,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

রিহ্যাব চট্টগ্রাম ফেয়ার বুধবার শুরু র‌্যাডিসনে: এক ছাদের নিচে সাধ ও সাধ্যের প্লট ফ্ল্যাট

নাছির মীর, ৭ ফেব্রুয়ারী বিডিনিউজ রিভিউজ.কম::‘স্বপ্নীল আবাসন সবুজ দেশ লাল সবুজের বাংলাদেশ’- এ স্লোগান নিয়ে আগামী ৮ থেকে ১১ ফেব্রুয়ারি ১০ম বারের মত রিহ্যাব চট্টগ্রাম ফেয়ার-২০১৭ শুরু হচ্ছে র‌্যাডিসন ব্লু চিটাগং বে-ভিউতে। এবারের ফেয়ারে ৭২টি প্রতিষ্ঠানের ৯০ টি স্টল থাকছে। রিহ্যাব ফেয়ার সাধ ও সাধ্যের মধ্যে মনের মত ফ্ল্যাট বা প্লট খুঁজে নিতে ক্রেতাদের সাহায্য করবে। মেলায় শুধুমাত্র অনুমোদিত প্রকল্পের প্লট, ফ্ল্যাট ও কমার্শিয়াল স্পেস বিক্রয় হবে।

রিয়েল এস্টেট এ্যান্ড হাউজিং এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (রিহ্যাব) এর ‘রিহ্যাব চট্টগ্রাম ফেয়ার-২০১৭’ উপলক্ষে গতকাল সোমবার চট্টগ্রাম ক্লাব অডিটরিয়াম আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে রিহ্যাবের ভাইস প্রেসিডেন্ট ও রিহ্যাব চট্টগ্রাম রিজিওনাল কমিটির চেয়ারম্যান আবদুল কৈয়ূম চৌধুরী এতথ্য জানান। লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, এই ফেয়ারে আমরা আর্থিক প্রতিষ্ঠানসহ কয়েকটি লিংকেজ প্রতিষ্ঠানকে অংশগ্রহণ করার সুযোগ করে দিতে পেরেছি। এই ফেয়ারে কো-স্পন্সর হিসাবে অংশগ্রহণ করছে ২২টি প্রতিষ্ঠান। ১০ টি বিল্ডিং ম্যাটিরিয়াল প্রতিষ্ঠান ও ৮ টি ফিনান্সিয়াল ইন্সটিটিউট স্টল গ্রহণ করে আবাসন ব্যবসার প্রসারে রিহ্যাবের সহ-উদ্যোগ হিসেবে অংশগ্রহণ করছে।
তিনি বলেন, শহরমুখী মানুষেরা জীবন ও জীবিকার প্রয়োজন মেটাতে রাজধানী ঢাকার পর দিনে দিনে আরো ব্যস্ত হয়ে উঠেছে এই বাণিজ্যিক নগরী চট্টগ্রাম। শুধু বাণিজ্যিক রাজধানীই নয়, প্রকৃতির অবাধ লীলাভূমি চট্টগ্রামে পর্যটকদের আনাগোনাও বাড়ছে দিনকে দিন। চট্টগ্রামবাসীর আবাসনের পাশাপাশি পর্যটকদের জন্যও আবাসন নিশ্চিত করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে রিহ্যাব সদস্যরা। চট্টগ্রামের আবাসন ব্যবসায়ীদের তথা চট্টগ্রাম অঞ্চলের আবাসন খাতকে পরিপূর্ণরূপে সহায়তা দিতে ২০০৬ সালের অক্টোবরে কার্যক্রম শুরু হয় চট্টগ্রাম রিহ্যাব জোনাল অফিসের। এরপর থেকে চট্টগ্রামবাসীর জন্য নান্দনিক ও পরিকল্পিত নগরায়নের পাশাপাশি নিরাপদ বিনিয়োগ নিশ্চিত করতে কাজ করে যাচ্ছে রিহ্যাব।
কৈয়ুম চৌধুরী বলেন, ১৯৯২ সালে মাত্র ১১ জন সদস্য নিয়ে রিহ্যাবের যাত্রা শুরু হয়। সেদিনের সেই রিহ্যাব এ বছর তার রজতজয়ন্তী উদ্যাপন করছে। গত ৫ জানুয়ারি রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ এই রজতজয়ন্তী উদ্বোধন করেন। বর্তমানে রিহ্যাবের সদস্য সংখ্যা ১০৭৩ এবং চট্টগ্রাম রিজিওনের সদস্য ৮৮টি ডেভেলপার প্রতিষ্ঠান। রিহ্যাবের এই দীর্ঘ পথ পরিক্রমায় নানা চড়াই উৎরাই-এর মধ্য দিয়ে যেতে হয়েছে। রিহ্যাবের সাবেক নেতৃবৃন্দ এই সকল প্রতিবন্ধকতা দূর করতে বিভিন্ন চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করেন।
