,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

শ্রমিকদের অধিকার আদায়ের আন্দোলনে পাশে থাকবো: মেয়র

aনিজস্ব প্রতিবেদক, বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকমঃ চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আলহাজ্ব আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেছেন, শ্রমিকদের রক্ত ও ঘামে বিশ্ব সভ্যতা গড়ে উঠেছে। শ্রমিকদের অবহেলা বা তাদেরকে অধিকার থেকে বঞ্চিত করার চেষ্টা শুভ লক্ষণ নয়।মে দিবস শ্রমিকদের অধিকার বুঝে নেয়ার দিন, দৃপ্ত শপথে বলিয়ান হয়ে উৎসব করার দিন। তিনি বলেন, ১৩০ বছর আগে ১৮৮৬ সনের ১ মে যুক্তরাষ্ট্রের শিকাগো শহরে শ্রমিকেরা ৮ ঘন্টা কর্ম দিবসের দাবীতে সংগ্রাম করতে গিয়ে প্রাণ দিয়েছিলেন। সেই ঐতিহাসিক দিবসকে সামনে রেখে পরবর্তীতে বিশ্ব শ্রমিক সমাজ শোষণ-বঞ্চনার বিরুদ্ধে অধিকার আদায়ের সংগ্রাম চালিয়েছে। মেয়র আরো বলেন, শ্রমিক সমাজ বাংলাদেশের বর্তমান অর্থনৈতিক অগ্রগতির মূল চালিকা শক্তি। সেই সকল শ্রমিকদের ঘামে ভেজা শ্রমের উপর ভর করেই সরকার ২০২১ সালের ভিশন ‘রূপকল্পের বাংলাদেশ’ বাস্তবায়নের পথে এগিয়ে চলেছে। বক্তব্যে সিটি মেয়র আরো বলেন, বাংলাদেশকে নি¤œমধ্য আয়ের দেশ থেকে মধ্য আয়ের দেশে পরিণত করতে হলে শ্রমিক সমাজকে সম্মিলিত ভাবে কাজ করতে হবে। নিজেদের অধিকার আদায়ে সব সংকীর্ণতা, স্বার্থপরতা পরিহার করে সামষ্টিক স্বার্থের পতাকা তলে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। ১ মে ২০১৬ রবিবার বিকেলে চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার চত্বরে জাতীয় শ্রমিকলীগ চট্টগ্রাম মহানগর আয়োজিত মে দিবসের আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন। প্রধান অতিথি আরো বলেন, হকারদেরকে পূনর্বাসনের লক্ষ্যে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন যে পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে- হকার সমাজের প্রতি শ্রদ্ধা,সম্মান এবং তাদের অধিকার সংরক্ষণের বিষয়টি মাথায় রেখেই তা করা হয়েছে। চট্টগ্রাম নগরীকে একটি পরিবেশ বান্ধব আধুনিক,স্মার্ট নগরীতে রূপান্তর করার জন্য শ্রমিক সমাজের ঐকান্তিক অংশগ্রহণ ও সহযোগিতা প্রত্যাশা করেন তিনি। সিটি মেয়র বলেন,হকার ও শ্রমিকদের ন্যায্য অধিকার ও দাবী আদায়ের আন্দোলনে পাশে আছি থাকবো। জাতীয় শ্রমিকলীগ চট্টগ্রাম মহানগর সভাপতি বখতেয়ার উদ্দিন খানের সভাপতিত্বে ও শফি বাঙালির সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান বক্তা কেন্দ্রীয় শ্রমিক লীগ যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব শফর আলী বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা সরকার দেশের মেহনতি মানুষের মুখে হাসি ফুটানোর লক্ষ্যে ভূমিহীনদের পূনর্বাসন, বন্ধ মিল কারখানা চালু, গার্মেণ্টস শিল্প শ্রমিকের মজুরি বৃদ্ধি,পে কমিশন ঘোষণা, মঞ্জুরি কমিশন গঠনসহ নানামুখী উদ্যোগ বাস্তবায়ন করেছেন। শ্রমিক সমাবেশে বক্তব্য রাখেন- নগর আওয়ামী লীগ শিল্প ও বাণিজ্য বিষয়ক সম্পাদক মাহবুবুল হক মিয়া, উত্তর জেলা জাতীয় শ্রমিক