,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

মেহেরপুরে রঙিন রূপবান শীমের ফলনে আশাবাদী কৃষক

bins2তোজাম্মেল আযম, মেহেরপুর প্রতিনিধি, বিডিনিউজ রিভিউজঃ গাছ, গাছের পাতা সবুজ, ফুল ও ফল রঙিন। স্থানীয়ভাবে এটি রঙির রূপবান নামের শিম।  অনেকেই অল্প পুঁজিতে অল্প জায়গায় বাণিজ্যিক ভিত্তিতে এই রঙিন শিমচাষ করে আর্থিকভাবে লাভবান হচ্ছে। আর এই শীমের নাম রূপবান শীম। জেলার মাঠে মাঠে এই রূপবান রঙিন শীমের আবাদ বেড়েই চলেছে। চোখ জুড়ানো এই রঙিন শীম সহ বিভিন্ন জাতের শিমের সমারোহ চোখে পড়ে মেহেরপুরের মাঠে মাঠে ও বিভিন্ন বাড়ির আঙ্গিনায়। স্থানীয় বাজারের চাহিদা মিটিয়ে সরবরাহ করা হচ্ছে অন্যান্য জেলায়।
সরেজমিনে মেহেরপুরের আমঝুপি গ্রামের মাঠে দেখা গেছেÑ রঙিন শীম গাছ। ছোট-বড় মেঠোপথ ও বাড়ির আঙিনায় লাগানো হয়েছে রঙিন শীম। শীমের ফুল ও ফলন হাসছে পুরো এলাকা। হাসছেন কৃষকেরা।
শীমবাগান থেকে শমি সংগ্রহর সময় কথা হয় আমঝুপি গ্রামের মোনাজাত আলীর সাথে। পঞ্চাষার্ধ বয়সের মোনাজাত জানানÑ জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর থেকে এই শিমের বীজ সংগ্রহ করেন তিনি। একবিঘা জমিতে পরীক্ষা মূলক ভাবে শিম চাষ শুরু। সব মিলিয়ে ২০ হাজার টাকার মতো খরচ হয়। বাজারে শিমের ভালো দাম থাকায় এ পর্যন্ত তিনি ১২হাজার টাকার মতো লাভবান হয়েছেন। বাগানে আরো ২৫Ñ ৩০ হাজার টাকার মতো শিম রয়েছে। সে হিসেবে তিনি আশা করেন ৪০ থেকে ৪২হাজার টাকার মতো লাভ হবে তার।
কৃষক আতিকুর রহমান আক্ষেপ করে বলেন, আধুনিক  প্রযুক্তি সম্পন্ন কোনো কারিগরি প্রশিক্ষণ না থাকায় স্থানীয় চাষীরা সনাতন পদ্ধতিতে শিম চাষ করে থাকে। কঠোর পরিশ্রম ও একাগ্রতা থাকলে যে কেউ সাবলম্বী হতে পারে।
মুজিবনগর উপজেলার কেদারগঞ্জের রফিকুল ইসলাম জানান তিনি ৩ বিঘা জমিতে বাণিজ্যিক ভিত্তিতে রঙিন রূপবান জাতের শীমচাষ করেছেন। রঙিন হবার কারণে বাজারে এই শীমের ব্রাপক চাহিদা। এবং সবুজ শীমের চেয়ে প্রতি কেজিতে এক দুই টাকা বেশী দামে এই শীম বিক্রি করা যায়। এ পর্যন্ত রফিকুল উৎপাদন খরচ তুলে ১ হাজার টাকা লাভ করেছেন। এখনও ৪০ হাজার টাকার বেচাকেনা হবে বলে তিনি আশাপোষন করছেন।
মেহেরপুর জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ পরিচালক এসএম মোস্তাফজুর রহমান জানানÑ গত দশ বছর ধরে মেহেরপুরে রঙিন রূপবান জাতের শীমচাষ হচ্ছে। এই রঙিন শীম সাধারণ শীমের চাষের পদ্ধতিতে চাষ হয়। বর্তমানে মেহেরপুর জেলায় প্রায় দেড়হাজার বিঘা জমিতে রঙিন রূপবান জাতের শীমচাষ হচ্ছে।

মতামত...