,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

সিঙ্গাপুরে যৌতুক প্রতিরোধ আন্দোলন বাংলাদেশেরস ইফতার পার্টি সম্পন্ন

aমুহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম বাবু, সিঙ্গাপুর থেকে,  বিডিনিউজ রিভিউজঃ “সচেতনতা গড়ে তুলবে প্রতিরোধ ” এই শ্লোগানকে প্রতিপাদ্য বিষয় রেখে প্রতিবছরের ন্যায় যৌতুক প্রতিরোধ আন্দোলন বাংলাদেশের আয়োজনে সিঙ্গাপুরে ইফতার মাহফিলের আয়োজন করা হয়। রবিবার স্থানীয় সময় সন্ধ্যা ছয়টা ত্রিশ মিনিটে  ডেস্কার  রোডের ঐতিহ্যবাহী ধান সিঁড়ি রেষ্টুরেন্টে বার্ষিক সভা ও  ইফতার মাহফিল  এবং কমিটি বরণ অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় সভাপতিত্ব করেন যৌতুক প্রতিরোধ আন্দোলন বাংলাদেশ,সিঙ্গাপুর শাখার সভাপতি মুহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম বাবু।

 আলোচনা সভা ও ইফতার মাহফিলে প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ থেকে আগত  মাসিক  ম্যাগাজিন ডিজিটাল সময় এর সম্পাদক খালেদ সাইফুল্লাহ।

সম্মানিত অতিথি ছিলেন-  বাংলাদেশ  বিজনেস চেম্বার অফ সিঙ্গাপুর ,বিডিচ্যাম  ,সিঙ্গাপুর এর সাংগঠনিক সম্পাদক, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী রহামন গ্রূপের ম্যানেজিং ডিরেক্টর জাহাঙ্গীর আলম জনি ,আজহারুল ইসলাম ,সাবেক সাধারণ সম্পাদক বিডিচ্যাম।

বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ সিঙ্গাপুর এর সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার কাজী  লিটন এবং বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল সিঙ্গাপুর এর সভাপতি  ও ব্যাবসায়ী আবদুল কাদের।

 a

অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মনির আহমদ।

 ইসমাইল হোসেনের নেতৃত্বে নবগঠিত কুমিল্লা শাখা এবং পলাশ মাহমুদ ও  উদ্দিনের নেতৃত্বে যশোহর কমিটিকে  ফুলের তোড়া  দিয়ে বরণ করেন   অতিথি কাজী শিহাব উদ্দিন লিটন,খালেদ সাইফুল্লাহ , সভাপতি  জাহাঙ্গীর আলম বাবু  এবং সাধারণ সম্পাদক কাজী নজরুল ইসলাম মুন্না।

 অতিথি ছাড়াও সভায়  যৌতুক প্রতিরোধ এর আলোকপাত করে বক্তব্য রাখেন , বাংলার কণ্ঠ কালচারাল ফোরাম সভাপতি রেজাউল করিম ,পলাশ মাহমুদ ,জসিম উদ্দিন,ইসমাইল হোসেন।

উপস্থিত সকলে ইফতার মাহফিলে   সম্প্রতি ঢাকার গুলশান ট্রাজেডির নিহতদের আত্মার শান্তি কামনা এবং বাংলাদেশের শান্তির  জন্য   দোয়া করেন।

জাহাঙ্গীর বাবু তার সমাপনী বক্তব্যে সিঙ্গাপুরের বিভিন্ন এলাকা থেকে আগত সদস্যদের এবং অতিথিদের ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন ,প্রবাসে যেখানে বাংলাদেশি রয়েছে সেখানে কমিটি গঠন করার প্রয়োজনীয়তা তুলে ধরেন।তিনি বলেন প্রত্যেক প্রবাসী তার পরিবারের অর্থের যোগানদাতা অভিভাবক।   বেশির ভাগ প্রবাসী কয়েক বছর চাকুরীর পর বিয়ে করেন ,তাই তাদের  কথা যেমন পরিবার প্রাধান্য দিবে ,তেমনি তিনিও এই আন্দোলনের সদস্য হিসাবে পরিবারে ভূমিকা রাখবেন।প্রত্যেক  বিবাহ প্রত্যাশী প্রবাসীর  একটাই কথা হওয়া উচিৎ  ,যৌতুক নেব না ,যৌতুক দেব না।

ভবিষত্যের পরিকল্পনা হিসাবে দেশে বিদেশে সচেতনতা বৃদ্ধি করতে হবে ,পাড়া মহল্লা ,স্কুল,মাদ্রাসা ,কলেজে যৌতুকের কুফল জানাতে হবে.আমাদের মেয়েদের ,নারীদের সচেতন করতে হবে ,এ জন্য প্রচারের কোন বিকল্প নেই.বর্তমানে অনলাইনের যুগ,প্রিন্ট মিডিয়ার পাশাপাশি এগিয়ে আসতে হবে অনলাইন পত্রিকা ও এক্টিভিস্টদের। এগিয়ে আসতে হবে যুব সমাজকে।

যৌতুক একটি ব্যাধি,একটি সংক্রমণ ,সমাজের ক্যান্সার। অতিথি ও বক্তারা উদাহরণ দিয়ে বিশ্লেষণ করে তা ব্যাক্ত করেন।

উল্লেখ্য ২০১৩ সাল থেকে সিঙ্গাপুরে যৌতুক প্রতিরোধ আন্দোলন বাংলাদেশ সিঙ্গাপুর শাখার যাত্রা শুরু,২০১৫ সালে কিশোর গঞ্জ শাখা ,এ বছর কুমিল্লা ও যশোহর শাখা কমিটি হলো। আগামীতে বাৎসরিক এর  স্থলে ত্রিমাসিক,ষান্মাসিক অনুষ্ঠান ও শাখা কমিটি করার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

২০০৩ সাল থেকে যৌতুক প্রতিরোধ আন্দোলন বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা জনাব বেলাল হুসাইন ফতেহ্পুরী বিশ্বব্যাপী যৌতুক প্রতিরোধ আন্দোলন গড়ে তোলার লক্ষ্যে সংগঠনটির প্রতিষ্ঠা করেন। যা এখন সরকারি অনুমোদনের অপেক্ষায় এবং প্রক্রিয়াধীন।

মতামত...