,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

শেখ হাসিনাই দক্ষিণ এশিয়ার সুপার মুন: নৌ পরিবহন মন্ত্রী শাহজাহান খান

bবাবুল হোসেন বাবলা, চট্টগ্রাম, বিডিনিউজ রিভিউজ.কম:: চট্রগ্রাম বন্দর ২০১৫সালে ২০লাখ (ইটি ইউ এস) কন্টেইনার হ্যান্ডলিং করায় শ্রমিকদের উৎসাহ বোনাস প্রদান কালে নৌ পরিবহন মন্ত্রী শাহজাহান খান ১৬ নভেম্বর বুধবার প্রধান অতিথির বক্তব্যে বলেন,বর্তমান সরকারে প্রধানমন্ত্রী ,জননেত্রী শেখ হাসিনা দেশের যে অভ’ত পূর্ব উন্নয়ন করে যাচ্ছে তা দেখে বিশ্ব মোড়লরা এই সরকারের প্রধান কে আজ রোড মডেল ওদক্ষিণএশিয়ার সুপার মুন হিসেবে ও স্বীকৃতি দিচ্ছেন বলে ঘোষিত হয়েছে।এই স্বীকৃতি শুধু শেখ হাসিনার একার নহে,তা এই বন্দরের শ্রমিকদের তারাই অর্জিত ॥ আর এই অর্জনেএকটি পক্ষ বিরোধীতা বন্দর কে ধর্বংসের দিকে ধাবিত চোর-ডাকাতবা মাফিয়া বলে শ্রমিকদের উত্তেজিত করার গভীর ষড়যন্ত্র করছেন।
এই ষড়যন্ত্র প্রতিহত করতে শ্রমিকদের সচেতন হয়ে ঐক্য বদ্ধ থাকতে দৃঢ় আহবান জানান । তিনি শ্রমিকদের স্বার্থ স্দ্ধিভালো ভাবে নিরাপূনকরতে বন্দর চেয়ারম্যান কে বিশেষ নির্দেশ দেন । শ্রমিকদেও স্বাস্থ্য,শিক্ষা-প্রশিক্ষন এবংন্যায্য দাবি দাওয়ার জন ট্রেড ইউনিয়ন সুবিধা চালুুর আস্বাশ প্রদান করে।তিনি আরো বলেন,প্রায় ৬.৮০০শ্রমিকের জন্য ঝুঁকি ভাতা,দূর্যোগকালীন সেবার বোনাস,শীতকালীন পোষাক এবংন্যায্য মূল্যে খাদ্য কর্মসুচির সুযোগ সুবিধা বৃদ্ধি করার কথাও বলেন।
তিনি হুশিয়ারি দিয়ে বলেন,গুটিকয়েক চক্রান্তকারী মোড়ল রা এই অপার উৎপাদনশীল ও আয় বর্ধক ্রপ্রতিষ্টানের ক্ষতিকার হয়ে উঠলে শ্রমিকরাই এর প্রতিরোধ গড়বে।তিনি শ্রমিদের বলেন, উসকানী দাতাদের পিছনে না ছুটে বন্দরের উন্নয়ন ও উৎপাদন এবং রক্ষার পিছনে ছোটুন। তাতে দেশ হবে উন্নত এবং আগামী ২০৪০সালের মধ্যে বাংলাদেশ হবে উন্নয়নশীল-চির উন্নত।
এর আগে বন্দর চেযারম্যান রিয়ার এডমিরাল এম .খালেদ ইকবালের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন সিটি মেয়র আ.জ.ম নাছির উদ্দিন। তিনি বলেন,২২দাফে উন্নত হওয়া চট্রগ্রাম বন্দর নিয়ে যারা গলাবাজি আর অপরাজনীতিচার করে শ্রমিকদের মাঠে নিয়ে মিথ্যাচার বক্তব্য দিয়ে উত্তেজনা করছেন তাদের কে পিছনে ফেলে সামনে সিড়িতে দেশেরজন্য অনন্যা অবদান রাখার শপথ নিতে অনুরোধ জানান।তিনি বর্তমান সরকারের উদ্যোগে দেশের ৫০লক্ষ পরিবারের নিকট ১০টা দরে চাল বিক্রি এবং ন্যায্য মূল্যে খাদ্য্র বিতরন কর্মসূচিকে যুগান্কারী এবং শ্রমিকবান্দব বলে অভিমত দেন।
অনুষ্ঠানে আরো বিশেষ অতিথির বক্তব্যে চট্রগ্রাম-১১আসনের সাংসদ এম.এ. লতিফ বলেন,চট্রগ্রাম বন্দরের উন্নয়ন কাজের ভুন্ডল করতে চাবিহাতে বন্দর কে পূর্বে ধবংস করে শ্রমিকশ্র্রেনির ন্যায্যতা কেড়ে নিয়েছেন তারা আবারো মাঠে-ময়দানে চোর,ডাকাত ও মাফিয়া বলে মিথ্যা অপবাদ ছড়িয়ে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টিকরার পায়ঁতারা করছে।তিনি বলেন,অচিরেই আরো একটি পতেঙ্গা টার্মিনাল নির্মাণকরা ঘোষনাই প্রমাণ করে কারা মাফিয়া আর কারা চোর-ডাকাত ছিল।তিনি বার্থ অপারেটর,টার্মিনার অপারেটরর শিপ হ্যান্ডলিং অপারেটর মালিক শ্রমিকদেও উদ্দেশ্য করে বলেন,দেশের সকল উন্নয়নে শ্রমিকশ্রেনির অর্জন কে কাঠো করবেন না।তাই আজকের সেই উৎসাহ বোনাস এটি একটি বিরল পাওনা ।
অনূষ্ঠানে এই প্রথম ২০জন শ্রমিক কে উৎসাহ বোনাস প্রদান করলেও আগামী তেএই ধারা অব্যাহেত রাখতে মন্ত্রীর নিকট দাবি জানা ন বন্দর,পতেঙ্গা-ইপিজেড আসনের সাংসদ এম,এ.লতিফ।
এসময় চট্রগ্রাম বন্দর উন্নয়ন ও পরিকল্পনা কমিটির সদস্য মোঃ জাফর আহম্মদ,বিআই ডব্লিও র’ পরিচালক মোঃ মোজাােেম্মল,কাস্টম চেয়ারম্যান,চেম্বার পরিচালক-মাহফুজুল হক শাহ এবং মেট্্েরাপলিটন চেম্বারের প্রতিনিধি,শ্রমিক সংগঠনের প্রতিনিধি উপস্থিত ছিলেন।পরে মন্ত্রীর নিজের হাতেই ২০জন শ্রমিক কে ৭হাজার টাকার চেক তুলে দেন ।অুনষ্টানটি বন্দরের নব-নির্মিত কার স্টোরের সামনেই সম্পন্ন হয় ।

মতামত...