,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

শেখ হাসিনার সরকারের অধীনেই নির্বাচন হবে : বাণিজ্যমন্ত্রী তোফয়েল আহমেদ

নিউজ ডেস্ক, বিডিনিউজ রিভিউজ.কম::বাণিজ্যমন্ত্রী তোফয়েল আহমেদ বলেছেন আগামী নির্বাচন হবে সংবিধান অনুসারে ক্ষমতাশীন দলের অধীনেই। নির্বাচন কমিশন নির্বাচন পরিচালনা করবে এবং ক্ষমতাশীন দল অন্তর্বর্তীকালীন সরকার হিসেবে দায়িত্ব পালন করবে। এর বাইরে সহায়ক সরকার বলে কিছু নেই। তত্ত্বাবধায়ক সরকার আর পৃথিবীর আলো দেখবে না। বিএনপি নির্বাচনে আসতে চাইলে এই শর্ত মেনেই নির্বাচনে আসতে হবে। আমরা সকলের অংশগ্রহণে একটি সুন্দর নির্বাচন চাই। তবে বিএনপি সংবিধান মেনে নির্বাচনে না আসলে আমাদের কিছু করার নেই।

শুক্রবার সকালে নগরীর হালিশহরে আবাহনী মাঠে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি (সিএমসিসিআই) আয়োজিত মাসব্যাপী বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক বাণিজ্য ও রপ্তানি মেলা–২০১৭ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

কেডিএস গ্রুপের চেয়ারম্যান ও সিএমসিসিআই এর সভাপতি খলিলুর রহমানের সভাপতিত্বে আয়োজিত মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সাবেক মন্ত্রী ডা. আফছারুল আমিন এমপি ও শামসুল হক চৌধুরী এমপি।

বিএনপির সমালচনা কারে বাণিজ্যমন্ত্রী আরো বলেন, ‘২০১৩ সালে তারা ষড়যন্ত্রের চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়েছে। ২০১৫ সালে ৯৩ দিন হরতাল–অবরোধের মধ্যদিয়ে জ্বালাও–পোড়াও চালিয়ে নিষ্পাপ শিশু হত্যা করেছে। বিএনপিকে তাদের ব্যর্থ জ্বালাও–পোড়াও রাজনীতি থেকে বের হয়ে এসে সংবিধান মেনে নির্বচনে আসতে হবে। উন্নয়ন পরিকল্পনা সম্পর্কে মন্ত্রী বলেন, ‘দেশের আইসিটি, চামড়া, ঔষুধ ও সিরমিক শিল্প থেকে বিলিয়ন ডলার আয়ের পরিকল্পনা করা হয়েছে। যার মাধ্যমে বাংলাদেশ অচিরেই উন্নত রাষ্ট্রে পরিনত হবে। আর সে লক্ষ্যে আন্তর্জাতিক মেলা বাংলাদেশকে বিশ্ববাসীর কাছে তুলে ধরে’।

সাবেক মন্ত্রী ডা. আফছারুল আমিন এমপি বলেন, হালিশহর এলাকায় এই আন্তর্জাতিক মেলা আয়োজন করায় এলাকাবাসী অত্যন্ত আনন্দিত। আন্তর্জাতিক মেলার কারণে এই এলাকায় দেশি বিদেশি মানুষের আগমন বাড়বে এবং সেই সাথে এলাকার উন্নয়নও হবে।

শামসুল হক চৌধুরী এমপি বলেন, চট্টগ্রামের সব বিশিষ্ট ব্যবসায়ীদের নিয়ে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি গঠিত হয়েছে। মুনাফা অর্জনের লক্ষে সিএমসিসিআই বাণিজ্য মেলার আয়োজন করে না। এই আন্তর্জাতিক মেলার মুল উদ্দেশ্য হলো দেশে উৎপাদিত পণ্য বিশ্ববাসীর কাছে তুলে ধরা। তিনি আরো বলেন, ১.১৭ হাজার বর্গফুটের মাঠে আয়োজিত মেলায় ২০০টি স্টল ও প্যাভিলিয়ন থাকছে। একটি পানির ফোয়ারা ও একটি টাওয়ার নির্মান করা হয়েছে। ফায়ার সার্ভিসের সাথে নিরাপত্তায় পুলিশ বাহিনী ও র‌্যাবের টহল থাকবে। টিকেট কাউন্টার, টয়লেট, নামাজের জন্য নারী পুরুষের আলাদা জায়গার ব্যবস্থা করা হয়েছে।
সিএমসিসিআই এর সভাপতি খলিলুর রহমান বলেন দেশনেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। বর্হিবিশ্বে আজ বাংলাদেশকে আলাদাভাবে চিনছে। স্বপ্নের পদ্ধা সেতু আজ দৃশ্যমান। এসব সম্ভব হয়েছে দেশনেত্রী শেখ হাসিনার দুরদর্শিতার কারণে। এই মেলার মাধ্যমে দেশের বাণিজ্য নতুন মোড় পাবে। বিদেশের সাথে দেশের নতুন নতুন বাণিজ্য চুক্তি হবে। যার মাধ্যমে দেশের কাঙ্খিত লক্ষে পৌঁছাতে সাহায্য করবে।
মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সিএমসিসিআই’র সহ সভাপতি এ এম মাহবুব চৌধুরী, এম এ মালেক, মো. আবদুস ছালাম, পরিচালক জসিম উদ্দিন চৌধুরী, ড. মহিসন জিল্লুর করিম, আমিসুজ্জামান ভূঁইয়া, প্রফেসর জাহাঙ্গীর চৌধুরী, আবু সাঈদ চৌধুরী, লোকমান হাকিম, ডব্লিউআরআই মাহমুদ রাসেল, মোহাম্মদ মহসিন, সুলতানা শিরিন আক্তার ও কাউন্সিলর এরশাদুল্লাহ প্রমুখ।

মতামত...