,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

মেয়র নাছির সাবেক ২ মেয়রের চিঠির জবাব দেবেন শীঘ্রই

নিজস্ব প্রতিবেদক, বিডিনিউজ রিভিউজ.কম::চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের সাবেক দুই মেয়রের চিঠির জবাব দেবেন বর্তমান মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন।খুব শীঘ্রই তিনি সংবাদ সম্মেলেনের মাধ্যমে তথ্য–উপাত্ত তুলে ধরে তাদের সকল প্রশ্নের জবাব দেবেন বলে জানিয়েছেন মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন।

মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন রবিবার বিষয়টি নিশ্চিত করে বিডিনিউজ রিভিউজ.কমকে বলেন সাবেক দুই মেয়র চিঠি দিয়েছেন এবং আরো অনেকেই নানা অভিযোগ ও প্রশ্ন করেছেন। সবার প্রশ্ন এবং অভিযোগের জবাব এবং ব্যাখ্যা আলাদাভাবে দেয়া সম্ভব নয়। তাই সব প্রশ্নের জবাব সংবাদ সম্মেলনের করে নগরবাসীর কাছে তুলে ধরাই সঙ্গত মনে করছি। দুই সাবেক মেয়রের আমলে হোল্ডিং সংখ্যা কত ছিল। তারা কিভাবে কত এসেসমেন্ট করেছেন। কত কর আদায় করেছেন। গত দুই বছরে আমি কত কর আদায় করেছি এবং তার বিপরীতে কি পরিমাণ সেবা দিয়েছি সবকিছু তুলে ধরার চেষ্টা করবো।

মেয়র আ জ ম নাছির বলেন, সাবেক মেয়র আলহাজ এম মনজুর আলমও এসেসমেন্ট করেছিলেন। তার আমলে প্রায় ১৩ হাজার আপিল আমার আমলে নিষ্পত্তি করেছি। তখন তিনি কত এসেসমেন্ট করেছেন এবং আমি কি পরিমাণ মওকুফ করেছি তাও তুলে ধরার চেষ্টা করবো।

সিটি মেয়র জানান, তথ্য–উপাত্ত তৈরি করতে একটু সময় লাগছে। আগামি বুধবার নাগাদ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করতে পারেন তিনি।

উল্লেখ্য, গত ৩ অক্টোবর নগরীর হোল্ডিং ট্যাক্সের বিষয়ে বর্তমান মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীনকে একটি চিঠি দিয়েছিলেন সাবেক মেয়র এবিএম মহিউদ্দীন চৌধুরী। চিঠিতে তিনি অভিযোগ করেন হালনাগাদকরণে গতবারের এসেসমেন্টের চেয়ে ক্ষেত্র বিশেষে শতগুন বা ততোধিক হারে গৃহকর বৃদ্ধির প্রস্তাব করা হয়েছে। ঘরভাড়া বাবদ আয়ের কর আদায় কোনভাবেই যুক্তযুক্ত নয় বলে তিনি চিঠিতে উল্লেখ করেন। তবে যেসব গৃহের আয়তন, দৈর্ঘ্য ও প্রস্থে বৃদ্ধি পেয়েছে শুধু তাদের ক্ষেত্রে যুক্তিযুক্ত পৌরকর বৃদ্ধির জন্য মহিউদ্দিন চৌধুরী বিশেষভাবে অনুরোধ করেন।

রবিবার চিঠি দিয়েছেন সাবেক মেয়র এম মনজুর আলম। চিঠিতে তিনি বর্তমান এসেসমেন্টের কারণে জন অসন্তোষ বৃদ্ধি পেয়েছে বলে উল্লেখ করে ট্যাক্স সহনীয় পর্যায়ে রাখার অনুরোধ করেন।

করদাতা সুরক্ষা পরিষদের ব্যানারে আন্দোলন চলছে। তারা সংবাদ সম্মেলন করেছেন এবং কাউন্সিলরদের স্মারকলিপি দিয়েছেন।বি এন আর, ৯ অক্টোবর ১৭।

মতামত...