লীগ সভাপতি শফিউল আজম, ৩৯ নং ওয়ার্ডের সাবেক কমিশনার আসলাম হোসেন, চসিক কাউন্সিলর হাসান মুরাদ বিপ্লব,এইচএম সোহেল, আবদুল কাদের, মাজহারুল ইসলাম, শ্রমিক নেতা সিরাজুল ইসলাম, আবদুল মতিন মাস্টার, চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন কর্মচারী লীগের সভাপতি দোস্ত মোহাম্মদ,সাধারণ সম্পাদক মোরশেদ আলম, কার্যকরি সভাপতি জাহেদুল আলম, যমুনা কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি ইয়াকুব, মহিলা শ্রমিক লীগের সভাপতি নাসরিন আকতার, সাধারণ সম্পাদক আনোয়ারা আলম, ইদ্রিস হাওলাদারসহ বেসিক ইউনিয়ন, ওয়াসা শ্রমিক কর্মচারী ইউয়িনের সভাপতি সালাউদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক তাজুল ইসলাম, কার্যকরি সভাপতি জামাল উদ্দিন চৌধুরী, সোনালী ব্যাংক কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি ছৈয়দুল আলম, সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম, জনতা ব্যাংক কর্মচারী ইউনিয়নের (সিবিএ) সভাপতি আবু তাহের জিহাদী, সাধারণ সম্পাদক আবুল কাসেম, কৃষি ব্যাংক কর্মচারী ইউনিয়নের (সিবিএ) সভাপতি নজরুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক ইমাম হোসেন, বন্দর শ্রমিক কর্মচারী পরিষদের (সিবিএ) সহ-সভাপতি রফি উদ্দিন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আবুস ছাদেক নান্না, সদস্য নাঈমুল ইসলাম ফটিক, বন্দর ব্যবহারকারী প্রতিষ্ঠানের শ্রমিক কর্মচারী লীগের সভাপতি ইমাম হোসেন, সাধারণ সম্পাদক আলমগীর, পতিঙ্গা বেড়িবাধ সমবায় aসমিতির সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক নিজাম উদ্দিন, চট্টগ্রাম ফুটপাত হকার সমিতির সভাপতি নুরুল আলম লেদু, সাধারণ সম্পাদক মো. শফি, চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন হকার সমিতির সভাপতি মিরন হোসেন মিরন, সহ-সভাপতি নুরুল আমিন মিয়া, শাহআলম ভূঞা, চট্টগ্রাম হকার লীগের সভাপতি ঋষি বিশ্বাস, সাধারণ সম্পাদক মো. হারুন, সিটি হকার্স লীগের সাধারণ সম্পাদক আজগর, ঘাট ঘুদাম শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক রাজা, আমিন জুট মিল ওয়াকার্স ইউনিয়নের কার্যকরি সভাপতি মো. ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল মান্নান, কোষ্টার হ্যাজ শ্রমিক ইউনিয়নের বাবুল মাঝি, আলমগীর, জসিম উদ্দিন, বিপনী বিতান দোকান কর্মচারী সমিতির সভাপতি আলমগীর, সাধারণ সম্পাদক মো. জাহাঙ্গীর, জহুর মার্কেট দোকান কর্মচারী সমিতির সভাপতি শাহাবুদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক প্রদীপ বড়–য়া, তামাকুন্ড লেইন দোকান কর্মচারী সমিতির সভাপতি বখতেয়ার, সাধারণ সম্পাদক সালাউদ্দিন, লাখী প্লাজা দোকান কর্মচারী সমিতির সভাপতি জাহাঙ্গীর বেগ, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মান্নান, নাসিরাবাদ আঞ্চলিক শ্রমিক লীগের পক্ষে জেমসন এন্ড নিকলসন সভাপতি রাসেল, সাধারণ সম্পাদক নিজাম উদ্দিন, বিএসআরএম এর সভাপতি আনোয়ার, সাধারণ সম্পাদক বাদশা ও বাস্তুহারা লীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল কাসেম প্রমুখ।

