,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

রাষ্ট্রধর্ম রীট বাতিলেরদাবিতে চট্টগ্রামে হেফজতের বিক্ষোভ সমাবেশ

aনিজস্ব প্রতিবেদক,  বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকমঃ চট্টগ্রাম ,  সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্ম মুছে দেওয়ার ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদে অনুষ্ঠিত বিশাল সমাবেশে হেফাজতে ইসলামের নেতারা হুসিয়ারী করেছেন- আগামী ২৭ তারিখ সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্ম ইসলামকে বাদ দেয়ার রায় দেয়া হলে পরদিন থেকে সারাদেশ অচল করে দেয়া হবে। প্রয়োজনে শাপলা চত্বরের মত আবারো রক্তের বন্যা বয়ে যাবে। তার পর ইসলামের মর্যদা ক্ষুন্ন হতে দেবেনা এদেশের তৌহিদী জনতা।

তারা বলেন-এদেশে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম ছিল, আছে এবং থাকবে, কোন অপশক্তি সংবিধান থেকে ইসলামকে বাদ দিতে পারবে না।

শুক্রবার জুমার নামাজের পর চট্টগ্রাম মহানগরীর আন্দরকিল্লা শাহী জামে মসজিদ চত্বরে অনুষ্ঠিত বিক্ষোভ সমাবেশে এ হুঁসিয়ারী উচ্চারণ করেন হেফাজতের নেতারা।

সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্ম মুছে দেওয়ার ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদে দেশব্যাপী বিক্ষোভ ও মিছিল কর্মসূচির অংশ হিসেবে এ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশ শেষে পুলিশী বাধা উপেক্ষা করে হাজার হাজার সাধারণ মানুষ ও হেফাজতের নেতাকর্মীরা বিক্ষোভ মিছিল বের করে। এসময় লালদীঘি, আন্দরকিল্লা, জামালাখান, চেরাগী পাহাড়, মোমিন রোড এলাকায় যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। বিপুল সংখ্যক পুলিশ, বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার লোকজন ও সংবাদ কর্মীরা আন্দরকিল্লা’র আশে পাশে অবস্থায় নেয়।

সমাবেশকে কেন্দ্র করে পুরো এলাকায় টান টান উত্তেজনা দেখা দিলেও শেষ পর্যন্ত শান্তিপূর্ণভাবে কর্মসূচি শেষ হয়।

সমাবেশে হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রিয় মহাসচিব আল¬ামা হাফেজ জুনাইদ বাবুনগরী বলেন, রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম রক্ষার জন্য প্রয়োজনে বুকের তাজা রক্ত ঢেলে দিব। তার পরও ইসলামের মর্যদাহানী হতে দেবো না। তিনি বলেন, রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম হলে কারো সমস্যা হওয়ার কথা না। হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রীষ্টানসহ সব ধর্মের লোকজন শান্তিতে থাকবে। কারণ ইসলাম শান্তির ধর্ম। এখানে জঙ্গি কিংবা সন্ত্রাসের কোন স্থান নেই।

তিনি জাতীয় ফুল, জাতীয় মাছ, জাতীয় ফল, জাতীয় পাখি এবং রাষ্ট্র ভাষার উদাহারণ টেনে বলেন, এসব যদি সংবিধানে থাকতে পারে তাহলে ৯৫ ভাগ মুসলমানের ধর্ম ইসলাম রাষ্ট্রধর্ম হতে পারবে না কেন ?

জুনাইদ বাবুনগরী বলেন, আমরা কারো পক্ষে-বিপক্ষে না, কাউকে ক্ষমতায় রাখা বা ক্ষমতাচ্যূত করা আমাদের উদ্দেশ্য নয়। গদি দখল করারও ইচ্ছা আমাদের নেই। আমরা ইসলামের পক্ষে। ইসলাম নিয়ে কেউ ষড়যন্ত্র করলে আমরা প্রাণ দিতে পারবো।

সমাবেশে হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রিয় যুগ্ন মহাসচিব মাঈনুদ্দিন রুহি বলেন, বাংলাদেশ বর্তমানে ক্রান্তিকাল অতিক্রম করছে। কোটি কোটি টাকা লোপাট হয়েছে। সে ঘটনা ধামাচাপা দিতেই সরকার এ মূহুর্তে সংবিধান থেকে ইসলামকে বাধ দেয়ার রীটটি সামনে এনেছে। তিনি সরকারের উদ্দেশ্যে বলেন, ইসলাম ধর্ম নিয়ে খেলা করবেন না। সংবিধান থেকে যদি ইসলাম ধর্ম মুছে ফেলার চেষ্টা হয় তাহলে এ চট্টগ্রাম থেকেই যুদ্ধ ঘোষণা করা হবে।

হেফাজত নেতা আজিজুল হক ইসলামাবাদি সেক্যুলার রাষ্ট্র ভারতের ইন্দনে এ ষড়যন্ত্র হচ্ছে উল্লেখ্য করে বলেন, ধর্ম নিরপেক্ষ ভারতে প্রতিনিয়ত মুসলিম সংখ্যালঘুর উপর অত্যচার নির্যাতন চালানো হচ্ছে। বাংলাদেশে যদি তাদের কথামত ধর্ম নিরপেক্ষ শাসন ব্যবস্থা চালু হয় তাহলে হিন্দু বৌদ্ধ খিষ্ট্রানদের অবস্থা কি হবে সে ব্যাপারটিই চিন্তা করা দরকার। রাষ্ট্রের যদি কোন নির্দিষ্ট ভাষা থাকে তাহলে নির্দিষ্ট ধর্ম থাকতে সমস্যা কোথাই?

তিনি প্রধানমন্ত্রীকে ব্যবস্থা নেয়ার দাবী জানিয়ে বলেন, আগামী ২৭ তারিখ যদি কোন ধরণে উল্টাপাল্টা রায় হয় তাহলে নাস্তিক্যবাদের বিরুদ্ধে জেহাদের ডাক দেয়া হবে।

সমাবেশে হেফাজতের কেন্দ্রিয় অর্থ সচিব ইলিয়াছ ওসমানী, ঢাকা মহানগর যুগ্ন মহাসচিব মুফতি ফখরুল ইসলাম, হেফাজত নেতা আহসান উল্লাহ মাষ্টার, ইঞ্জিনিয়ার শামসুল হক, এডভোকেট নিজাম উদ্দিন, আ ন ম আহমদ উল্লাহ,মওলানা ইসহাক, কামরুল ইসলাম কাসেমী, জয়নাল আবেদিন কুতুবী, জুনায়েদ জহুর, জালাল উদ্দিন, আব্দুর রউফ,আশরাফ বিন মওদুদ, ওসমান কাসেম ও মাওলানা সাব্বির আহমদ বক্তব্য রাখেন।

মতামত...