,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা নিবেদন

111aনিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকা , বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকম:: একুশের প্রথম প্রহরে জাতির পক্ষ থেকে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে মহান ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

 

রাত ১২টা ১টি মিনিটে প্রথমে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ এবং পরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। পুষ্পস্তবক অর্পণ শেষে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী কিছুক্ষণ নীরবে দাঁড়িয়ে থাকেন।

 

রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা নিবেদনের পর রাত ১২টা ৪৫ মিনিট পর্যন্ত জাতীয় সংসদের স্পিকার, মন্ত্রী, কূটনীতিকসহ বিশিষ্ট ব্যক্তিরা শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানাবেন। এ সময় অন্য কাউকে সেখানে প্রবেশ করতে দেওয়া হবে না। পরে শহীদ মিনার সবার জন্য উন্মুক্ত করা হবে।

 

কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার ও এর আশপাশের এলাকায় শনিবার সন্ধ্যা ৭টা থেকে পরদিন ২১ ফেব্রুয়ারি দুপুর ২টা পর্যন্ত ১৯ ঘণ্টা সব ধরনের যান চলাচল নিষিদ্ধ করেছে ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি)।

 

ডিএমপি কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া জানান, কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারকে ঘিরে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা বেষ্টনী গড়ে তোলা হবে। থাকবে চার স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা। প্রথম স্তরে শহীদ মিনার কেন্দ্রিক, দ্বিতীয় স্তরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জগন্নাথ হল, টিএসসি ও ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল; তৃতীয় স্তরে পলাশী, চানখাঁরপুল ও হাইকোর্ট এলাকা এবং চতুর্থ স্তরের নিরাপত্তায় থাকবে ওয়াচ টাওয়ার, হেলিকপ্টারে পর্যবেক্ষণ ও উচু ভবনের ছাদ থেকে নজরদারি। শহীদ মিনারের প্রত্যেকটি প্রবেশ মুখে থাকবে আর্চওয়ে, চেকপোস্ট, মেটাল ডিটেক্টর সার্চ ব্যবস্থা, উন্নত ট্রাফিক ব্যবস্থা ও রোডম্যাপ। পুরো কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার এলাকা থাকবে সিসি (ক্লোজ সার্কিট) ক্যামেরার নিয়ন্ত্রণে।

 

তিনি আরো জানান, ওইদিন শহীদ মিনার এলাকায় পুলিশের পোশাকে ৮ হাজার এবং সাদা পোশাকে আরও ১ হাজার সদস্য দায়িত্ব পালন করবেন। এ ছাড়া রাজধানীতে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর ২০ হাজার সদস্য নগরবাসীর নিরাপত্তায় নিয়োজিত থাকবেন।

বি এন আর/০০১৬০০২০২০/০০১১০/বি

মতামত...