,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

রাউজানে জমিয়তুল মোদার্রেছীনের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন সম্পন্ন

এম বেলাল উদ্দিন,রাউজান,২১এপ্রিল, বিডিনিউজ রিভিউজ.কম:: বাংলাদেশ জমিয়তুল মোদার্রেছীনের রাউজান উপজেলার ত্রি-বার্ষিক কাউন্সিল ও সমাবেশ বৃহস্পতিবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত গহিরা এফকে জামেউল উলুম কামিল মাদ্রাসা প্রাঙ্গনে অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা সভাপতি অধ্যক্ষ আলহাজ্ব আল্লামা হাফেজ মুহাম্মদ আবু জাফর সিদ্দিকীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে প্রধান অতিথি ছিলেন সাবেক অধ্যক্ষ ওস্তাজুল ওলামা আলহাজ্ব আল্লামা সৈয়্যদ মুহাম্মদ নুরুল মোনওয়ার (ম,জি,আ)। জমিয়ত সেক্রেটারি মওলানা ইউনুচ রেজভীর পরিচালনায় প্রধান বক্তা ছিলেন বাংলাদেশ জমিয়তুল মোদার্রেছীন চট্টগ্রাম জেলার সাধারন সম্পাদক ও ছিপাতলী কামিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ আলহাজ্ব আল্লামা আবুল ফারাহ মুহাম্মদ ফরিদ উদ্দিন (ম,জি,আ)। এতে উদ্বোধক ছিলেন গহিরা আলিয়ার অধ্যক্ষ আলহাজ্ব আল্লামা ইব্রাহীম নঈমী। বিশেষ অতিথি ছিলেন অধ্যক্ষ মওলানা ছাফওয়ানুল করিম,উপাধ্যক্ষ আলহাজ্ব আল্লামা মুহাম্মদ ফজলুল হক ইসলামাবাদী,অধ্যক্ষ মওলানা আবদুল মান্নান,অধ্যক্ষ আবু মোস্তফা আল কাদেরী,উপাধ্যক্ষ আল্লামা সাইদুল আলম খাকী,অধ্যাপক আল্লামা মুহাম্মদ নুরুল মোনাওয়ার চৌধুরী,রাউজান প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি এম বেলাল উদ্দিন, বর্তমান সাধারন সম্পাদক এস এম ইউছুফ উদ্দিন, সুপার আল্লামা হাফেজ শাহ্ আলম,মওলানা আবুল মুনছুর,মাহবুবুল আলম,অধ্যাপক লিয়াকত আলী,অধ্যাপক নাজমুল হুদা প্রমুখ। এতে প্রধান বক্তা আবুল ফারাহ মুহাম্মদ ফরিদ উদ্দিন বলেন আজকে সারা বাংলাদেশে মাদ্রাসা শিক্ষার জন্য জমিয়তুল মোদার্রেছীন কেন্দ্রীয়ভাবে যে ভুমিকা পালন করতেছে সেটির সুফল প্রতিটি মাদ্রাসার শিক্ষক কর্মচারীরা ভোগ করতেছে। তিনি বলেন মাদ্রাসার প্রতিটি শিক্ষক-কর্মচারীর দাবী দাওয়া নিয়ে জমিয়তুল মোদার্রেছীন যে কাজ করে যচ্ছে সেটি সরকার করতে বাধ্য হচ্ছে। তিনি আরো বলেন জমিয়তুল মোদার্রেছীন প্রতিষ্ঠা হওয়ায় আজ রাউজান উপজেলার সমস্ত মাদ্রাসার শিক্ষক-কর্মচারীর একসাথে মিলিত হওয়ার সুযোগ হয়েছে। যদি এই সংগঠনটি না থাকত তাহলে আমরা একে অপরকে চিনতামওনা এমনকি কোন দাবী দাওয়া রাউজান থেকে গিয়ে ঢাকায় বলতেও পারতাম না। আজ জমিয়তুল মোদার্রেছীন বাংলাদেশের মধ্যে একটি সেরা সংগঠনে পরিনত হওয়ায় সকল দাবী দাওয়া সরকারের নিকট উপাস্থাপনের সুযোগ হয়েছে। এবং রাতদিন এই সংগঠনের সভাপতি দৈনিক ইনকিলাব সম্পাদক আলহাজ্ব এ এম এম বাহাউদ্দীন ও মহাসচিব আল্লামা সাব্বির আহমদ মোমতাজি মাদ্রাসা শিক্ষার উন্নতির জন্য নিরলস কাজ করে যাচ্ছেন। তিনি মাদ্রাসার সকল শিক্ষক-কর্মচারীকে জমিয়তুল মোদার্রেছীনের সাথে সম্পৃক্ত রেখে কাজ করার আহব্বান জানান। এদিকে ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনকে কেন্দ্র করে ৩৩ টি মাদ্রাসার প্রায় ৭০০ শিক্ষক-কর্মচারী এ অনুষ্ঠানে যোগ দেন। এর আগে সকাল ৯টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত ৪৮১ জন ভোটার একমাত্র সাংগঠনিক সম্পাদক পদে প্রতিদন্ধি ৩ প্রার্থীর যতাক্রমে মুহাম্মদ সরোয়ার উদ্দিন,মুহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম,মুহাম্মদ হারুনুর রশীদ কে ভোট প্রদান করেন। এতে ১৮১ ভোট পেয়ে মুহাম্মদ হারুনুর রশীদ নির্বাচিত হন। এই উপলক্ষে সাদা ভাত আর গরুর মাংস দিয়ে মেজবানের আয়োজন চলে সকলের জন্য। প্রতি ৩ বছর অন্তর জমিয়তুল মোদার্রেছীনের এ আয়োজনে মাদ্রাসার সমস্ত শিক্ষক-কর্মচারীকে ঈদের আনন্দে মেতে উটতে দেখাযায়। একে অপরের সাথে কুশল বিনিময় ও বিভিন্ন আলাপে মাতিয়ে রাখে অনুষ্ঠানস্থল। গহিরা মাদ্রাসার ময়দানটি ভরপুর ছিল শিক্ষক কর্মচারীর আগমনে। ত্রি-বার্ষিক কাউন্সিলে নির্বাচিতরা হলেন সভাপতি অধ্যক্ষ হাফেজ মুহাম্মদ আবু জাফর,সহ সভাপতি আবু তৈয়ব মুহাম্মদ আবদুল হাই,সহ সভাপতি মুহম্মদ আবুল হাসেম,সাধারন সম্পাদক আল্লামা কাজী মুহাম্মদ ইউনুচ রেজভী,যুগ্ন সম্পাদক মোহাম্মদ নাসির উদ্দিন চেšধুরী,সহ সম্পাদক মুহাম্মদ ওসমান গনী,সহ সম্পাদক মুহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম,সাংগঠনিক সম্পাদক মুহাম্মদ হারুনুর রশিদ,অর্থ সম্পাদক অধ্যক্ষ আবদুল মান্নান চৌধুরী, হিসাব নিরীক্ষক মুহাম্মদ নাছির উদ্দিন,দপ্তর সম্পাদক মুহাম্মদ শিহাবুল আলম,প্রচার সম্পাদক মুহাম্মদ হানিফ উদ্দিন।

মতামত...