,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

মেয়র নাছিরের কাছে ব্যাখ্যা চেয়েছে মন্ত্রণালয়

letter mayorনিজস্ব প্রতিবেদক, বিডিনিউজ রিভিউজঃ পত্রিকায় প্রকাশিত চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিনের বক্তব্যের ব্যাখ্যা চেয়েছে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়। বৃহস্পতিবার স্থানীয় সরকার বিভাগ থেকে মেয়রকে চিঠি দেয়া হয়েছে বলে সূত্র নিশ্চিত করেছে। অতিরিক্ত সচিব (নগর উন্নয়ন) জ্যোতির্ময় দত্তের চিঠিতে সই করেছেন।

গতকাল বুধবার চট্টগ্রাম থিয়েটার ইনস্টিটিউ (টিআইসি) মিলনায়তনে এক অনুষ্ঠানে মেয়র আ জ ম নাছির বলেন, চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের প্রকল্প অনুমোদন ও বরাদ্দ পেতে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘুষ চান। মন্ত্রণালয়ের কিছু কর্মকর্তাকে ৫ শতাংশ করে দিতে রাজি না হওয়ায় করপোরেশনের জন্য পর্যাপ্ত বরাদ্দ তিনি পাননি।

মেয়র বলেন, ‘আমাকে বলা হলো, করপোরেশনের জন্য যত টাকা চাই দেওয়া হবে থোক বরাদ্দ হিসেবে, তবে তার জন্য ৫ শতাংশ করে দিতে হবে। আমি বললাম, এই টাকা কোথায় পাব? বললেন, ঠিকাদারের কাছ থেকে ম্যানেজ করেন। তখন আমি বললাম, এটা পত্রিকায় নিউজ হবে না? ঠিকাদারও তো আমাকে চোর ভাববে? আমি কীভাবে নেব? কেন নেব? আমি কি এটা লিখে দিতে পারব যে মন্ত্রণালয়ে দিতে হবে এই জন্য ৫ শতাংশ করে টাকা কাটব? তখন বলে যে, না এটা বলা যাবে না। আপনি ম্যানেজ করেন। আমি বললাম, না এটা পারব না। বলল, তাহলে হবে না। এ কারণে আমি শুধু ৮০ কোটি টাকা বরাদ্দ পেলাম। যদি ৫ শতাংশ করে দিতে পারতাম, তাহলে ৩০০ থেকে ৩৫০ কোটি টাকা আনতে পারতাম।’ তিনি বলেন, ‘কয়েক দিন আগে একজন যুগ্ম সচিব মেয়রের সব কাজে সহযোগিতা করার আশ্বাস দেন। তবে বিনিময়ে তিনি একটি পাজেরো গাড়ি চেয়েছেন তাঁর কাছে।’

বৃহস্পতিবার এলজিআরডি মন্ত্রণালয়ের চিঠিতে বলা হয়, মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে ঘুষ চাওয়ার যে অভিযোগ তিনি তুলেছেন তা গুরুতর। এতে মন্ত্রণালয় তথা সরকারের ভাবমূতিৃ ক্ষুণœ হয়েছে- যার প্রমাণ দেয়া আবশ্যক। কোন কর্মকর্তা, কোথায়, কখন মেয়রের কাছে ঘুষ দাবি করেছেন, কে, কোথায়, কখন পাজেরো জিপ চেয়েছেন, কোন প্রকল্পের অর্থ ছাড়ে কোন কর্মকর্তা জটিলতা সৃষ্টি করেছেন, তা সুনির্দিষ্টভাবে উল্লেখ করে উপযুক্ত প্রমাণ আগামী সাতদিনের মধ্যে মন্ত্রণালয়ে জমা দেয়ার জন্য চিঠিতে বলা হয়েছে।-ঢাকাটাইমস

মতামত...