,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

মাইজভান্ডার দরবারে লাখো ভক্তের ঢল

 

1001নিজস্ব প্রতিবেদক,চট্টগ্রাম,২৩, জানুয়ারি (বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকম):: চট্টগ্রামে মাইজভান্ডারে উঠেছে ঐ তৌহিদের নিশাণা-ঘুমাইঘোনা মায়া ঘুমে আখেরী জমানা/ কেন চিনলি নারে মন-গাউছুল আজম মাইজভান্ডারী মাওলানা কেমন…. চলরে মন ত্বরায় যায় বিলম্বের আর সময় নাই, গাউসুল আজম মাইজভান্ডারী স্কুল খুলেছে, এ স্কুলের এমনি ধারা বিচার নাই জোয়ান বুড়া, সিনায় সিনায় লেখাপড়া শিক্ষা দিতেছে…. ।

একতারা, দোতারা, হারমোনি, তবলার শুরে গুড়ি গুড়ি বৃষ্টি, মেঘাশ্চন্ন আকাশ, আর হাঁড় কাঁপানো শীতা উপেক্ষা করে মাইজভান্ডারে আশেক-ভক্তের ঢল নেমেছে।

উপমহাদেশের প্রখ্যাত অলীয়ে কামেল মাইজভান্ডারী তরিকার প্রবর্তক হযরত শাহছুফী মাওলানা সৈয়দ আহমদ উল্লাহ্ (ক.) মাইজভান্ডারীর ১১০তম বার্ষিক ওরশ আজ শনিবার চট্টগ্রামের ফটিকছড়ির মাইজভান্ডার দরবার শরীফে অনুষ্ঠিত হচ্ছে। ওরশ উপলক্ষে তিন দিনব্যাপী কার্যক্রম শুরি হয়েছে গত বৃহস্পতিবার থেকে। বার্ষিক ওরশ শরীফের আজ প্রধান দিবস।

এ উপলক্ষে চট্টগ্রামের ফটিকছড়ির মাইজভান্ডার দরবার শরীফে দেশ বিদেশ থেকে লাখ লাখ আশেকানে মাইজভান্ডারীতে ভক্তরা সমবেত হয়েছে। বাংলাদেশ ছাড়াও ভারত, পাকিস্তান, মায়ারমার, মধ্যপ্রাচ্যোর বিভিন্ন দেশ থেকে ভক্তরা এসেছেন।

ওরশ উপলক্ষে ফটিকছড়ি উপজেলার নাজিরহাটস্থ মাইজভান্ডার এলাকা লোকে লোকারণ্য হয়ে গেছে। দরবার শরীফে বিভিন্ন মঞ্জিল পৃথক কর্মসূচি পালন করেছে। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে বাদ ফজর আহমদ উল্লাহ (ক.) রওজা শরীফে গোসল, খতমে কোরআন, খতমে গাউছিয়া, মিলাদ মাহফিল, জিকির,আজগার ও সবশেষে আখেরী মোনাজাত।

শনিবার রাত ১২.০১ মিনিটে স্ব-স্ব মঞ্জিলের শাজ্জাদানশীনেদের আখেরী মুনাজাত করবেন শাহসুফী সৈয়দ এমদাদুল হক মাইজভান্ডারী (ম.জি.আ), শাহসূফী ডা: সৈয়দ দিদারুল হক মাইজভান্ডারী (ম.জি.আ) সৈয়দ মোহাম্মদ হ্সাান মাইজভান্ডারী (ম.জি.আ) ।

অপর দিকে বিকেল ৩টায় দরবারে গাউছিয়া আহমদীয়া মঞ্জিলের শাজ্জাদানশীন আলহাজ্ব শাহসূফী ডা: সৈয়দ দিদারুল হক মাইজভান্ডারী (ম.জি.আ) মাজার শরীফে গোসল ও গিলাফ ছড়াবেন।

