,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

সীতাকুন্ডে স্কুলের পিকনিক বাস উল্টে ৫০ আহত

accint

 

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম,  বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকম::ঢাকা চট্টগ্রাম মহাসড়কের সীতাকু- উপজেলাধীয় মাদামবিবিরহাট এলাকায় পিকনিকের বাস উল্টে ছাত্র-ছাত্রী, শিক্ষক ও অভিভাবকসহ অন্তত ৫০ জন আহত হয়েছে। শুক্রবার রাত পৌনে ৮টার দিকে মাদামবিবিরহাট চেয়ারম্যানঘাট এ দুর্ঘটনা ঘটেছে। দূর্ঘটনায় আহতদের কুমিরা ফায়ার সার্ভিস ও স্থানীয় এলাকাবাসী উদ্ধার করে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালেে প্রেরণ করেছে। এদের মধ্যে ৫/৬জনের অবস্থা আশঙ্খাজনক বলে ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা জানান।

ঘটনাস্থল থেকে বারআউলিয়া হাইওয়ে থানার ওসি, মো. শহিউল্লাহ্ বলেন, দূর্ঘটনার খবর শুনে তাৎক্ষনিকভাবে আমরা দূর্ঘটনাস্থলে এসেছি এলাকাবাসীর সহযোগিতায় ফায়ার সার্ভিস উদ্ধার কাজ করছে। বেশ কয়েকজন আহতদেরকে চমেক হাসপাতালে প্রেরণ করেছি। তবে এদের মধ্যে ৫-৬ জনের অবস্থা গুরুতর বলে তিনি জানান।

আহত কয়েকজনের সাথে কথা বলে জানাগেছে, শুক্রবার সকালে নোয়াখালী জেলার সোনাগাজী ডাকবাংলা “আল-হেরা একাডেমি’র ছাত্র-ছাত্রী (প্লে-পঞ্চম শ্রেণির), শিক্ষক ও অভিভাবকসহ মোট ৮১জন ফেনী জ-১১-৩০৩৪ নম্বরের একটি বাসযোগে চট্টগ্রামের আনোয়ারা থানার পারকির চরে পিনকিনে আসেন। বিকেল ৫টার দিকে পিকনিক শেষে তারা গন্তব্যের উদ্দেশ্যে রওনা দেয়। সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার সময় তাদের বহনকারী বাসটি সীতাকুন্ড থানার মাদামবিবিরহাট চেয়ারম্যান ঘাটা এলাকায় অতিক্রমকালে হঠাৎ নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে বাসটি রাস্তার মাঝখানে থাকা আইল্যান্ডের উঠে উল্টে যায়। এসময় বাসের শিক্ষার্থী ও শিক্ষক অভিভাবকদের আত্মচিৎকারে আশেপাশের এলাকাবাসী ছুটে যায়। এবং আহত ছাত্রছাত্রী (শিশু) অভিভাবক শিক্ষকদের উদ্ধার করে।

শত শত মানুষ বাসটি ধাক্কা দিয়ে সোজা করে দাড় করিয়ে দেয়। পরে খবর পেয়ে কুমিরা ফায়ার সার্ভিসের লোকজন ছুটে এসে উদ্ধার কাজে অংশ নেয়।

আহত অভিভাবক কালা মিয়া জানান, নির্দিষ্ট সময় পৌছানোর জন্য বাস চালক অনেক আগ থেকে বেপরোয়া ভাবে বাস চালিয়ে যাচ্ছিলেন। অনেক বার বারণ করা সত্ত্বেও সে তার গাড়ির গতি কমায়নি। যার পরিণতি হল এই ভয়ানক দূর্ঘটনা। তিনি বলেন আমার দেখা অনুযায়ী বাসে থাকা হেলপার পা ছিন্ন বিছিন্ন হয়ে গেছে।
এব্যাপারে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পুলিশ ফাঁড়ির এ এস আই পঙ্কজ বড়–য়া জানান, শুনেছি সীতাকু-ে বড় একটা দুর্ঘটনা ঘটেছে। আহতদের হাসপতালে আনা হচ্ছে। কিন্তু এখনো মাত্র একজনকে আসা হয়েছে। বাকিরা পথে আছে।

মতামত...