,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

মহেষ খাল খনন কাজ পরিদর্শনে মেয়র

aনিজস্ব প্রতিবেদক, বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকমঃ ঢাকা , জলাবদ্ধতা নিরসনের লক্ষে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নগরীর খাল ও নালা থেকে মাটি ও আবর্জনা উত্তোলন এবং অপসারন করছে। খালের মাটি ও আবর্জনা অপসারন কার্যক্রম সরেজমিনে দেখার জন্য চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আলহাজ্ব আ জ ম নাছির উদ্দীন ১০ মার্চ বৃহস্পতিবার, সকালে মহেষ খালে যান। ফইল্যাতলী বাজারের ব্রিজ থেকে বড়পুল এলাকা পর্যন্ত খালের বিভিন্ন অংশ, মাটি ও আবর্জনা উত্তোলন কার্যক্রম ঘুরে ঘুরে দেখেন মেয়র। উল্লেখ্য যে, ২০১৫-২০১৬ অর্থ বছরে মহেষ খালে ফইল্যাতলী থেকে বড়পুল পর্যন্ত অংশের মাটি উত্তোলন ও অপসারনে ১৫ লক্ষ টাকা ব্যয় হচ্ছে। এ কাজে ঠিকাদারের দায়িত্বে নিয়োজিত আছেন বিলকিস এন্টারপ্রাইজ। পরিদর্শন কালে সিটি মেয়র আলহাজ্ব আ জ ম নাছির উদ্দীন খালের মাটি উত্তোলন ও অপসারন কাজে নিয়োজিত ঠিকাদারদের বর্ষা মৌসুম শুরুর পূর্বে তাদের উপর অর্পিত দায়িত্ব শতভাগ শেষ করার পরামর্শ দেন। এ সময় মেয়র এলাকাবাসীর সাথেও মতবিনিময় করেন। মতবিনিময়ে মেয়র বলেন, একশ্রেণির নাগরিক স্বেচ্ছায় বা অনিচ্ছায়, স্বজ্ঞানে ও অজ্ঞানে খাল এবং নালায় যাবতীয় বর্জ্য ফেলে খাল ও নালা প্রতিনিয়ত ভরাট করছে। এ ছাড়াও অবৈধ ভাবে দখল করে ঘর-বাড়ী, দোকান-পাট এবং স্থাপনা নির্মাণ করে ব্যবসা-বাণিজ্য করছে। ফলে স্বাভাবিক পানি চলাচলে বাধা‘র কারণে জলাবদ্ধতা প্রকট আকার ধারন করছে। এ থেকে পরিত্রাণের জন্য খাল ও নালা-নর্দমায় আবর্জনা ফেলার মত ক্ষতিকর কাজ থেকে সংশ্লিষ্ট সকলকে বিরত থাকতে হবে। প্রসঙ্গক্রমে সিটি মেয়র বলেন, পরিবেশ ও নাগরিক জীবনে স্বস্থির লক্ষে রাতে আবর্জনা অপসারন করা হচ্ছে। আবর্জনা ফেলার বিষয়েও সময় নির্দিষ্ট করে দেয়া হয়েছে। তা সত্ত্বেও কেউ কেউ যখন তখন, যত্রতত্র, খালে-বিলে, নালায় আবর্জনা ফেলে পরিবেশ দুষন করছে- যা কাম্য নয়। এ ধরনের বদঅভ্যাস ত্যাগ করার জন্য মেয়র সংশ্লিষ্টদের আহবান জানান। মহেষখাল পরিদর্শন কালে সিটি মেয়র খালের উপর নির্মিত হযরত ওমরবিন খাত্তাব (রা:) মসজিদটিকে নিরাপদ ও বৈধ স্থানে সরিয়ে নেয়ার জন্য মসজিদ কমিটিকে নির্দেশ দেন।  একটি খাবার দোকানের অবৈধ অংশ সরিয়ে ফেলার নির্দেশ দেন। মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেন, জনস্বার্থে খাল ও নালার উপর নির্মিত স্থাপনা উচ্ছেদ করতে হবে এবং অবৈধ দখল ছেড়ে দিতে হবে অন্যথায় আইনের যথাযথ প্রয়োগ হবে। এ ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট কেউ-ই রেহাই পাবে না।

এ সময় স্থানীয় কাউন্সিলর আবুল হাসেম, ডা. আরিফুল আমিন, এরশাদুল আমিন, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী মো. রফিকুল ইসলাম, সহকারী প্রকৌশলী অসীম কুমার বড়–য়া, উপ-সহকারী প্রকৌশলী সাদরুল হক সহ স্থানীয় রাজনৈতিক ও গন্যমান্য বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

 

বি এন আর/০০১৬০০৩০০১০/০০০১৬৯/পি

মতামত...