,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

বেনাপোলে অসামাজিক কার্যকলাপে পর্যটকদের আকর্ষণ হারাচ্ছে পর্যটন মোটেল

aআনোয়ার হোসেন লিখন, যশোর প্রতিনিধি,বিডিনিউজ রিভিউজঃ স্বেচ্ছাচারিতা আর অনৈতিক অর্থ আদায় আর অসামাজিক কার্যকলাপের কারনে পর্যটকদের কাছে ব্যবহার জনপ্রিয়তা হারাচ্ছে যশোরের বেনাপোলের পর্যটন মোটেল। লোকক্ষুর আড়ালে পর্যটন মোটেলে অবাধে চলছে অসামাজিক কার্যকলাপ। অসহায় যুবতী, গৃহবধূ, স্কুল-কলেজ পড়ুয়া ছাত্রীরা লোক চক্ষুর আড়ালে জড়িয়ে পড়েছে অসামাজিক কার্যকলাপে।

জানা যায়, মোটেলের কতিপয় কর্মকর্তা-কর্মচারীর যোগসাজসে কলগার্লরা পর্যটকদের আকৃষ্ঠ করে টাকা কামানোর চেষ্ঠা করে।এই ব্যবসার জন্য মোটেলকে ঘিরে একটি চক্রও গড়ে উঠেছে ।মোটেলের কক্ষ বরাদ্দ নিয়েও কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে রয়েছে বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগ।

ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তের জিরো পয়েন্টের রোমাঞ্চকর অনুভূতি উপভোগ করতে আসা পর্যটকদের অনেকেই বেসরকারি হোটেল ব্যবহার করছেন। তার কারণ মোটেলের নোংরা পরিবেশ। পর্যটন করপোরেশন নিয়ন্ত্রিত মোটেলে পর্যাপ্ত সুবিধা থাকা সত্ত্বেও সরকারি এই মোটেল ব্যবহার করতে পারেন না দেশের বৃহত্তম স্থলবন্দর বেনাপোলে আসা দেশ-বিদেশের ব্যবসায়ীরা। ফলে রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে সরকার।

বাংলাদেশ পর্যটন কর্পোরেশনের নিয়ন্ত্রণাধীন প্রতিষ্ঠান বেনাপোল পর্যটন মোটেল। এখানে একটি এসি স্যুইটের একদিনের ভাড়া তিন হাজার ৮০০ টাকা। আর এসি ও ননএসি রুমের ভাড়া যথাক্রমে দুই হাজার ২০০ ও দেড় হাজার টাকা। ডরমেটরিতে নেওয়া হয় ৩০০ টাকা করে। প্রতিটি রুমে টিভি, পিএবিএক্স টেলিফোন, গরম পানিসহ আধুনিক সব সুযোগ সুবিধা রয়েছে। কিন্তু তারপরও এখানে আসা বড় বড় ব্যাবসায়ীরা থাকেননা এখানে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক কর্মচারী জানান, মোটেলে একদিনের কক্ষ ভাড়া নিলে ২৪ ঘণ্টা সেই ব্যক্তি ব্যবহার করতে পারেন। কিন্তু কলগার্ল ব্যবহার করা লোকেরা কয়েক ঘণ্টা অবস্থান করে চলে যান। তারপর ওই কক্ষ অন্য আরেকজনের কাছে ভাড়া দেওয়া হয়। এভাবে এক কক্ষ দিনে একাধিকবার ভাড়া দেওয়া হয়। কিন্তু খাতা-কলমে ভাড়া দেখানো হয় একবার। কোনো ব্যক্তি একাধিক কক্ষ ভাড়া নিলে মাত্র একটি কক্ষ ভাড়া দেখিয়ে বাকি কক্ষের ভাড়া আত্মসাৎ করেন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা । বেনাপোলের পর্যটন মোটেলকে কলগার্লদের লীলাক্ষেত্র বানানোর বিষয়টি বেমালুম অস্বীকার করেছেন মোটেলের ইউনিট ব্যবস্থাপক এসএম মুজাহিদুল আলম।

মোটেলে অনৈতিক কাজ করা হয় না দাবি করে তিনি বলেন, অতীতে কে কী করেছে জানি না। কিন্তু আমার সময়কালে এ ধরনের কোনো কর্মকা- এখানে করতে দিই না। কোনো গেস্ট যদি কাউকে নিয়ে এসে স্ত্রী পরিচয় দেয়, তবে কিছু বলার থাকে না।

মতামত...