,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

শেয়ারবাজারে ক্ষতিগ্রস্তদের শতভাগ সুদ মওকুফের সিদ্ধান্ত আইসিবির

Iftekhar-uz-zaman icbনাছির মীর , বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকমঃ ঢাকা, দেশের শেয়ারবাজারে  ক্রান্তিকাল চলছে। বিনিয়োগকারীদের আস্থা ফেরাতে সরকার ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোর নানা ধরণের ব্যবস্তা ও  আশ্বাসের পরও পুঁজিবাজারে পতন ঠেকানো যাচ্ছে না । এই ক্রান্তিকাল থেকে উত্তরণের জন্য ও বাজারকে স্থিতিশীল রাখতে সর্বাত্মক চেষ্টা করছে পুঁজিবাজারে ‘প্রাণ’ বলে খ্যাত সরকারি প্রতিষ্ঠান ইনভেস্টমেন্ট কর্পোরেশন অব বাংলাদেশ (আইসিবি)। এই চেষ্টার নেতৃত্বে রয়েছেন নতুন ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মো. ইফতেখার-উজ-জামান। তিনি ৩৩ বছর ধরে পুঁজিবাজারের সঙ্গে কাজ করছেন। ফেব্রুয়ারির প্রথম সপ্তাহে দায়িত্ব নেয়ার পর থেকে বাজারসংশ্লিষ্ট সব রথী-মহারথীর সঙ্গে একের পর এক বৈঠক করছেন। এরই মধ্যে গত ৫ বছরে পুঁজিবাজারে বিনিয়োগ করে ক্ষতিগ্রস্ত ৪২ হাজার বিনিয়োগকারীর শতভাগ সুদ মওকুফের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এই সময়ে ক্ষতিগ্রস্ত সব বিনিয়োগকারীদের ক্ষতি পূরণের উদ্যোগ নিয়েছেন। সম্প্রতি বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকমের সঙ্গে একান্ত আলাপচারিতায় এসব তথ্য জানান তিনি।
 বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকমঃ  নতুন দায়িত্ব পালনে আপনার অনুভূতি কেমন?
ইফতেখার-উজ-জামান: প্রথমে আমি ধন্যবাদ জানাই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং অর্থমন্ত্রীকে। আমাকে প্রতিষ্ঠানটির এমডি হিসেবে দায়িত্ব পালনের সুযোগ দেয়ার জন্য। আশা করছি, সততা ও দক্ষতার সঙ্গে ভালভাবে কাজ করে যাব। গত ৩৩ বছর যাবত (১৯৮৩-২০১৬) সিনিয়র অফিসার থেকে উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক (ডিএমডি) পদে আইসিবিতে নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করেছি। আশা করছি আগামীতেও তা অব্যাহত থাকবে।
বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকমঃ এমডি হিসেবে আইসিবির জন্য আপনার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা কি?
ইফতেখার-উজ-জামান: পুঁজিবাজার স্থিতিশীল না থাকলে দেশের অর্থনীতির ভিত মজবুত হয় না। তাই আইসিবির মূল কাজ পুঁজিবাজারে স্থিতিশীলতায় কাজ করা।  এমডি হিসেবে আমি আইসিবির ভবিষ্যৎ পরিকল্পনায় পুঁজিবাজারে স্থিতিশীল রাখাকে বেশি গুরুত্ব দিচ্ছি। আইসিবিতে একটি রিসার্র্চ টিম রয়েছে। এই টিমকে আরো দক্ষ ও বাজারবান্ধব পুঁজিবাজার ভিক্তিক রিসার্চ অর্থাৎ রিসার্চ অরিয়েন্টেন্ড কাজ করার পরিকল্পনা হাতে রয়েছে। এ ছাড়াও কর্মকর্তা-কর্মচারীদের পুঁজিবাজারভিত্তিক প্রশিক্ষণ দেয়া। এতে নতুন নতুন পণ্য সম্পর্কে কর্মীদের ধারণা দেয়া হবে।
বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকমঃ পুঁজিবাজারকে স্থিতিশীল রাখতে কি কি উদ্যোগ নিচ্ছেন?
