ‘বিজয় মঞ্চের’ কার্যক্রম আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন হয়েছে। জাতীয় ও বিজয় মেলার পতাকা উত্তোলনসহ বেলুন উড়ানোর মাধ্যমে বিজয় মেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও সাবেক সিটি মেয়র মুক্তিযোদ্ধা এ.বি.এম. মহিউদ্দিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য, মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলা পরিষদের প্রধান উপদেষ্টা, গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রী মুক্তিযোদ্ধা ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন এমপি।
গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন এম.পি বলেছেন, বাংলাদেশের উন্নয়ন ও মঙ্গল যাত্রায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাঁর পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মত বিশাল হৃদয় নিয়ে কাজ করে যাচ্ছেন। জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাস ও মাদকের বিরুদ্ধে আমাদেরকে সার্বক্ষণিক লড়াই অব্যাহত রাখতে হবে। আশা করি, মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলা পরিষদ নিষ্ঠার সাথে এই পবিত্র কর্তব্য পালনে অগ্রবর্তী বাহিনীর ভূমিকা পালন করবে। তিনি গতকাল মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলার শিখা প্রজ্বলন শেষে বিজয় মঞ্চে অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান অতিথির ভাষণে এ কথা বলেন। তিনি আরো বলেন, ১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধুকে হত্যা পরবর্তী দীর্ঘ ২১ বছর বাংলাদেশকে পরিকল্পিতভাবে অন্ধকারের দিকে ঠেলে দেওয়া হয়েছিল। ইতিহাস বিকৃতির মধ্যে দিয়ে নতুন প্রজন্মকে বিপথগামী করা হয়েছিল। আমি স্পষ্টভাবে বলতে চাই মুক্তিযুদ্ধকালীন জিয়াউর রহমান মনপ্রাণ থেকে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে ছিলেন না। তাকে পটিয়ার করলডেঙ্গা পাহাড় থেকে ডেকে এনে কালুরঘাট বেতার কেন্দ্র থেকে স্বাধীনতার ঘোষণা পাঠ করানো হলেও তিনি নিজেকে স্বাধীনতার ঘোষক হিসেবে বক্তব্য পাঠ করেন। পরে আমাদের দাবির মুখে তিনি সেই ঘোষণাটি প্রত্যাহারপূর্বক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পক্ষে ২৭ মার্চ বিকেলে ওই ষোষণা পত্রটি সংশোধনের মাধ্যমে নতুন করে পাঠ করতে বাধ্য হন। স্বাধীনতার প্রথম ঘোষণাটি পাঠ করেছিলেন মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক এম.এ হান্নান। এই সত্যটিকে ঢেকে দেওয়ার জন্য ইতিহাসের বিকৃতি যারা ঘটিয়েছেন তাদেরকে ইতিহাসের আস্তাকুঁড়ে নিক্ষিপ্ত করা হয়েছে। তিনি আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ সামনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশ আজ গরীব দেশ নয় শেখ হাসিনার রূপকল্প ২১ ও ৪১ ধারণা বাস্তবায়নের মধ্যে দিয়ে বাংলাদেশ পৃথিবীর বুকে মাথা উঁচু করে দাঁড়াবে। এই শুভ বার্তার মধ্যে দিয়ে মুক্তিযুুদ্ধের বিজয় মেলা ২৮ তম বর্ষে পদার্পণে সকলের সহযোগে পরিপূর্ণ হোক।
সভাপতির ভাষণে মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এ.বি.এম. মহিউদ্দিন চৌধুরী বলেন, মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলা দুর্বিনীত দুঃসময়ে বাংলাদেশের জেগে ওঠার শক্তি হিসেবে গর্জে উঠেছিল। এই বিজয় মেলা শুধুমাত্র আনুষ্ঠানিক আয়োজন নয় জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাস, দুর্নীতি, মাদক ও সাম্প্রদায়িক অপশক্তির বিরুদ্ধে বাঙালি জাতিসত্তার মুক্ত মঞ্চ। এই মঞ্চ শুধু বিজয়ের মাস ডিসেম্বরে নয় সাংবাৎসরিক কার্যক্রম ও অভিযান অব্যাহত রাখবে। আজ মুক্তিযোদ্ধার সন্তানরা যারা মুক্তিযুদ্ধ দেখেনি তারা পিতার রক্তে উত্তরাধিকারী হিসেবে এই বিজয় মঞ্চে যুক্ত হয়েছে। তাদেরকে সাথে নিয়ে বাঙালি জাতিসত্তার বিজয়ের কাফেলা এগিয়ে যাবে। গতকাল এম.এ. আজিজ স্টেডিয়ামস্থ বিজয় শিখা চত্বরে মুক্তিযুদ্ধের বিজয় শিখা প্রজ্বলন শেষে বিজয় মঞ্চে মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলার মহাসচিব মোহাম্মদ ইউনুছের সঞ্চালনায় উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের ঘোষণা পত্র পাঠ করেন মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলা পরিষদের কো-চেয়ারম্যান বদিউল আলম। এসময় মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী, উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি, সাবেক রাষ্ট্রদূত নুরুল আলম চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক এম.এ. সালাম, চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান আবদুচ ছালাম, মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলা পরিষদের মহাসচিব আহমেদুর রহমান ছিদ্দিকী, মহানগর মহিলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী হাসিনা মহিউদ্দিন প্রমুখ।
পরে বিজয় মঞ্চে বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট এর উদ্যোগে উদ্বোধনী সঙ্গীত পরিবেশিত হয়। শেখ শহিদুল আনোয়ার ও তপন বড়ুয়ার পরিচালনায় উদ্দীপনামূলক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশিত হয়।
আজ বিজয় মঞ্চে স্মৃতিচারণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি থাকবেন মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক মন্ত্রী আ.ক.ম মোজাম্মেল হক এমপি। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।

মতামত...