,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

সীতাকুন্ডে ২ গৃহবধু হত্যা মামলায় গ্রেফতার নেই

কামরুল ইসলাম দুলু , সীতাকুন্ড প্রতিবেদক,  বিডিনিউজ রিভিউজ ডটকমঃ চট্টগ্রাম উপজেলার সীতাকুন্ডে যৌতুকের কারণে পৃথক দুই গৃহবধু রুমা দাশ ও বিবি জহুরাকে হত্যার অভিযোগে দায়ের করা মামলায় এখনো পর্যন্ত কোন আসামীকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। পুলিশ বলছে উভয় পরিবারের লোকজন ঘটনার পর থেকেই পালিয়ে যাওয়ায় অভিযুক্তদের কাউকে গ্রেফতার করা যাচ্ছে না। ঘটনার বিবরণে প্রকাশ গত ১১ মে সীতাকুন্ডের মুরাদপুর এলাকার হাসনাবাদ গ্রামের সর্দার বাড়িতে স্বপনের স্ত্রী বিবি জহুরাকে তার ননদ রুমা আক্তার রাতে দা দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে। নিহত গৃহবধু বিবি জহুরার স্বামী বড় স্ত্রীকে নিয়ে শহরে থাকে আর ছোট স্ত্রী জহুরা দুই সন্তান নিয়ে থাকেন গ্রামের বাড়ি সীতাকুন্ডের মুরাদপুরে। দীর্ঘদিন যাবত যৌতুকের জন্য শশুড়, শাশুড়ি ও ননদ মিলে বিবি জহুরাকে নির্যাতন করে আসছিল। গত ১১ মে রাতে দা দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করা হয় তাকে। পরদিন নিহতের ছোট ভাই রেজাউর করিম বাদী হয়ে সীতাকুন্ড মডেল থানায় তিনজনকে অভিযুক্ত করে মামলা দায়ের করে। কিন্তু হত্যাকান্ডের ১ মাস ২১ দিন অতিবাহিত হওয়ার পরও পুলিশ কোন আসামীকে গ্রেফতার করতে পারেনি। অপর দিকে উপজেলার মাদাম বিবির হাট এলাকায় যৌতুক  না পেয়ে রুমা দাশ নামের এক গৃহবধুকে স্বামী,শশুড়-শাশুড়ি মিলে হত্যা করে গত ৩ জুন। উপজেলার ভাটিয়ারী ইউনিয়নের মাদামবিবির হাট জাহানাবাদ উত্তর জেলে পাড়ার হরি দাশের পুত্র লিটন দাশের সাথে বিয়ে হয় একই এলাকার হরি কমল দাশের মেয়ে রুমা দাশের। বিয়ের ২/৩ দিন পর থেকেই যৌতুকের জন্য নববধু রুমার উপর শুরু হয় নির্যাতন। বিয়ের সময় পাত্র পক্ষ খাট ও এক ভরি স্বর্ণসহ আনুসাঙ্গিক বিভিন্ন সামগ্রী দাবী করে। মেয়ের সুখের কথা চিন্তা করে হত দরিদ্র বাবা জেলে হরিকমল অতি কষ্টে তা মেয়ের জামাইকে প্রদান করে। কিছু দিন যেতে না যেতেই আবারো ৫০ হাজার টাকা বাপের বাড়ি থেকে নিয়ে আসার জন্য শুরু হয় নির্যাতন। গত ৩ জুন বিকালে রুমাকে হত্যা করে গলায় শাড়ি প্যাচিয়ে ঝুলিয়ে আত্নহত্যা বলে চালিয়ে দেবার চেষ্টা করে। ঘটনার পর পরই স্বামী,শ্বশুড়-শাশুড়িসহ পরিবারের সবাই পালিয়ে যায়। ঐদিনই রুমার বাবা হরিকমল দাশ বাদী হয়ে ৫ জনকে অভিযুক্ত করে হত্যা মামলা দায়ের করলেও একমাসেও পুলিশ একজন আসামীকেও গ্রেফতার করতে পারেনি। দুই গৃহবধু হত্যার অভিযুক্তদের গ্রেফতার না হওয়া প্রসঙ্গে মুটোফোনে আলাপে সীতাকুন্ড মডেল থানার ওসি মো: ইফতেখার হাসান বলেন,দুই গৃহবধু হত্যার পর থেকেই উভয় পরিবারের লোকজন বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে গেছে। তাই কাউকে গ্রেফতার করা যাচ্ছে না। তবে গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত আছে ।

মতামত...