,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

ভয়াল সেই ২৫ মার্চ আজ

25-3দিলরুবা খানম, বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকমঃ  আজ ভয়াল সেই ২৫ মার্চ । বাংলীরা আজও দাড়িয়ে ওই রক্ত গোধূলিতে, অভিশাপ দিচ্ছে । আমাদের বুকের ভেতরের সেই  ভয়ানক আঘাত হেনেছিল, আমাদেরই আপনজনদের যারা ঠাণ্ডা মাথায় হত্যা করে,   যারা গণহত্যা করে শহরে গ্রামে টিলায়, নদীতে ক্ষেত ও খামারে রক্তে লালে ভাসিয়ে ছিল , এ জাতিকে  পঙ্গু করে দিতে মেধাবী সন্তানদের হত্যা করেছে আমরা তাদের অভিশাপ দিচ্ছি হায়েনার  চেয়েও হিংস্র সেই সব পশুদের।’

 

১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ দিবাগত রাতে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল ঘুমন্ত নিরস্ত্র বাঙালিদের ওপর। মধ্যরাতে রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশে বর্বর পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী অপারেশন সার্চলাইটের নামে বাঙালিদের কণ্ঠ চিরতরে স্তব্ধ করে দেয়ার ঘৃণ্য লক্ষ্যে ঝাপিয়ে পড়েছিল বর্বর হায়েনার মতো।

 

রাত সাড়ে ১১টায় ক্যান্টনমেন্ট থেকে জিপ, ট্রাক বোঝাই করে ট্যাঙ্কসহ আধুনিক সমরাস্ত্র নিয়ে শহরজুড়ে তাণ্ডব চালায় ঘাতকেরা। আকাশ-বাতাস কাঁপিয়ে গর্জে উঠলো আধুনিক রাইফেল, মেশিনগান ও মর্টার। মুহুর্মুহু গুলিবর্ষণের মাধ্যমে ঝাঁপিয়ে পড়ল নিরীহ মানুষের ওপর।

শুরু হলো বর্বরোচিত নিধনযজ্ঞ আর ধ্বংসের উন্মত্ত তাণ্ডব। মানুষের কান্না ও আর্তচিত্কারে ভারি হলো আকাশ-বাতাশ। রাজারবাগ পুলিশ লাইন, পিলখানা ইপিআর সদর দপ্তর, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়, নীলক্ষেতসহ বিভিন্ন স্থানে নির্বিচারে হত্যা করলো বাঙালিদের।

 

পাক হায়েনারা ওই এক রাতেই নৃশংসভাবে হত্যা করেছিল অর্ধ লক্ষাধিক বাঙালিকে। মধ্যরাতের ঢাকা যেন পরিণত হলো লাশের শহরে। নিরস্ত্র, ঘুমন্ত মানুষকে বর্বরোচিতভাবে হত্যার ঘটনায় স্তম্ভিত হয়েছিল বিশ্ববিবেক।

 

এই গণহত্যার স্বীকৃতি খোদ পাকিস্তান সরকার প্রকাশিত দলিলেও রয়েছে। পূর্ব পাকিস্তানের সংকট সম্পর্কে যে শ্বেতপত্র পাকিস্তান সরকার মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে প্রকাশ করেছিল, তাতে বলা হয়: ‘১৯৭১ সালের পয়লা মার্চ থেকে ২৫ মার্চ রাত পর্যন্ত এক লাখেরও বেশি মানুষের জীবননাশ হয়েছিল।’
মার্কিন সাংবাদিক রবার্ট পেইন ২৫ মার্চ রাত সর্ম্পকে লিখেছেন, ‘সে রাতে ৭ হাজার মানুষকে হত্যা করা হয়, গ্রেপ্তার হয় আরো ৩ হাজার লোক। ঢাকায় ঘটনার শুরু হয়েছিল মাত্র। সমস্ত পূর্ব পাকিস্তান জুড়ে সৈন্যরা বাড়িয়ে চললো মৃতের সংখ্যা। জ্বালাতে শুরু করলো ঘর-বাড়ি, দোকান-পাট লুট। আর ধ্বংস সাধন তাদের নেশায় পরিণত হলো যেন। রাস্তায় রাস্তায় পড়ে থাকা মৃতদেহগুলো কাক-শেয়ালের খাবারে পরিণত হলো। সমস্ত বাংলাদেশ হয়ে উঠলো শকুনতাড়িত শ্মশান ভূমি।’

 

 

বি এন আর/০০১৬০০৩০০২৫/০০০৪২০ /এস

মতামত...