মাইজভান্ডার দরবার শরীফের প্রধান ওরশ উপলক্ষ্যে গাউছিয়া আহমদিয়া মঞ্জিল, দরবারে গাউছিয়া আহমদিয়া মঞ্জিল, গাউছিয়া হক মঞ্জিল, রহমানীয়া মঞ্জিল, মঈনীয়া মঞ্জিল কোরআন খতম, খতমে গাউছিয়া, খতমে খাজেগান, মিলাদ মাহফিল, হালকায়ে জিকির, ছেমা মাহফিল, বিশেষ মুনাজাদ ও সকল মাজার গুলোকে আলোক সজ্জার ব্যবস্থা করেছে। এ উপলক্ষ্যে ফটিকছড়ি উপজেলা প্রশাসন ও ফটিকছড়ি থানা পূলিশ ব্যাপক নিরাপত্তার ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। আইন-শৃংখলা রক্ষায় থানা পুলিশ-র‌্যাব-আনসার ও দুই সহস্রাদিক বিশেষ স্বেচ্ছা সেবক বাহিনী নিয়োজিত রয়েছে।

ভক্তদের চলাচলের সুবিধার্থে পুলিশ নাজিরহাট ঝংকার মোড় থেকে দরবার গেইট পর্যন্ত যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে। বাংলাদেশ রেলওয়ে চট্টগ্রাম থেকে নাজিরহাট পর্যন্ত ভক্তদের যাতায়াতের সুবিধার্থে দু’টি বিশেষ ট্রেন চলাচলের ব্যবস্থা করেছে।

এদিকে প্রতি বছর দেশের লাখো ভক্ত উঠ, গয়াল, গরু, মহিস, ছাগল হাদিয়া, নজর-নেওয়াজ নিয়ে আসে। বাংলাদেশ ছাড়াও ভারত, পাকিস্তান, বার্মা, ভুটান, মালদ্বীপ থেকেও অনেক আশেক ভক্ত-অনুরক্তরা হাদিয়া নিয়ে এখানে আসে। ১০ মাঘ মাইজভান্ডার শরীফের ওরশ উপলক্ষ্য করে মাইজভান্ডারের ৩/৪ মাইল এলাকায় বিশাল মেলা বসে। কৃষি ব্যবহার্য্য পণ্য, কুঁটির শিল্প উৎপাদিত পণ্য, গ্রামীণ গৃহস্থালী সামগ্রী, ডালা, কুলা দা, বটি, বেলুণ, কাঠের পিড়া, মোড়া, পিটা তৈরীর বিভিন্ন চাচ, চুড়ি, বাশি খেলনা, মোলা-ওড়া ইত্যাদির বিশাল মেলা বসেছে।

ওরশ সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে সম্পন্ন করার জন্য বাংলাদেশ তরীকত ফেডারেশনের চেয়ারম্যান ও মাইজভান্ডার ওরশ কমিটির চেয়ারম্যান এবং জাতীয় সংসদ সদস্য আলহাজ সৈয়দ নজিবুল বশর মাইজভান্ডারী সকল মহলের সহযোগিতা কামনা করেছেন।

শাহ এমদাদীয়া মঞ্জিল শাহজাদা সৈয়দ ইরফানুল হক জানান, বংলাদেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল ছাড়াও ভারত, পাকিস্তান, নেপাল, বার্মা, ইরাক, সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকেও মাইজভান্ডারী আশেক ভক্তরা আসছেন।

গাউছিয়া আহমদিয়া মঞ্জিলের শাহজাদা সৈয়দ নুরুল ইসলাম রুবাব জানান, গাউছুল আজম মাইজভান্ডারীর ১১০তম ওরশে আগত আশেক-ভক্ত, জায়েরীনদের জন্য থাকা-খাওয়া, প্রাথমিক চিকিৎসা, নির্বিঘেœ চলাচলের জন্য লাইটিং এর ব্যবস্থা করা হয়েছে।

ফটিকছড়ির উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. নজরুল ইসলাম বলেন, মাইজভান্ডারের প্রধান ওরশ উপলক্ষে ক্লোজসার্কিট ক্যামরা ও ভিডিও চিত্র ধারণের মাধ্যমে সার্বক্ষনিক নজরদারি করা হচ্ছে। দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রনসহ গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে সিদ্ধান্তের জন্য একজন নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট সমন্বয়ে ভ্রাম্যমান আদালত সব সময় টহলরত আছে।

মতামত...