ইফতেখার-উজ-জামান: বাজারকে স্থিতিশীল রাখতে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি), বাংলাদেশ ব্যাংক, অর্থ মন্ত্রণালয়, স্টক এক্সচেঞ্জদ্বয়, মার্চেন্ট ব্যাংকসহ বাজারসংশ্লিষ্ট সব প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে একাধিক বৈঠক করেছি। বিশেষ তহবিলের মাধ্যমে শেয়ার কিনে বাজার সাপোর্ট দেয়ার পাশাপাশি ২০১০ সাল থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত গত ৫ বছরে লোন নিয়ে পুঁজিবাজারে বিনিয়োগ করে ক্ষতিগ্রস্ত বিনিয়োগকারীদের সব সুদ মওকুফ করার উদ্যোগ নিয়েছি। এই লক্ষ্যে আইসিবির অধীনে থাকা প্রতিষ্ঠানের মোট ৪২ হাজার বিনিয়োগকারীর ৭০ থেকে ১০০ শতাংশ সুদ মওকুফ করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছি। মার্চেন্ট ব্যাংক ও ব্রোকারেজ হাউসের মাধ্যমে যারা পুঁজিবাজারে বিনিয়োগ করেছেন তাদের সুদও মওকুফের বিশেষ উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।
বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকমঃ বিনিয়োগকারীদের অভিযোগ আইসিবি শেয়ার বিক্রি করে বাজারকে প্রভাবিত করে, এ বিষয়ে আপনার বক্তব্য কি?
ইফতেখার-উজ-জামান: আইসিবির জন্মই মার্কেট সাপোর্ট দেয়ার জন্য। প্রতিষ্ঠানটি সংকটের সময় শেয়ার কিনে বাজারকে সাপোর্ট দেয়। বিনিয়োগকারীদের এ অভিযোগ ঠিক নয়, শেয়ার বিক্রি করে বাজারকে প্রভাবিত করার অভিযোগটি বানোয়াট ও  ভিত্তিহীন। বাজার সইতে পারবে না, আইসিবি এমন কোনো কাজ করে না। যে সময় বাজার শেয়ার গ্রহণ করতে পারে আইসিবি তখনই শেয়ার বিক্রি করে।
বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকমঃ বর্তমান বাজারে বিনিয়োগকারীদের কি ধরনের প্রদক্ষেপ নেয়া উচিত?
ইফতেখার-উজ-জামান: আমাদের পুঁজিবাজার গুজবনির্ভর। এই বাজারে অনেক খেলা হয়। এর ফলে সূচক পতন হয়। তাই বলে সূচক কমে গেলেই সব ব্যবসা শেষ হয়ে গেল তা নয়, সূচক কমে গেলে ব্যবসা  কমে যাবে না। গত ৫ বছরের আইসিবির প্রতিবেদনে দেখবেন, অধিকাংশ কোম্পানির লোকসান হয়েছে।  অথচ সেই সময়ে আইসিবির মুনাফা বেড়েছে। তাই বিনিয়োগকারীদের উচিত ভালো কোম্পানিতে বিনিয়োগ করা। পুঁজিবাজার নিয়ে আমাদের প্রত্যাশা অনেক। বাজারকে তার নিজস্ব গতিতে চলতে দিতে হবে। কোম্পানির সার্বিক অবস্থা দেখে বুঝে শুনে বিনিয়োগ করতে হবে। কারো কথায় বা গুজবে শেয়ার বেচা-কেনা করা যাবে না। বিনিয়োগ করতে হবে দীর্ঘ মেয়াদি। এখন মানি মার্কেটের যে অবস্থা তাতে দীর্ঘমেয়াদি বিনিয়োগ করলে পুঁজিবাজার থেকে বেশি লাভ করা সম্ভব।
বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকমঃ কেমন চলছে ইক্যুইটি অ্যান্ড এন্টারপ্রেনারশিপ ফান্ড (ইইএফ)?
ইফতেখার-উজ-জামান: এই ফান্ডের কার্যক্রম সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে চলছে। ঝুঁকিপূর্ণ কিন্তু সম্ভাবনাময় খাদ্য প্রক্রিয়াজাতকরণ ও কৃষিভিত্তিক শিল্প এবং তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) খাতে ইইএফ ফান্ড বিনিয়োগ করে দেশের অর্থনীতিতে ব্যাপক অবদান রাখছে। পুঁজিবাজারেও তার ইতিবাচক প্রভাব পড়ছে। এরই মধ্যে এই ফান্ডটি জনপ্রিয়তা পেয়েছে। নতুন করে এ ফান্ডের জন্য একটি নীতিমালা করা হচ্ছে। শিগগিরই এটি চূড়ান্ত হবে। এ নীতিমালা হলে এটি আরো সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে চলবে।

 

বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকমঃ ব্যস্থতার মাঝে  বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকমকে সময় দেয়ায় আপনাকে ধন্যবাদ।

ইফতেখার-উজ-জামান: বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকম পরিবার ও এর সকল পাঠককে ধন্যবাদ।
বি এন আর/০০১৬০০৩০০২/০০০৩৩৫/এস

মতামত...