,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

সাতকানিয়ায় কেন্দ্র দখল, সংর্ঘষ, গোলাগুলি, এলডিপির প্রার্থীসহ আটক ১৭, আহত ১০

aমোঃ নাজিম উদ্দিন, দক্ষিণ চট্টগ্রাম সংবাদদাতা, বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকমঃ চট্টগ্রামের সাতকানিয়ায় ৪ জুন ষষ্ট ধাপের ইউপি নির্বাচনে কেন্দ্র দখল, সংর্ঘষ, গোলাগুলি জাল ভোটের মধ্যদিয়ে অনুষ্ঠিত হল ১৭ ইউনিয়নের নির্বাচন। ভোট কেন্দ্র দখল ও প্রভাব বিস্তার করতে গিয়ে প্রার্থীর কর্মী সমর্থকদের সংর্ঘষে চেয়ারম্যান প্রার্থীসহ আহত হয়েছে ১০ জন। কেন্দ্রে গোলযোগ সৃষ্টির কারণে চেয়ারম্যান প্রার্থীসহ আটক করা হয়েছে ১৭ জন। শনিবার সকাল ৮টায় এক যুগে উপজেলার ১৭ ইউনিয়নে ভোট গ্রহন শুরু হয়ে বিকাল ৪টা পর্যন্ত ভোট অনুষ্ঠিত হয়।
সকাল ১১ টায় সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, উপজেলার বাজালিয়ার প্রসন্ন গুহ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে সাধারণ ভোটারদের ভীতি সঞ্চার করার জন্য ভোট শুরুর আগে থেকে কেন্দ্রের বাহিরে নৌকা প্রতীকের প্রার্থীর সমর্থকরা কিছুক্ষণ পর পর ককটেল বিস্ফোরণ ঘটাচ্ছে। প্রিসাইডিং অফিসারের রুম বাহিরে লক করে তিনি ভিতরে অবস্থান করছে। দরজার সামনে দুই আনসার সদস্য পাহারা দিচ্ছে। মহিলা ভোটারের উপস্থিতি কম দেখা গেলেও পুরুষ ভোটার লাইনে কাউকে দেখা যায়নি। কেন্দ্রে দায়িত্বরত প্রিসাইডিং অফিসার আব্দুস ছবুর বলেন, ভোট শুরুর আগে থেকে আশে পাশে বিস্ফোরণ ঘটাচ্ছে দুর্বৃত্তরা। তাই ভোটারের উপস্থিতি কম দেখা যাচ্ছে।
জানা যায়, চরতী ইউনিয়নের দক্ষিণ চরতী পশ্চিম পাড়া ফোরকানিয়া মাদ্রাসা কেন্দ্রে ভোট শুরুর ১ ঘন্টা পর চেয়ারম্যান প্রার্থীর ব্যালট পেপার প্রদান না করলে সাধারণ ভোটারদের মাঝে উত্তেজনা বেড়ে যায়। যার কারণে কিছুক্ষন কেন্দ্রটির ভোট গ্রহণ বন্ধ থাকে। সকাল সাড়ে ১০টার দিকে বাজালিয়া চিতাখালী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে কেন্দ্র দখল করা নিয়ে আ.লীগ প্রার্থী তাপশ কান্তি দত্ত ও এলডিপি প্রার্থী নুরুল ইসলাম সিকদারের সমর্থকদের মধ্যে কেন্দ্রের বাহিরে সড়কে সংঘর্ষ হলে দুই পক্ষের বেশ কয়েকজন সমর্থক আহত হয়। এ ঘটনার কিছুক্ষণ পর বিজিবি কেন্দ্রের দক্ষিণে বটতল এলাকা থেকে তাপশের এক সমর্থককে অ¯ত্রসহ সহ আটক করে। তার নাম ইমরান আহমদ বেলাল (২১)।
এদিকে কেন্দ্রে প্রভাব বিস্তারের অভিযোগে বাজালিয়া এলডিপির চেয়ারম্যান প্রার্থী নুরুল ইসলাম সিকদার (৬৫)কে আটক করে পুলিশ। সকাল ১১টার সময় কাঞ্চনা মাদ্রাসা কেন্দ্রে নৌকা প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী রমজান আলী পরিদর্শনে গেলে নৌকা প্রার্থী ও বিদ্রোহী প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংর্ঘষ বাঁধে। এসময় উভয় পক্ষে গুলাগোলির ঘটনা ঘটে। এতে পায়ে গুলি বিদ্ধ হন রমজান আলী। দুপুর সাড়ে ১২টার সময় দক্ষিণ জনার কেঁওচিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে কেন্দ্রে প্রবেশ করে নৌকা প্রার্থীর লোকজন জোর পূর্বক ব্যালট পেপারে সীল মারার চেষ্টা করলে বিদ্রোহী প্রার্থী মনির আহমরে সমর্থকদের মাঝে সংঘর্ষ হয়। সংঘর্ষে সোহেল, সফি ও নেজাম উদ্দিন আহত হয়। এ ঘটনায় কিছুক্ষণ ভোট গ্রহণ বন্ধ থাকে। কালিয়াইশ ইউনিয়নে রাসুলাবাদ সিনিয়র মাদ্রাসার সামনে বহিরা গত লোকজন জমায়েত হলে পুলিশ ফাঁকা গুলি করে লোকজনকে সরিয়ে দেয়। এছাড়া বিভিন্ন ভোট কেন্দ্রে আইন বহিরভুত কাজ করায় থানা পুলিশ ১৬ জনকে আটক করে। উপজেলার কেঁওচিয়া ইউনিয়নের আ.লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মনির আহমদ জানান, দুই একটি কেন্দ্রে সামান্য গোলযোগ হলেও প্রশাসনের সহায়তায় আমার ইউনিয়নে নজিরবিহীন নিরপেক্ষ ভোট হয়েছে।
সাতকানিয়া থানা আওয়ামী লীগের ত্রাণ বিষয়ক সমপাদক আব্দুল মান্নান বলেন, পশ্চিম ঢেমশার ৭ নং ওয়ার্ডে দুই মেম্বার প্রার্থীর সমর্থকদের ইটপাটকেল ছুড়াছুড়িতে উপজেলা আ.লীগের যুগ্ন সম্পাদক জসিম উদ্দিন ও সাংগঠনিক সম্পাদক মো. শাহজাহান গুরুত্বর আহত হয়।

মতামত...