,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

শহিদ মুক্তিযোদ্ধা জসীমের মায়ের সুখের দিন আজ

aনিজস্ব প্রতিবেদক, বিডিনিউজ রিভিউজঃ মীর কাসেমের ফাঁসি কার্যকর হওয়ায় শহিদ কিশোর মুক্তিযোদ্ধা জসীম আর তার মায়ের সুখের দিন আজ; জাতির কলঙ্কমোচনের দিন।

চট্টগ্রামের টেলিগ্রাফ অফিস সংলগ্ন মহামায়া ভবন দখল করে সেদিনের গড়ে ওঠা ডালিম হোটেলে নির্যাতিত এবং প্রাণ হারানো শত-শত মানুষের স্বস্তির এক দিন। চট্টগ্রামের জল্লাদ খ্যাত মীর কাসেমের ফাঁসির মধ্যদিয়ে নিভৃতে চোখের পানি ফেলে যাওয়া স্বজন হারানোর হাহাকার, ক্ষোভ ও দুঃখ-বেদনার অবসানের দিন আজ।

মীর কাসেমের বিরুদ্ধে ট্রাইব্যুনালের আনা ১৪টি অভিযোগের মধ্যে শুধু মাত্র কিশোর মুক্তিযোদ্ধা জসিম হত্যার দায়ে মৃত্যুদণ্ডের আদেশ ব্হাল রাখে আপিল বিভাগ। সেদিনের কিশোর মুক্তিযোদ্ধা জসিমকে দীর্ঘদিন আটক রেখে নির্যাতন করে হত্যা করে হয় ডালিম হোটেলে। এরপর তাকে সহ আরও পাঁচ জনের লাশ ভাসিয়ে দেওয়া হয় কর্ণফুলী নদীতে। সেদিনের নিহত কারও-ই লাশ খুঁজে পায়নি স্বজনেরা। কথিত আছে: মৃত্যুর আগে জসিমের শেষ ইচ্ছে ছিলো মায়ের হাতে ভাত খাওয়া। কিন্তু মানুষ রূপী ওই নরপিশাচেরা সেদিন তাকে তো সে সুযোগই দেইনি। উল্টো নির্মম নির্যাতনের পর হত্যা করে। ওই দিনের নিহত জসিমের মা স্বাধীনতার পরও প্রায় ১৬ বছর বেঁচে ছিলেন। কিন্তু ছেলের শেষ ইচ্ছের কথা জানার পর আর কোনো দিনই ভাত স্পর্শ করেননি।

মতামত...