,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

আজ মধ্যরাত থেকে নির্বাচনের মাঠে নামছে বিজিবি

529নিজস্ব প্রতিবেদক,ঢাকা,২৭, ডিসেম্বর (বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকম):পৌরসভা নির্বাচনে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে রবিবার মধ্যরাত থেকে পাঁচ দিন মাঠে থাকবে গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) সদস্যরা।

রবিবার বিকালে নির্বাচন কমিশনার মো. শাহনেওয়াজ এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, যেসব পৌরসভায় নির্বাচন হবে তার সবগুলোতেই বিজিবি মোতায়েন করা হবে। তবে উপকূলীয় পৌরসভাগুলোতে বিজিবি মোতায়েন হচ্ছে না। সেখানে কোস্ট গার্ড মোতায়েন করা হবে।

এর আগে রবিবার বিকেলে নির্বাচনী এলাকায় বিজিবি মোতায়েনের সিদ্ধান্ত নেয় ইসি। পরে এ সংক্রান্ত চিঠি ইসি থেকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়। ইসির উপ-সচিব (নির্বাচন পরিচালনা শাখা) এ বিষয়টি জানান।

ভোটার সংখ্যা অনুপাতে প্রতি পৌরসভায় বিজিবি মোতায়েনের সিদ্ধান্ত নেয় নির্বাচন কমিশন। বিজিবিসহ অন্যান্য নিরাপত্তা সদস্যরা ২৮ ডিসেম্বর থেকে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত মাঠে থাকবেন।

পাশাপাশি পৌরসভা নির্বাচনে সাধারণ ভোট কেন্দ্রে ১৯ জন ও গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্রে ২০ জন নিরাপত্তা সদস্য মোতায়েনের পরিপত্র জারি করেছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। ইসির নির্দেশনা অনুযায়ী রবিবার এ পরিপত্র জারি করে মন্ত্রণালয়।

ইসির উপ-সচিব সামসুল আলম বলেন, ‘ইসির নির্দেশনা অনুযায়ী স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এ সংক্রান্ত পরিপত্র জারি করে মাঠে পাঠিয়ে দিয়েছে। প্রতিটি পৌরসভায় ভোটার সংখ্যা অনুপাতে এক প্লাটুন কিংবা তার চাইতে কম বেশি বিজিবি মোতায়েন করা হবে।’

উপকূলীয় পৌরসভায়— মূলাদী, মেহেন্দিগঞ্জ, সন্দ্বীপ, হাতিয়া, রামগতি ও পাথরঘাটায় থাকবে কোস্টগার্ড।

তিনি জানান, ইসির নির্দেশনা অনুযায়ী স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এ সংক্রান্ত পরিপত্র জারি করে মাঠ পর্যায়ে পাঠিয়ে দিয়েছে। পাশাপাশি ভোটার অনুযায়ী পৌরসভাগুলোয় এক প্লাটুনের কম-বেশি করে বিজিবি মোতায়েন করা হবে।

১০ হাজারের নিচে ভোটারের পৌরসভায় ১ প্লাটুনের কম, ১০ হাজার থেকে ৫০ হাজারের ভোটারের পৌরসভায় এক প্লাটুন এবং ৫০ হাজার থেকে ১ লাখ ভোটারের পৌরসভায় এক প্লাটুন বা তার বেশি এবং ১ লাখের বেশি পৌরসভায় ২ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, সোমবার (২৮ ডিসেম্বর) থেকে মোতায়েন করা হবে তাদের। এই বাহিনী থাকবে ভোটের পরদিন অর্থাৎ ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত।

বিএনপিসহ কয়েকটি রাজনৈতিক দল ও প্রার্থীর সেনা মোতায়েনের দাবি থাকলেও তাতে সাড়া দেয়নি ইসি। তবে বিজিবি ও র্যােব সদস্য বাড়িয়ে দেয়ার কথা জানিয়েছে নির্বাচন কমিশন।

১০২ পৌরসভায় ১০২ প্লাটুন বিজিবির কথা বলা হলেও এখন ভোটার অনুপাতে পৌরসভাগুলোতে বিজিবির সংখ্যা কম-বেশি করে দেয়া হচ্ছে। তবে সব মিলিয়ে সদস্য সংখ্যা একই থাকছে।

বিজিবি জানায়, প্রতি প্লাটুনে ৩০-৩৩ জন করে সদস্য থাকেন। ইসি কর্মকর্তারা জানান, ছয় উপকূলীয় পৌরসভা মূলাদী, মেহেন্দিগঞ্জ, সন্দ্বীপ, হাতিয়া, রামগতি ও পাথরঘাটায় কোস্টগার্ড থাকবে। বাকি ২২৯ পৌরসভায় ভোটার অনুপাতে বিজিবি মোতায়েন হবে। পৌরসভায় নিরাপত্তায় ৭০ হাজারের বেশি পুলিশ, অর্ধ লক্ষাধিক আনসার-ভিডিপি, বিজিবি শতাধিক প্লাটুন, র‌্যাবের ৮১টি টিম ও ছয় প্লাটুন কোস্টগার্ড সদস্য নিয়োজিত থাকছে বলে জানান ইসি কর্মকর্তারা।

আগামী ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে পৌরসভা নির্বাচন। দেশের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো এবার দলের প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে দাঁড়িয়েছেন মেয়র পদপ্রার্থীরা।

মতামত...