৬নং ওয়ার্ডে নতুন কবরস্থানের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করলেন  সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন

চট্টগ্রাম নগরীর ৬ নং ওয়ার্ডের তাজ উদ্দিন শাহ মাজর সংলগ্ন গুরানী সিকদার বাড়ীর পাশে ২ গন্ডা জায়গার উপর গণ কবরস্থান প্রতিষ্ঠা করছেন ৬ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর এম আশরাফুল আলম। তাঁর নির্বাচনী ওয়াদা অনুযায়ী নিজ খরচে সর্ব সাধারনের জন্য এই কবরস্থান প্রতিষ্ঠা করেছে। মীযাবে রহমত নামে এ কবরস্থানটি ২ মে ২০১৬ খ্রি. সোমবার আনুষ্ঠানিক ভাবে উদ্বোধন করেন সিটি মেয়র আলহাজ্ব আ জ ম নাছির উদ্দীন। তিনি ভিত্তি ফলক উম্মোচন এবং মোনাজাতের মধ্য দিয়ে কবরস্থানটি উদ্বোধন করেন। এ উপলক্ষে অনুষ্ঠিত সুধি সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন মিযাবে রহমত গণ কবরস্থানের প্রতিষ্ঠাতা ৬ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর এম আশরাফুল আলম। সুধি সমাবেশে প্রধান অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আলহাজ্ব আ জ ম নাছির উদ্দীন। বিশেষ অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক এম রেজাউল করিম চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক নোমান আল মাহমুদ, মহিলা সম্পাদিকা ও প্যানেল মেয়র মিসেস জোবাইরা নার্গিস খান,কাউন্সিলর হারুন উর রশিদ, কাউন্সিলর মো. গিয়াস উদ্দিন, কাউন্সিলর সাইফুদ্দিন খালেদ, কাউন্সিলর মো. মোর্শেদ আলম, ৬ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি শামসুল আলম, ১৮ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের আলহাজ্ব মো. ইউনুছ কোং, আবু সৈয়দ, সিজেকেএস যুগ্ম সম্পাদক আমিনুল ইসলাম, ওয়ার্ড আওয়ামলীগের সহ সভাপতি মো. ইসহাক সহ আবদুর রহিম, মোরশেদ উজ জামান খসরু, কফিল উদ্দিন, মঞ্জুর আলম মঞ্জু, মাহবুব আলম, কাবেতুর রহমান কচি, সফিউল বাহার সহ আওয়ামীলীগ, আওয়ামীযুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগ ও ছাত্রলীগের স্থানীয় নেতৃবৃন্দ। কবরস্থান উদ্বোধন অনুষ্ঠানে সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেন, প্রতিটি মানুষের শেষ ঠিকানা মাটি। মাটিতে জন্ম মাটিতেই দাফন। শুন্য হাতে আগমণ, শুন্য হাতে প্রস্থান- এ বিষয়টি সকলেই অবগত আছেন। তা সত্বেও পৃথিবীতে সংঘাত, হানাহানি, বিবাদ-বৈষম্য, বিদ্বেষ চলমান আছে। মেয়র বলেন, কেউ কেউ বিভিন্ন সভা সমাবেশে মুখে সুন্দর সুন্দর মধুর বাণী উচ্চারন করেন তাদের অন্তরে বিষ, বাস্তবে দ্বিমূখী আচরন, তা পরিহার না করলে দুনিয়ার শান্তি আর আখেরাতের মুক্তি আসবেনা।প্রসঙ্গক্রমে মেয়র বলেন, এক শ্রেনীর রাজনীতিবিদ আছেন যাদের পেশা রাজনীতি। এটাকে পূঁজি করে অনৈতিক পথে বিত্তশালী হয়ে থাকেন। তারা দেশ ও সমাজ এর জন্য কোন অবদানই রাখতে চান না -যা কাম্য নয়। সিটি মেয়র বলেন, জনগনের ভোটে নির্বাচিত হয়েছি নাগরিক দায়িত্ব পালন করার জন্য, এই দায়িত্ব জনগণের আস্থা অর্জন করে শতভাগ পালন করতে চাই। তিনি বলেন, জন প্রত্যাশা শতভাগ পুরণ করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। আশা করি নগরবাসীর সহযোগিতা পেলে তা বাস্তবে প্রতিফলিত হবে। জনাব আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেন, পরিচ্ছন্নতা ঈমানের অঙ্গ-এ লক্ষ্য বাস্তবায়নে রাতে আবর্জনা অপসারন, ডোর টু ডোর আবর্জনা সংগ্রহ কার্যক্রম হাতে নেয়া হয়েছে। এ কাজটি যতই কঠিন হউক না কেন তা বাস্তবায়ন করা হবে। ৩১ ডিসেম্বর ২০১৬ এর মধ্যে নগরবাসীর ঘরে ঘরে গিয়ে আবর্জনা সংগ্রহ করা হবে। ২০১৭ সনের ডিসেম্বরের মধ্যে নগরীকে শতভাগ বিউটিফিকেশনের আওতায় আনা হবে। আগামী ৩ বছরের মধ্যে নগরীকে শতভাগ আলোকিত এবং উন্নত করা হবে। এ প্রসঙ্গে মেয়র বলেন, ২০১৭ সনে ৪০ ভাগ, ২০১৮ সনে ৪০ ভাগ, ২০১৯ সনের মধ্যে বাকী ২০ ভাগ উন্নয়ন কাজ সু-সম্পন্ন করে নগরীর অলি-গলি সহ সকল সড়ক পাকা সড়কে উন্নীত করা হবে। তিনি হিংসা-প্রতিহিংসা ভুলে মিলে মিশে উন্নয়ন কাজে সকলের সহযোগিতা প্রত্যাশা করেন।

