,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

বুধবারের হরতাল প্রত্যাহার, ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সংঘর্ষের জের এএসপি,ওসি বদলি

930

নিজস্ব প্রতিবেদক,ঢাকা,১২, জানুয়ারি (বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকম): ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সংঘর্ষের জেরে মাদ্রাসা ছাত্র নিহত হওয়ার ঘটনায় সদর থানার সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) তাপস রঞ্জন ঘোষ ও ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আকুল চন্দ্র বিশ্বাসকে প্রত্যাহার করা হয়েছে।

 

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ভারপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার এম এ মাসুদ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

 

এ ঘটনা তদন্তে চট্টগ্রামের অতিরিক্ত ডিআইজ মাহবুবুর রহমানকে প্রধান করে ৩ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

 

বাদ আছর নিহত ওই মাদ্রাসা ছাত্রে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়েছে। ঘটনার পর থেকে এখনো (রাত পর্যন্ত) এলাকায় আতঙ্ক ও থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে।

 

সোমবার সন্ধ্যায় মোবাইল কেনা-বেচাকে কেন্দ্র করে ছাত্রলীগ, ব্যবসায়ী ও মাদ্রাসা ছাত্রদের মধ্যে চার ঘণ্টাব্যাপী সংঘর্ষ হয়। এতে আহত হাফেজ মাসুদুর রহমান মঙ্গলবার ভোরে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।

 

নিহত মাসুদুর রহমান জামিয়া ইউনুসিয়া মাদ্রাসার ছাত্র। তিনি পৌর এলাকার ভাদুঘর গ্রামের ইলিয়াস আহম্মেদের ছেলে।

931

তার সহপাঠীদের অভিযোগ, গতরাতে পুলিশ তালা ভেঙে মাদ্রাসায় ঢুকে ছাত্রদের উপর হামলা চালায়। এ সময় পুলিশের গুলিতে বেশ কয়েকজন আহত হয়। তাদের মধ্যে গুরুতর আহত হাফেজ মাসুদুর রহমানকে সদর হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

 

নিহত মাদ্রাসাছাত্র হাফেজ মাসুদুর রহমানের ভাই হাফেজ মোহাম্মদ মামুন ও সহপাঠী মুফতি নিয়ামুল ইসলাম অভিযোগ করেছেন, মাসুদের গায়ে গুলির চিহ্ন রয়েছে। পুলিশের গুলিতে তার মৃত্যু হয়েছে।

 

এ খবরে ছড়িয়ে পড়লে সকালে শহরের টিএ রোড, কুমারশীলের মোড়, লোকনাথ ট্যাংকের পাড়সহ কয়েকটি স্থানে রাস্তা আটকে টায়ার জ্বালিয়ে বিক্ষোভ দেখায় ছাত্ররা। এ সময় তারা সড়কের উপর কয়েকটি তোরণও ভাঙচুর করে। পুরো শহরে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়লে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এই পরিস্থিতিতে সকাল ৮টার দিকে শহরে বিজিবি মোতায়েন করে স্থানীয় প্রশাসন।

 

মাদ্রাসাছাত্র নিহতের ঘটনায় আগামীকাল বুধবার সারা দেশে হরতালের ডাক দেয়া হয়েছে। মঙ্গলবার সকাল সোয়া ১০টার দিকে শহরের জামিয়া ইসলামিয়া ইউনুসিয়া মাদ্রাসার (বড় মাদ্রাসা) জ্যেষ্ঠ শিক্ষকদের পক্ষে মাওলানা মোবারক উল্লাহ এ হরতালের ঘোষণা দেন।

বুধবার সারাদেশে ডাকা সকাল-সন্ধ্যা হরতাল প্রত্যাহার

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জামিয়া ইউনুসিয়া মাদ্রাসার ছাত্রদের সঙ্গে সোমবার (১১ জানুয়ারি) রাতে ত্রিমুখি সংঘর্ষে এক ছাত্র নিহত হওয়ার প্রতিবাদে বুধবার সারাদেশে ডাকা সকাল-সন্ধ্যা হরতাল প্রত্যাহার করা হয়েছে।

মঙ্গলবার রাতে মাদ্রাসার শীর্ষ আলেমদের সঙ্গে চট্টগ্রাম রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি মাহাবুবুর রহমানের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল ২ ঘণ্টাব্যাপী আলোচনা করেন। বৈঠকে জেলা প্রশাসন, র‌্যাব ও বিজিবি কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিরেন।

ওই সমঝোতা বৈঠকের পর বুধবারের হরতাল প্রত্যাহার করা হয়েছে। মাদ্রাসার ছাত্র-শিক্ষকসহ আলেমদের দাবি পূরণের আশ্বাস দেওয়ায় তারা এ হরতাল প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নেন।

মাদ্রাসার প্রধান দপ্তরে অনুষ্ঠিত বৈঠকে চট্টগ্রাম রেঞ্জের পুলিশের অতিরিক্ত ডিআইজ মাহবুবুর রহমান, জেলা প্রশাসক ড. মুহাম্মদ মোশাররফ হোসেন, ভারপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার এম.এ. মাসুদ, ১২ বিজিবির কমান্ডার কর্নেল নজরুল ইসলাম, র্যা ব-১৪ সিও কর্নেল আরিফ সুমন, জেলার শীর্ষ আলেম মাওলানা আশেকে এলাহী ইব্রাহিমী, মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল মুফতি মোবারক উল্লাহ, মাওলানা সাজিদুর রহমানসহ শীর্ষ ওলামারা উপস্থিত ছিলেন।

সভায় নিহত মাদ্রাসার ছাত্র হাফেজ মাসুদুর রহমানের পরিবার ও আহতদের ক্ষতিপূরণ প্রদান এবং হত্যা মামলা দায়ের, মাদ্রাসা ও মসজিদে হামলাকারী সন্ত্রাসীদের গ্রেপ্তার এবং নাসিরনগরের হযরত শাহজালাল মসজিদ ও মাদ্রাসা কমপ্লেক্স খুলে দেয়ার দাবি জানানো হয়।

প্রশাসনিক কর্মকর্তারা দীর্ঘ আলোচনার পর এসব দাবি বাস্তবায়নের আশ্বাস প্রদান করেন।

এরপর মাদ্রাসার নেতৃবৃন্দকে জানানো হয়, দুই পুলিশ কর্মকর্তাকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে প্রত্যাহার করে চট্টগ্রাম রেঞ্জে নেয়া হয়েছে। এছাড়া তাৎক্ষণিকভাবে নাসিরনগর মাদ্রাসা খুলে বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়ার ব্যবস্থা করার নির্দেশ দেয়া হয়।

সমঝোতা বৈঠকে মসজিদ ও মাদ্রাসায় হামলাকারী মাহমুদুল হক ভূইয়া, তার সহযোগী বিজয় সাহা, জুম্মান, মাসুম বিল্লাহ, রাজু, ও রাফিকে অবিলম্বে গ্রেপ্তারের আশ্বাস দেওয়া হয়।

পরে প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে মাদ্রাসার নেতৃবৃন্দ সাংবাদিকদের ব্রিফিং করে বুধবারের হরতাল প্রত্যাহারের ঘোষণা দেন।

মতামত...