,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

ভারতে বিজেপির তহবিল ফুলে ফেঁপে উঠেছে গরুর মাংস বিক্রির টাকায়

গরুর মাংস নিষিদ্ধ করার ধুঁয়ো তুলে যে ভারতজুড়ে বিজেপি গেল গেল রব তুলেছে, অথচ তাদের দলীয় তহবিল ফুলে ফেঁপে201 উঠেছে বাফেলো মিট এক্সপোর্টারদের বদান্যতায়। নির্বাচন কমিশনে বিজেপির জমা দেয়া আর্থিক আয়-ব্যয়ের হিসেব বলছে, ২০১৪ লোকসভা নির্বাচনে বিজেপির তহবিলে অনুদানবাবদ ২.৫ কোটি রুপি ঢেলেছে দেশের সবচেয়ে বড় গরু-মোষের মাংস কারবারিরা।

লোকসভা নির্বাচন, বিহারের বিধানসভা নির্বাচন-সহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে ‘গোমাংস’ বর্জনকে ইলেকশন ইস্যু বানিয়ে ফেলেছিল বিজেপি। তারপরের অধ্যায়ে দাদরি থেকে শুরু করে কেরালা হাউজ কাণ্ড। বিভিন্ন সময়ে গরুর মাংস নিষিদ্ধ করার দাবিতে গলা ফাটাতে দেখা গেছে গেরুয়া শিবিরকে। কিন্তু, জানলে অবাক হবেন, সেই বিজেপির আর্থিক তহবিলে যারা অনুদান হিসেবে উপুড় করে টাকা ঢেলেছেন, তাদের মধ্যে অন্যতম বাফেলো মিট এক্সপোর্টাররা।
২০১৪ সালে লোকসভা নির্বাচনের সময় ফ্রিগোরিফিকো আলানা লিমিটেড, ফ্রিজারিয়ো কনভেরা আলানা লিমিটেড ও ইন্ডাগ্রো ফুডস লিমিটেড নামে তিনটি কোম্পানি গেরুয়া পার্টির তহবিলে ২ কোটি রুপি অনুদান ঢেলেছে। এই তিন কোম্পানিই আলানাসন্স লিমিটেডের অনুসারী কোম্পানি। বিশ্বের বাজারে আলানাসন্স গরু ও মোষের মাংস রপ্তানিকারী কোম্পানি হিসেবে বিখ্যাত। শুধু তাই নয়, ফ্রোজেন বোনলেস গো-মোষের মাংসের ক্ষেত্রে এই কোম্পানি বিশ্বের সবচেয়ে বড় উৎপাদক ও এক্সপোর্টার হিসেবে স্বীকৃত। এছাড়াও ২০১৪-১৫ সালে বিজেপির দলীয় তহবিলে আরো ৫০ লাখ অনুদান দেয় ফ্রিগোরিফিকো আলানা লিমিটেড।

নির্বাচন কমিশিনের বিধি অনুযায়ী ২০,০০০টাকার বেশি কোনও ব্যক্তি বা কোম্পানি যদি পার্টি ফান্ডে জমা দেয়, তবে তা কমিশনকে জানাতে বাধ্য থাকবে দল। বিজেপির দেয়া তথ্যে জানা গেছে, ২০১৪-১৫ সালে ভারতের জাতীয় দলগুলির মধ্যে সবচেয়ে বেশি অনুদান পেয়েছে তারাই। সে বছর মোট ৪৩৭.৩৫ কোটি টাকা অনুদান হিসেবে পেয়েছে গেরুয়া শিবির।

মতামত...