তিনি বলেন, মৌলিক চাহিদার অন্যতম আবাসনের চাহিদা পূরণের নৈতিক দায়িত্ব সরকারের হলেও সীমিত সম্পদের এই দেশে সরকারের একার পক্ষে একাজ করা সম্ভব নয়। ক্রমবর্ধমান চাহিদাকে বিবেচনায় রেখে দেশের আবাসন সমস্যা সমাধানে সরকারের ‘উন্নয়ন সহযোগী’ হিসেবে রিহ্যাব সদস্যরা কাজ করে যাচ্ছে। আবাসন শিল্প বিগত তিন থেকে চার বছরের স্থবিরতা কাটিয়ে ঘুরে দাঁড়াতে শুরু করেছে একথা উল্লেখ করে বলেন, সিঙ্গেল ডিজিট সুদে ব্যাংক লোন, এফডিআর-এর সুদের হার হ্রাস এবং বহুল প্রতিক্ষিত প্রবাসীদের জন্য ব্যাংক লোন প্রদানের সরকারি সিদ্ধান্তের কারণে এই খাতে আশার আলো সৃষ্টি হয়েছে। মানুষ পুনরায় আবাসন খাতে বিনিয়োগে আগ্রহী হয়ে উঠছে। সরকার ইতিমধ্যেই প্রথম শ্রেণীর কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দের জন্য ৫% সুদে ব্যাংক ঋণ দেয়ার ঘোষণায় আমরা আশা করছি খুব শিঘ্রই এই খাত আরও গতিশীল হয়ে উঠবে। আবাসন ব্যবসার পাশাপাশি আবাসন খাতের সাথে সম্পর্কিত প্রায় দুইশতাধিক লিংকেজ শিল্পও বিকাশ লাভ করবে। প্রকারান্তে দেশের অর্থনীতি সমৃদ্ধ হবে।
জাতীয় প্রবৃদ্ধিতে প্রায় ১৪% ভূমিকা রাখা এই খাত সরকারের পৃষ্ঠপোষকতা এবং সরাসরি সহযোগিতা পেলে এই শিল্প আরও মানুষের জন্য মাথা গোঁজার ঠাঁই করে দিতে পারবে। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত করার জন্য রোডম্যাপ ঘোষণা করেছেন। সকলের জন্য আবাসন নিশ্চিত না করে কোন দিনই মধ্যম আয়ের দেশে রুপান্তর করা সম্ভব হবে না। তাই গৃহায়ণ শিল্পকে পৃষ্ঠপষোকতা দেয়া অতীব জরুরি। এই খাতের সমস্যাগুলো সমাধানে সরকারি সহযোগিতা না পেলে আমাদের উদ্যোগগুলো অসম্পূর্ণ থেকে যাবে।
আগামী জাতীয় বাজেট অর্থ মন্ত্রণালয়সহ সরকারের বিভিন্ন পর্যায়ে ‘৫% থেকে ৭% সুদে দীর্ঘমেয়াদী ২০ হাজার কোটি টাকার তহবিল’, রেজিস্ট্রেশন ব্যয়, ট্যাক্স ও ভ্যাট হ্রাসের দাবি জানিয়ে বলেন, ভবন নির্মাণকালীন বিদ্যুতের রেট শিল্প রেটে নির্ধারণ করা এবং এলপি গ্যাস সিলিন্ডার সহজলভ্য না হওয়া পর্যন্ত নির্মাণাধীন প্রকল্পসমূহে পাইপ লাইনের গ্যাস নিশিচত করা প্রয়োজন। ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যার দেশে ভূমির পরিকল্পিত ব্যবহার নিশ্চিত করতে ব্যক্তি পর্যায়ে প্লট বরাদ্দ না দিয়ে বেসরকারি উদ্যোক্তাদের সংগঠন রিহ্যাব সদস্যদের মাধ্যমে ফ্ল্যাট তৈরি করে নির্ধারিত মূল্যে সকলের জন্য আবাসন নিশ্চিত করার সুযোগ আছে। সরকারের নিয়ন্ত্রক সংস্থা ও ইউটিলিটি সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানসমূহের সহযোগিতা নিশ্চিত করা গেলে আবাসন খাত আরও সমৃদ্ধ হবে। মানুষের মৌলিক চাহিদা ‘বাসস্থান’ পূরণের পাশাপাশি শিল্প-কারখানা ও দেশের অর্থনীতির সমৃদ্ধি ঘটবে।