৮ নং সংরক্ষিত ওয়ার্ড কাউন্সিলর মিসেস নিলু নাগের কার্যালয় উদ্বোধন করলেন সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের ৮ নং সরংরক্ষিত ওয়ার্ড কাউন্সিলর মিসেস নিলু নাগের নতুন ওয়ার্ড কার্যালয় ২ মে ২০১৬ খ্রি. সোমবার নগরীর কবি নজরুল ইসলাম সড়কে উদ্বোধন করা হয়। চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আলহাজ্ব আ জ ম নাছির উদ্দীন ফিতা কেটে নতুন এ কার্যালয়টির শুভ উদ্বোধন করেন। এ উপলক্ষ্যে অত্র ওয়ার্ড কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সুধি সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন সাবেক কাউন্সিলর জহির আহমদ। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আলহাজ্ব আ জ ম নাছির উদ্দীন। বিশেষ অতিথি ছিলেন রাউজান পৌরসভার মেয়র দেবাশিষ পালিত, কাউন্সিলর তারেক সোলেমান সেলিম, চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামলীগএর বন ও পরিবেশ সম্পাদক মশিউর রহমান চৌধুরী, কাউন্সিলর মাজহারুল ইসলাম চৌধুরী, মো. গিয়াস উদ্দিন, গোলাম মোহাম্মদ জোবায়ের, মো. সলিম উল্লা বাচ্চু, মোরশেদ আলম, সংরক্ষিত ওয়ার্ড কাউন্সিলর আবিদা আজাদ, জেসমিন পারভীন জেসী, ফারহানা জাবেদ, ফেরদৌসী আকবর, কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের সহ সম্পাদক শওকত হোছাইন, মুক্তিযোদ্ধা অমল মিত্র, সমাজ সেবক ডা. ললিত, জন্মাষ্ঠমি উদযাপন পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারন সম্পাদক এড. তপন কান্তি দাশ, মহানগর আওয়ামীযুবলীগ এর যুগ্ম আহবায়ক মাহবুল হক সুমন, কেন্দ্রীয় যুবলীগের সহ অর্থ সম্পাদক হেলাল আকবর চৌধুরী বাবর, পূর্ব মাদারবাড়ী ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ইবনে সালাহ উদ্দিন, যুগ্ম সম্পাদক আতাউল্লা চৌধুরী, সাংগনিক সম্পাদ মো. সানা উল্লাহ, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক ছাত্র নেতা আনিসুর রহমান,চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি ইমরান আহমেদ ইমু, সাধারন সম্পাদক নুরুল আজম রনি, মহানগর ছাত্রলীগের সাবেক নেতা এয়াছির আরাফাত, মহানগর ছাত্রলীগের সাবেক নেতা মাঈনুল হক লিমন, ইসলামিয়া বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের সাবেক সাধারন সম্পাদক এনামুল হক মিলন, জি এস আশিকুন নবী চৌধুরী সহ স্থানীয় আওয়ামীলীগ, মহিলা আওয়ামীলীগ, আওয়ামীযুবলীগ, আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবকলীগ ও ছাত্রলীগের বিভিন্ন স্তরের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। সুধি সমাবেশে প্রধান অতিথির ভাষনে সিটি মেয়র আলহাজ্ব আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেন, সিটি কর্পোরেশনের সকল কাউন্সিলরদের জন্য কার্যালয়ের ব্যবস্থা করা মেয়রের দায়িত্ব। দায়িত্বের অংশ হিসেবে ৩০ নং ওয়ার্ডের সাধারন কাউন্সিলর এর কার্যালয়টিকে সংরক্ষিত ওয়ার্ড কাউন্সিলর নিলু নাগের জন্য বরাদ্দ প্রদান করা হলো। তিনি বলেন, নগরবাসী স্ব স্ব ওয়ার্ড থেকে তাদের সেবা শতভাগ পাওয়ার অধিকার রাখে। সে লক্ষে স্থানীয় কাউন্সিলরবৃন্দ নাগরিক সেবা দিয়ে যাচ্ছেন। সিটি মেয়র বলেন, চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন পরিচালিত হয় নাগরিকদের হোল্ডিং ট্যাক্সের উপর। হোল্ডিং ট্যাক্সের বিষয়ে একটি মহল নানামূখী মিথ্যাচারে লিপ্ত। কারন ট্যাক্স আদায়ে ব্যর্থ হলে জনগনের প্রাপ্তি ও প্রত্যাশা পূরণেও সিটি কর্পোরেশন ব্যর্থ হবে। মেয়র বলেন, কারো বিদ্বেষমুলক মিথ্যাচারে নগরবাসী বিভ্রান্ত হবে না এবং নাগরিক সেবা কোন মহল বাধাগ্রস্থ করতে পারবে না। সকল ধরনের প্রতিবন্ধকতা অতিক্রম করে চট্টগ্রামকে ক্লিন ও গ্রিন সিটিতে রূপান্তর করা হবে। তিনি বলেন, রাতে আবর্জনা অপসারন, ডোর টু ডোর আবর্জনা সংগ্রহ ও অপসারন, বিউটিফিকেশন, আলোকায়ন ও উন্নয়নের ক্ষেত্রে কোন ষড়যন্ত্রই বাধা হতে পারবে না। নগরবাসী শতশভাগ সেবা তাদের দোরগোড়ায় পৌঁছে দেয়া দেয়া হবে। মেয়র তাঁর গৃহিত কর্মকান্ডে নগরবাসীর সহযোগিতা কামনা করেন।

