,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

রাষ্ট্রধর্ম নিয়ে বিএনপি ও জাপার ভূমিকা পরিস্কার করার দাবী হেফাজতের

hafajat logoনিজস্ব প্রতিবেদক,  বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকমঃ  চট্টগ্রামে,  রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম আমাদের সংবিধানে বলবৎ আছে আশা করি তা বহাল থাকবে। বাংলাদেশ স্বাধীন ওহয়ার পর থেকে ক্ষমতাশীনরা যার যার ইচ্ছা মত সংবিধান সংশোধন করেছেন। অনেক ইসলামকে সমুন্নত রেখে আবার অনেকে ইসলামকে চিরতরে বিদায় জানিয়ে। ক্ষমতা গ্রহণের প্রাক্কালে সবাই ইসলামের জন্য মায়া কান্না করে মৌলবাদী লেবাস পোশাক, মাজারে মাজারে জেয়ারত ও ধর্মকে নির্বাচনী হাতিয়ার হিসাবে ব্যবহার করে সাধারণ মুসলমানদেরকে ধোকা দিয়ে নির্বাচনী বৈরী পরিবেশ পার হয়ে ইসলামের পায়তারা শুরু করেন। বর্তমানে আমাদের প্রধানমন্ত্রী বিরোধীদলীয় নেত্রী, মন্ত্রী সভা, সংসদ সদস্যগণ, স্পিকার ও প্রশাসনের সংখ্যাগরিষ্ট কর্তারা সবাই মুসলমান। মৃত্যুর পর কবরের অন্যতম প্রশ্ন হবে যে, আপনারা কোন ধর্মের অনুসারী ছিলেন ? কবরে কিন্তু ধর্মনিরপেক্ষবাদ বললে তার আজাব কি হবে সাবার জানা আছে। তবুও কেন আমাদের বোধগম্য নয় যে ইসলাম ধর্ম নিয়ে এতো বাড়াবাড়ি, এতো টানা হেছড়া? নাস্তিকের দল যতোই কথা বলুক যতোই আমাদের প্রলোবন দেখাবে আল্লাহর ওয়াস্তে আমরা মুসলমান হয়ে কবরে যাওয়ার জন্য আখেরাতে মুক্তির জন্য প্রধানমন্ত্রী থেকে প্রশাসনের সবাই ইসলামের পক্ষে শেষ নিঃশ্বাস পর্যন্ত কাজ করে যেতে হবে। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন তার সরকার ইসলামের ক্ষতি হয় এমন কোন কাজ করবেন না। সংবিধানে ইসলামের শেষ চিহ্নটুকু মুছে দিতে নাস্তিকেরা আবারো আদালতের উপর চওয়ার হয়েছে। এই মূহুর্তে প্রধানমন্ত্রী সহ বিরোধী দলীয় নেতা সাংসদগণ ইসলামকে রক্ষা করতে চুপ না থেকে   এ ব্যাপারে বি.এন.পি, এরশাদের ভূমিকা জাতি জানতে চায়।

বহদ্দারহাটস্থ অস্থায়ী কার্যালয়ে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ চট্টগ্রাম মহানগরীর উদ্যোগে আয়োজিত স্বাধীনতা ও ইসলাম শির্ষক আলোচনা সভায় হেফাজতে ইসলাম কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব ও চট্টগ্রাম মহানগর সেক্রেটারী মাওলানা মঈনুদ্দীন রুহী প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোল্লিখিত বক্তব্য দেন। চট্টগ্রাম মহানগরীর নায়েবে আমির মাওলানা লোকমান হাকিমের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা আজিজুল হক ইসলামাবাদী, সহ সেক্রেটারী মাওলানা মোজাম্মেল হক, অর্থ সম্পাদক মাওলানা কাতেব ইলিয়াছ ওসমানী, মাওলানা ফয়সাল তাজ, মাওলানা জালাল উদ্দিন, মাওলানা আ.ন.ম আহমদ উল্লাহ, মাওলানা আবু তাহের, মাওলানা জুনাইদ জওহর, মাওলানা জয়নাল কুতুবী, মাওলানা ইউনুছ, মাওলানা আনোয়ার হোসেন রাব্বানী, মাওলানা ইকবাল খলিল, মাওলানা ওসমান কাসেমী প্রমুখ। জনাব রুহী বলেন রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম এটা সরকারকে বিব্রত করে সরকারের অর্জনকে ধুলুয় মিশে দেওয়ার অপকৌশল মাত্র। নাস্তিকদের ব্যাপারে সরকারকে হুশিয়ার থাকতে হবে। তিনি হুশিয়ার করে বলেন সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম কে বাদ দেওয়া হলে আপনারদের যাই আছে তাই নিয়ে রাস্তায় নেমে আসতে হবে। জীবনের বিনিময়ে ইসলামকে রক্ষা করতে হবে। বাংলাদেশ আলেম ওলামা ও তৌহিদী জনতার দেশ এটা নাস্তিকদেরকে ইজারা দেওয়া চলবে না। এবারের সংগ্রাম ইসলাম রক্ষার সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম নাস্তিকদের কবর রচনার সংগ্রাম। তৌহিদী জনতার বিজয় হবেই হবে। ইনশা আল্লাহ।  –  প্রেস রিলিজ।

মতামত...