এবারের মেলার কো-স্পন্সর প্রতিষ্ঠানসমূহ হল : এয়ারবেল ডেভেলপমেন্ট টেকনোলজিস লিমিটেড, আকিজ সিরামিক্স লিঃ, আমিন মোহাম্মদ ল্যান্ডস ডেভেলপমেন্ট লিমিটেড, এএনজেড প্রপার্টিজ লিঃ, এশিয়ান টাউন ডেভেলপমেন্ট লিঃ, সিএ প্রপার্টি ডেভেলপমেন্ট লিমিটেড (সিপিডিএল), সিটি হোম প্রপার্টিজ লিমিটেড, কনকর্ড রিয়েল এস্টেট এ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট লিমিটেড, এলিট পেইন্ট, এপিক প্রপার্টিজ লিমিটেড, ইক্যুইটি প্রপার্টি ম্যানেজমেন্ট প্রাঃ লিমিটেড, ফিনলে প্রপার্টিজ লিমিটেড, জুমাইরা হোল্ডিংস লিমিটেড, কেএসআরএম স্টীল প্ল্যান্ট লিঃ, মাওলানা ডেভেলপমেন্ট কোম্পানি লিমিটেড, নাভানা রিয়েল এস্টেট লিমিটেড, রাকিন ডেভেলপমেন্ট কোম্পানি (বিডি) লিমিটেড, র‌্যাংকস এফসি প্রপার্টিজ লিমিটেড, সানমার প্রপার্টিজ লিমিটেড, সেভেন প্রপার্টিজ লিঃ, সুবর্ণভূমি হাউজিং লি., ইউনিক এসেট্স লিমিটেড।
‘রিহ্যাব চট্টগ্রাম ফেয়ার-২০১৭’ এ ইভেন্ট স্পন্সর প্রতিষ্ঠানসমুহ হল : উদ্বোধনী অনুষ্ঠান স্পন্সর এন মোহাম্মদ প্লাস্টিক ইন্ডাষ্ট্রিজ লিঃ, র‌্যাফেল ড্র পুরস্কার স্পন্সর ‘হোটেল দি কক্স টুডে, টিকেট কাউন্টারের স্পন্সর মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক লি., তথ্য কেন্দ্র ও এন্টি গেট স্পন্সর আরামিট গ্রুপ, শিশু চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা স্পন্সর রতনপুর স্টিল রি-রোলিং মিলস্ লি. (আরএসআরএম), সমাপনী অধিবেশন স্পন্সর এলিট পেইন্ট।
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন রিহ্যাবের ডিরেক্টর ও ফেয়ার স্ট্যান্ডিং কমিটির চেয়ারম্যান শাকিল কামাল চৌধুরী, রিহ্যাবের পরিচালক ও চট্টগ্রাম রিজিওনাল কমিটির কো-চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ওমর ফারুক, ইঞ্জিনিয়ার মো. দিদারুল হক চৌধুরী, প্রেস এন্ড মিডিয়া চট্টগ্রাম রিজিয়নের আহবায়ক এ এস এম আবদুল গাফফার মিয়াজী।
উদ্বোধন : ৮ ফেব্রুয়ারি প্রধান অতিথি হিসেবে রিহ্যাব ফেয়ারের উদ্বোধন করবেন গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রী ইঞ্জি. মোশাররফ হোসেন, এমপি। বিশেষ অতিথি থাকবেন নূরুন্নবী চৌধুরী (শাওন), এমপি, এবং সিডিএ চেয়ারম্যান আবদুচ ছালাম। সকাল ১১ টায় উদ্বোধনী অধিবেশন অনুষ্ঠিত হবে হোটেল রেডিসন ব্লু- চিটাগং বে ভিউ এর মোহনা হল, লেভেল-৪ এ। রিহ্যাব ফেয়ার চট্টগ্রাম ২০১৭ এর উদ্বোধনী অধিবেশনের প্রথম লগ্নে রিহ্যাব চট্টগ্রাম রিজিওনাল কমিটির পক্ষ থেকে প্রথমবারের মত ২০টি শারিরীক ও মানসিক চ্যালেঞ্জড শিশু-কিশোরকে দৈনন্দিন ব্যবহারের সরঞ্জাম প্রদান করা হবে। রিহ্যাব রজতজয়ন্তী উদ্যাপনের অংশ হিসেবে আজ মঙ্গলবার সকাল ১১ টায় একটি ‘সাইকেল র‌্যালী’ এর আয়োজন করা হয়েছে। এই র‌্যালির মধ্য দিয়ে সমগ্র চট্টলাবাসীর কাছে রিহ্যাব রজতজয়ন্তীর শুভেচ্ছা বার্তা পৌঁছে দেয়া হবে। ১০ ফেব্রুয়ারি শুক্রবার সকাল ১০ টায় মোহনা হল (লেভেল-৪), হোটেল রেডিসন ব্লু-তে শিশু-কিশোরদের জন্য আয়োজন করা হয়েছে শিশু চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা। ঐ দিন সকাল ৯ টা হতে অংশগ্রহণকারীদের রেজিষ্ট্রেশন এবং ১০ টা থেকে মূল চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা শুরু হবে। দু’টি শাখায় এ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হবে।
ক শাখা : ২য়-৪র্থ শ্রেণী, বিষয় : আমার বাড়ি এবং খ শাখা: ৫ম-৮ম শ্রেণী, বিষয় : শীতের সকাল।

মতামত...