,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী নাজিব ছাড়া বিশ্ব চুপ!

malaysia-pmআন্তর্জাতিক ডেস্ক, বিডিনিউজ রিভিউজ.কম: রোহিঙ্গাদের ওপর চরম বর্বরতায় বিশ্বসম্প্রদায় প্রায় নির্লিপ্ততা দেখালেও এর বিরুদ্ধে একমাত্র কড়া গলায় বলছেন মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজাক। মিয়ানমারে মুসলমানদের ওপর হত্যাযজ্ঞ শুরু হওয়ার পর বিশ্ববাসী শুনছে তার উচ্চকণ্ঠ। এছাড়াও মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশটি বেশ কিছু পদক্ষেপ নিয়েছে যাতে মিয়ানমারের সঙ্গে দেশটির কূটনৈতিক সম্পর্কে টানাপড়েন সৃষ্টি হয়েছে। মালয়েশিয়া অনুর্ধ্ব-২২ ফুটবল দল মিয়ানমারের সঙ্গে দুটি প্রীতি ম্যাচ বাতিল করেছে। কুয়ালালামপুরে নিযুক্ত মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূতকেও তলব করেছে দেশটি। মিয়ানমারের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করার দাবি জানিয়েছে মালয়েশিয়ার সরকারি ও বিরোধী দলের যুব সংগঠন। আমানাহ সংগঠনের প্রধান সানি হামজান বলেন, আমরা মালয়েশিয়া সরকারের আবেদন জানাচ্ছি মিয়ানমারের সঙ্গে সব ধরনের কূটনীতিক সম্পর্ক ছিন্ন করার জন্য। একই সঙ্গে মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূতকে মালয়েশিয়া ত্যাগ করতে বাধ্য করার জন্য। মিয়ানমার থেকে মালয়েশিয়ার রাষ্ট্রদূতকেও ফিরিয়ে আনার দাবি জানান। এছাড়া এ বিষয়ে অর্গানাইজেশন অব ইসলামিক কোঅপারেশন, ওআইসির হস্তক্ষেপ ও সংকটপূর্ণ এলাকায় শান্তিরক্ষী পাঠানোর দাবিও জানান তিনি। অবশ্য এ নিয়ে মিয়ানমারের পাল্টা বক্তব্যও এসেছে। গত শুক্রবার মিয়ানমারের পক্ষ থেকে বলা হয়, মালয়েশিয়াকে আশিয়ান নীতি মেনে চলতে হবে এবং সদস্য দেশগুলোর অভ্যন্তরীণ ব্যাপারে নাক গলানো থেকে দূরে থাকতে হবে।
মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজাক গতকাল রোববার বলেছেন, অং সান সুচিকে মিয়ানমারের মুসলিম ‘রোহিঙ্গাদের’ হত্যা বন্ধ করতেই হবে। দেশটিতে চলমান বর্বর এই হত্যাযজ্ঞের ঘটনায় নির্লিপ্ত থাকার জন্য তিনি শান্তির জন্য নোবেল বিজয়ী এই নেত্রীর কঠোর সমালোচনা করেন। পাঁচ হাজার মানুষের উপস্থিতিতে আয়োজিত এক বিশাল সমাবেশে রাজাক বলেন, মিয়ানমার সরকারকে দেশটির পশ্চিম প্রান্তে নৃশংস হত্যাযজ্ঞ বন্ধ করতেই হবে। ওই এলাকা থেকে প্রাণভয়ে কয়েক হাজার মানুষ পালিয়ে যাচ্ছে। রোহিঙ্গাদের ধর্ষণ, নির্যাতন ও হত্যা করার মতো ঘটনার কথা শুনা যাচ্ছে।
নাজিব উপস্থিত জনতাকে প্রশ্ন করেন, অং সান সুচির নোবেল পুরষ্কার কি কাজে লাগছে? তিনি বলেন, আমরা অং সান সুচিকে জানাতে চাই, যথেষ্ট হয়েছে। আমরা অবশ্যই মুসলিম ও ইসলামকে রক্ষা করব। এ সময় তার সমর্থকরা ‘আল্লাহু আকবার’ বলে োগান দেয়। রাজাক আরো বলেন, আমরা চাই এ ব্যাপারে ওআইসি (অর্গানাইজেশন অব ইসলামিক কোঅপারেশন) সক্রিয় ভূমিকা পালন করুক। নাজিব বলেন, দয়া করে কিছু একটা করুন। জাতিসংঘ কিছু করুন। বিশ্ববাসী কাঠের পুতুলের মতো বসে এই গণহত্যার নীরব স্বাক্ষী হতে পারে না। অবশ্য সম্পর্ক ছিন্ন না করার ইঙ্গিত দিয়ে নাজিব রাজাক বলেন, এটা কোনও রাজনৈতিক হস্তক্ষেপ নয় যে, আমরা মিয়ানমারের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করব।
জাতিসংঘ বুধবার জানিয়েছে, সম্প্রতি ১০ হাজারের বেশি রোহিঙ্গা বাংলাদেশে পালিয়ে গেছে। মায়ানমারের রাখাইন রাজ্যে সেনাবাহিনীর হত্যাযজ্ঞ থেকে রোহিঙ্গারা প্রাণভয়ে পালিয়ে যাচ্ছে।
যেসব রোহিঙ্গা জীবিত অবস্থায় বাংলাদেশে পৌঁছাতে পেরেছে তারা বার্তা সংস্থা এএফপিকে মিয়ানমারের নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যদের দ্বারা গণধর্ষণ, নির্যাতন ও হত্যাযজ্ঞের রোমহর্ষক ঘটনার বিবরণ দিয়েছে। মায়ানমার কর্তৃপক্ষ তাদের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ নাকচ করে দিয়েছে। এছাড়াও তারা বিদেশী সাংবাদিক ও নিরপেক্ষ তদন্তকারীদের ওই এলাকায় ঢুকতে দিচ্ছে না।

মতামত...