সিটি মেয়রের সাথে পৌর জহুর হকার্স মার্কেট  মসজিদ কমিটির মতবিনিময়

২ মে ২০১৬ খ্রি. সোমবার নগর ভবনে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র দপ্তরে তাঁর সাথে পৌর জহুর হাকর্স মার্কেট মসজিদ কমিটির নেতৃবৃন্দ সাক্ষাৎ ও মতবিনিময় করেন। মতবিনিময়ে তারা জহুর হকার্স মার্কেট মসজিদের সংস্কার, পবিত্র রমানে মুসল্লিদের নামাজ আদায়ের সুবিধার্থে মসজিদে এসি সংযোজন সহ নানা ধরনের প্রস্তাব তুলে ধরেন। মেয়র মসজিদ কমিটির আকার ছোট করা সহ মসজিদের স্বার্থে কতিপয় সিদ্ধান্ত কার্যকর করতে মসজিদ কমিটিকে নির্দেশনা দেন। মতবিনিময়ে অত্র মসজিদ কমিটির সিনিয়র সহ সভাপতি সৈয়দ মোহাম্মদ আবুল হাশেম সওদাগর, সাধারন সম্পাদক আবু জাফর সও., সহ সম্পাদক মো. নুরুল আবছার সও., সদস্য মো. মুনির উদ্দিন বাবুল, মো. ইলিয়াছ সও., মো. জামাল উদ্দিন খান, হাবিবুর রহমান চৌধুরী, কাজী নঈম উদ্দিন, আবুল কালাম, মো. মাহফুজ, শফিউর রহমান সহ, অন্যরা উপস্থিত ছিলেন।

সিটি মেয়রের সাথে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক
অধ্যক্ষ ও বি এম এ সভাপতি’র সৌজন্য সাক্ষাত

সোমবার দুপুরে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আলহাজ্ব আ জ ম নাছির উদ্দীন এর সাথে তাঁর দপ্তরে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের নব নিযুক্ত পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. জালাল উদ্দিন সৌজন্য সাক্ষাত করেন। সাক্ষাতে সিটি মেয়র আ জ ম নছির উদ্দীন চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সুনাম বৃদ্ধি ও চিকিৎসা সেবার মান বৃদ্ধি করে নাগরিক চাহিদা শতভাগ পূরনে পরিচালকের আন্তরিকতা প্রত্যাশা করেন। এসময় পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. জালাল উদ্দিন সততা, নিষ্ঠা ও আন্তরিকতার সাথে তিনি তাঁর উপর অর্পিত দায়িত্ব পালন করে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সুনাম বৃদ্ধিতে সচেষ্ট থাকবেন বলে আশাবাদ ব্যক্ত করে মেয়রের সহযোগিতা কামনা করেন। সাক্ষাতে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ ডা. মো. সেলিম জাহাঙ্গীর ও বি এম এ চট্টগ্রাম এর সভাপতি ডা. মো. মজিবুল হক উপস্থিত ছিলেন।

মতামত...