,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

ভূমি অফিসের ৩ কর্মচারীকে স্ট্যান্ড রিলিজের নির্দেশ ভূমি প্রতিমন্ত্রীর

নিজস্ব প্রতিবেদক,২০ ফেব্রুয়ারী বিডিনিউজ রিভিউজ.কম:: দুর্নীতি আর অনিয়মের অভিযোগে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের ভূমি অধিগ্রহণ শাখার ৩ কর্মচারীকে স্ট্যান্ড রিলিজের (তাৎক্ষণিক বদলি) নির্দেশ দিয়েছেন ভূমি প্রতিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ।

রবিবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) সকালে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের ভূমি অধিগ্রহণ (এলএ) শাখা পরিদর্শনকালে কয়েকজন ভুক্তভোগীর তাৎক্ষণিক অভিযোগের প্রেক্ষিতে তিনি এ নির্দেশ দেন। স্ট্যান্ড রিলিজপ্রাপ্ত ৩ জন হলেন জেলা প্রশাসনের ভূমি অধিগ্রহণ শাখার চেইনম্যান আহমদ করিম, নজরুল ইসলাম ও মো. হানিফ। এ সময় মন্ত্রী অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মো. আবদুল জলিলকে স্ট্যান্ড রিলিজের আদেশ কার্যকর করতে বলেন।

সংশ্লিষ্টরা জানান, দুপুর পৌনে ১২টায় ভূমি প্রতিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জেলা প্রশাসনের ভূমি অধিগ্রহণ (এলএ) শাখার বিভিন্ন কক্ষে গিয়ে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সাথে কথা বলেন এবং বিভিন্ন মামলার ফাইল সম্পর্কে খোঁজ-খবর নেন। এ সময় সেখানে উপস্থিত মনছুর আলী নামের অবসরপ্রাপ্ত একজন শিক্ষক ভূমি প্রতিমন্ত্রীকে বলেন, ‘স্যার আমি কয়েকটি কথা বলতে চাই’। উত্তরে ভূমি প্রতিমন্ত্রী বলেন ‘ বলেন, আমি আপনাদের সাথে কথা বলতে ও শুনতে এসেছি। কোনো হয়রানির শিকার হচ্ছেন না তো?’ উত্তরে মনছুর আলী বলেন, ‘আমি গত এক বছর ধরে এখানে একটি ফাইল নিয়ে ঘুরছি। এক টেবিল থেকে আরেক টেবিলে ফাইল নিতে টাকা দিতে হয়। টাকা ছাড়া কোনো ফাইল নড়ে না। ইতিমধ্যে ৫ থেকে ৭ হাজার টাকা দিয়েছি। কিন্তু এখনও কাজ হয়নি। প্রথমে আইয়ুব নামের এক কর্মচারীর কাছে ফাইল ছিল। তাকে টাকা পয়সা দিয়ে ম্যানেজ করেছি। বর্তমানে সৈকত চাকমা ও মোবারক নামের ২ কর্মচারীর কাছে আমার ফাইলটি আছে।’

তখন পাশে থাকা সাইফুর নামের আরেক ভুক্তভোগী ভূমি প্রতিমন্ত্রীকে বলেন ‘আমি মিস মামলার জন্য এ অফিসের কর্মচারী করিম ও নজরুলকে অনেক টাকা দিয়েছি। কিন্তু তবুও তারা আমার ফাইলটি আটকিয়ে রেখেছে। যতবার আসি ততবার টাকা দিতে হয় তাদের। গত ৭ মাস থেকে এ ফাইল নিয়ে ঘুরছি। কোনো সুরাহা পাচ্ছি না।’
এ সময় অনুসন্ধানে ভুক্তভোগীদের অভিযোগের সত্যতা পান প্রতিমন্ত্রী। পরে ওই ৩ কর্মচারীকে স্ট্যান্ড রিলিজের নির্দেশ দেন তিনি।

মতামত...