,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে ক্ষেপণাস্ত্র সক্ষমতা বাড়াবে তেহরান

iranনিজস্ব প্রতিবেদক,ঢাকা,১৮, জানুয়ারি (বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকম)::ইরানের ক্ষেপণাস্ত্র কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে যুক্তরাষ্ট্রের নতুন নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে নিজেদের ক্ষেপণাস্ত্র সক্ষমতা বাড়ানোর কাজ চালিয়ে যাবে তেহরান। দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বরাতে তেহরান রেডিও জানিয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের এ ধরনের ‘প্রচারণা হাতিয়ার’র বিরুদ্ধে কঠোর জবাব দেবে তেহরান।

পরমাণু সমঝোতার প্রেক্ষাপটে শনিবার ইরানের ওপর থেকে আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞা উঠে যাওয়ার একদিন পর রোববার তেহরানের ওপর নতুন করে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে ওয়াশিংটন। মার্কিন অর্থ মন্ত্রণালয় জানায়,ইরানের ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র প্রকল্পের কারণে তেহরানের ওপর এ নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে।

এর প্রতিক্রিয়ায় ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে বলা হয়েছে,‘যুক্তরাষ্ট্রের এই প্রোপাগান্ডা স্টান্টবাজির জবাব হিসেবে আমরা আমাদের বৈধ ক্ষেপণাস্ত্র কর্মসূচিকে আরো শক্তিশালী করবো এবং নিজেদের প্রতিরক্ষা সক্ষমতা ও জাতীয় নিরাপত্তার ব্যাপারে কোনো ছাড় দেব না।’

 

এরআগে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির খবরে বলা হয়, যুক্তরাষ্ট্রের আরোপিত নতুন নিষেধাজ্ঞার তীব্র নিন্দা জানিয়েছে তেহরান। তাদের দাবি, এই নিষেধাজ্ঞার কোন নৈতিক এবং আইনগত ভিত্তি নেই।

বিবিসির খবরে বলা হয়, ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একজন মুখপাত্র তার প্রতিক্রিয়ায় বলেছেন, ‘পারমাণবিক অস্ত্র উন্নয়নের জন্য তাদের ক্ষেপনাস্ত্র কর্মসূচির নকশা করা হয়নি।’ ওই মুখপাত্র অভিযোগ করেন, বরং যুক্তরাষ্ট্র প্রতি বছর যে বিলিয়ন বিলিয়ন ডলারের অস্ত্র তৈরী করে তা লেবানন-প্যালেস্টাইন-ইয়েমেনের মানুষদের বিরুদ্ধে সংঘটিত যুদ্ধাপরাধে ব্যবহৃত হয়।

 

শনিবার অস্ট্রিয়ার ভিয়েনায় জাতিসংঘের আনবিক শক্তি সংস্থা (আইএইএ) ঘোষণা দেয়, ইরান পারমাণবিক চুক্তি যথাযথভাবে বাস্তবায়ন করেছে। এরপর ইউরোপীয় ইউনিয়নের পররাষ্ট্র নীতি বিষয়ক প্রধান ফেডেরিকা মোগেরিন ও ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মাদ জাওয়াদ জারিফ ঘোষণা দেন তেহরানের ওপর আরোপিত সব নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করা হয়েছে। এদিন বন্দি বিনিময়ের আওতায় যুক্তরাষ্ট্রে বন্দি সাত ইরানি নাগরিককে মুক্তি দেওয়ার পর তেহরান পাঁচ মার্কিন নাগরিককে মুক্তি দেয়।  পারমাণবিক চুক্তি সঠিকভাবে বাস্তবায়নের পর ইরানের ওপর থেকে আন্তর্জাতিক অর্থনৈতিক অবরোধ প্রত্যাহারের প্রেক্ষাপটে বন্দিবিনিময় হয়।

আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞা উঠে যাওয়ায় ইরানের সামনে হাজার কোটি ডলারের বাণিজ্য উন্মুক্ত হবে। সেই সঙ্গে মুক্ত হবে তাদের তেলের বাজার। প্রায় দুই বছর ধরে আলোচনার পর গত বছর জুলাইয়ে বিশ্ব ছয় শক্তি যু্ক্তরাষ্ট্র, জার্মানি, চীন, রাশিয়া, যুক্তরাজ্য ও ফ্রান্সের সঙ্গে পরমাণু বিষয়ে একটি চুক্তিতে উপনীত হয় ইরান। চুক্তির রূপরেখা এমনভাবে করা হয়েছে যাতে করে ইরান পারমাণবিক বোমা বানাতে না পারে। চুক্তি অনুসারে, ইরান নিজের স্বল্প সমৃদ্ধ ইউরেনিয়াম কমাতে রাজি হয়েছে। যার অর্থ সেন্ট্রিফিউজের পরিমাণ কমানো, যা সমৃদ্ধ ইউরেনিয়াম ব্যবহারে কাজে লাগে। চুক্তির মূল বিষয় ছিল,  ইরান যাতে আগামী ১০ বছরে বোমা তৈরির জন্য যথেষ্ট উপাদান মজুত করতে পারবে না। – বিবিসি

 

মতামত...